আইন

মামুনুলদের বি’রু’দ্ধে মা’ম’লার প্রতিবেদন দাখিল দিন ধার্য

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে গত ২৬ মা’র্চ বায়তুল মোকাররমে স’হিং’সতার ঘটনায় হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকসহ ১৭ জনকে আ’সা’মি করে মা’ম’লা দায়ের করা হয়েছে। এ মা’ম’লার শুনানির জন্য ১৭ মে দিন ধার্য করেছে আ’দা’লত। মামুনুল হককে এক নম্বর ও হুকুমের আ’সা’মি করা হয়েছে। মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) পল্টন থা’নায় দায়ের করা ওই মা’ম’লার এজাহার আ’দা’লতে জমা পড়লে মহানগর হাকিম ধীমান চন্দ্র মণ্ডল তা গ্রহণ করে প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ ধার্য করেন। রাষ্ট্রপক্ষের অন্যতম আইনজীবী আজাদ রহমান সংবাদমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক খন্দকার আরিফুজ্জামান সোমবার (৫ এপ্রিল) রাতে ওই মা’ম’লা দায়ের করেন। এজাহারে তিনি নিজেকে একজন ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচয় দিয়েছেন।

মা’ম’লার অ’পর আ’সা’মিরা হলেন- হেফাজতে ই’স’লা’মের যুগ্ম মহাসচিব জুনায়েদ আল হাবীব, লোকমান, নাসির উদ্দিন, নায়েবে আমির বাহাউদ্দীন জাকারিয়া, নুরুল ই’স’লা’ম জেহাদী, মাজেদুর রহমান, হাবিবুর রহমান, খালেদ সাইফুল্লাহ আইয়্যুবী, জসিম উদ্দিন, মাসুদুল করিম, মুফতি মনির হোসাইন কাশেমী, যাকারিয়া নোমান ফয়েজী, ফয়সাল আহমেদ, মুশতাকুন্নবী, হাফেজ মো. জোবায়ের এবং হাফেজ মো. তৈয়ব।

উল্লেখ্য, ভা’রতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফরকে কেন্দ্র করে শুক্রবার (২৬ মা’র্চ) বায়তুল মোকাররমে বি’ক্ষো’ভ করে হেফাজতে ই’স’লা’ম। সেখানে পু’লিশ ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে সং’ঘ’র্ষ বাধে তাদের। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে চট্টগ্রামে হাটহাজারী মাদরাসার ছাত্ররা বি’ক্ষো’ভ মিছিল করেন। সেখানে পু’লিশের গু’লিতে চার ছাত্রের মৃ’ত্যু হয়। এটিকে কেন্দ্র করে শুক্রবার বিকেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বি’ক্ষো’ভ হয়। সেখানেও সং’ঘ’র্ষে একজনের মৃ’ত্যু হয়। হা’ম’লা ও হ’ত্যার ঘটনাকে কেন্দ্র করে ২৭ মা’র্চ বি’ক্ষো’ভ ও ২৮ মা’র্চ হরতাল পালন করে ই’স’লা’মি সংগঠনটি। হরতা’লে দেশব্যাপী হা’ম’লা, ভাঙচুর ও সড়ক অবরোধ করে হেফাজতের নেতাকর্মীরা।

এদিকে শনিবার (৩ এপ্রিল) বিকেলে সোনারগাঁওয়ের রয়েল রিসোর্টের ৫০১ নম্বর কক্ষে না’রীসহ মামুনুল হককে অ’ব’রু’দ্ধ করে স্থানীয়রা। পরে তাকে উ’দ্ধা’র করে পু’লিশ। সেই সঙ্গে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ওই না’রীকে দ্বিতীয় স্ত্রী’ বলে দাবি করেন মামুনুল হক।

মামুনুল হক অ’ব’রু’দ্ধ এমন খবর শুনে সেখানে সন্ধ্যার পর জড়ো হতে থাকেন হেফাজতের নেতাকর্মীরা। একপর্যায়ে রয়েল রিসোর্টে হা’ম’লা চালান। এতে রিসোর্টের মধ্যে অ’ব’রু’দ্ধ হয়ে পড়েন সোনারগাঁ উপজে’লা নির্বাহী কর্মক’র্তা (ইউএনও) আতিকুল ই’স’লা’ম, এসিল্যান্ড গোলাম মোস্তফা মুন্না, নারায়ণগঞ্জের অ’তিরিক্ত পু’লিশ সুপার (অ’প’রা’ধ) টিএম মোশাররফ হোসেন, সোনারগাঁ থা’নার ওসি (ত’দ’ন্ত) তবিদুর রহমানসহ স্থানীয় সাংবাদিকরা। একপর্যায়ে মা’ওলানা মামুনুল হককে পু’লিশের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়ে যান বিক্ষুব্ধ হেফাজতের কর্মীরা। পরে মিছিল করেন তারা।

নারায়ণগঞ্জের অ’তিরিক্ত পু’লিশ সুপার (অ’প’রা’ধ) মোশাররফ হোসেন বলেন, জিজ্ঞাসাবাদ শেষে মামুনুল হককে থা’নায় নেওয়ার পথে রিসোর্টে হা’ম’লা চালান হেফাজতের কর্মীরা। পরে মামুনুল হককে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়। সেখানে হা’ম’লা চালিয়ে তাকে ছিনিয়ে নিয়ে যান হেফাজতের কর্মীরা।

Back to top button