রাজনীতি

‘ভা’রত প্রধানমন্ত্রীকে খালি প্লেট দিয়েছে’

ভা’রতের দ্বিখণ্ডিত হওয়ায় সারা পৃথিবীর জন্য মঙ্গলকর হবে বলে মন্তব্য করেছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ও প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘ভা’রত প্রধানমন্ত্রীকে রক্ষা করবে না। ভা’রত জানে কখন আপনাকে ছুঁড়ে ফেলে দিতে হয়। আপনারা সমঝোতা করেছেন, কী দিয়েছে? খালি প্লেট দিয়েছে। মুক্তিযু’দ্ধে তারা যতটা সহায়তা করেছে, মুক্ত হওয়ার প্রথম মাসে সেই অর্থ তুলে নিয়েছে ভা’রত।’

বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিতে গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতা’লে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন। করোনা সংক্রমনের ভয়বহতার প্রেক্ষাপটে করণীয় বিষয়ে নাগরিক সংবাদ সম্মেলনের ব্যানারে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

তিনি বলেন, আজ ভা’রতকে পরিস্কারভাবে বলে দিতে চাই, তুমি আমাকে সাহায্য করেছো সেজন্য আম’রা কৃতজ্ঞ। তোমাকে আরো বেশি কৃতজ্ঞ হতে হবে, কারণ তোমাকে আম’রা রক্ষা করেছি। ভা’রতের এখনো যে অখণ্ড আছে তার চাবিকাঠি কিন্তু আমাদের হাতে। আম’রা রক্ষা করেছি বলে এখনো ভা’রতের অরুণাচল, মনিপুর, ত্রিপুরা, কা’শ্মীর একআছে। তবে ভা’রত দ্বিখণ্ডিত হওয়ায় সারা পৃথিবীর জন্য মঙ্গলকর হবে।

জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, করোনা জাতীয় জীবনে ভয়াবহতা সৃষ্টি করেছে। করোনায় একজন মানুষের মৃ’ত্যু হয় কিন্তু পুরো পরিবারকে হ’ত্যা করছে সরকার। কারণ সরকারের অব্যবস্থপনা, সরকারের জবাবদিহিতার অভা’র, কোনো ধরনের পরোয়ানা করা। একটা আইসিউতে প্রতি দিনের খরচ ৩০ হাজার থেকে আড়াই লাখ টাকা। এন্টিসেপ্টিক ও ডিজইনফেক্টেডের উপরেও ট্যাক্স আছে। আম’রা ১৩০০ টাকার ওষুধ ৪০০ টাকায় দিচ্ছি। চিকিৎসা করাতে গিয়ে একটি পরিবার নিঃস্ব হয়ে যায়। এটা সরকারের ব্যর্থতা। সরকার নির্দিষ্ট বিষয়ে অজ্ঞ লোক দিয়ে সব কিছু চালাচ্ছে।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা বলেন, আইসিইউের ওষুধের দাম খুব বেশি। কাজেই চিকিৎসা করাতে গিয়ে পরিবারগুলো সর্বশান্ত হচ্ছে। একটি সিরিঞ্জের সুইয়ের ট্যাক্সও ৩১ শতাংশ। এই জিনিসগুলো পরিবর্তন করতে হবে। সকল ওষুধের মূল্য সরকার নিয়ন্ত্রণ করবে। তাহলে ওষুধের দাম বর্তমান দামের তুলনায় এক তৃতীয়াংশে নেমে আনা সম্ভব। অক্সিজেনের উপরেও ভ্যাট ১৯ শতাংশ। ভা’রতীয় কোম্পানি সময় মত দ্বিতীয় ডোজের ভ্যক্সিন পাঠাচ্ছে না। কারণ তাদেরও চাহিদা বেশি। এই জন্য সরকারকে নিজ দেশে উৎপাদনে যেতে বলেছিলাম।

ড. বিজন কুমা’র শীলের মতো মানুষের প্রয়োজন আছে উল্লেখ করে তাকে অবিলম্বে ভিসা প্রদানের জন্য সরকারকে অনুরোধ করেন। তিনি বলেন, সবে মাত্র মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা হয়েছে। ৫০ হাজারের মত পরীক্ষায় পাস করেছে। তারা ১০ হাজার ভর্তি করছেন। এটা হওয়া উচিত ২০ হাজার। ২০ হাজার ছাত্রকে মেডিকেলে ভর্তি করানো উচিত। তাদের পরীক্ষা নেয়া হয়েছে ফিজিক্স-ক্যামেস্টি। কিন্তু মুক্তিযু’দ্ধ বোঝে কিনা সে বিষয়ে পরীক্ষা নেয়া হয়নি। সমাজের শ্রেণি বোঝে কিনা? সমাজের জন্য দরদ আছে কিনা? সাধারণ মানুষের জন্য তার বিবেক কাঁদে কিনা? এই সবের কোনো কিছুই পরীক্ষায় নেই। আম’রা তাদের ডাক্তার বানাচ্ছি, কিন্তু মানুষ বানাচ্ছি না।

সংবাদ সম্মেলনের সভাপতিত্ব করেন ভাসানী অনুসারী পরিষদের মহাসচিব শেখ রফিকুল ই’স’লা’ম বাবলু। বক্তব্য রাখেন গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিপি নূরুল হক নূর, ভাসানী অনুসারী পরিষদের প্রেসিডিয়াম সদস্য নাঈম জাহাঙ্গীর, মুক্তিযোদ্ধা ইসতিয়াক আজিজ উলফাত, রাষ্ট্র চিন্তার দিদারুল ভুঁইয়া, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রেস উপদেষ্টা জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু, পানি বিশেষজ্ঞ ম ইনামুল হক, ভাসানী অনুসারী পরিষদের সদস্য ব্যারিস্টার সাদিয়া আরমান। জুমে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আইন
বিভাগের অধ্যাপক আসিফ নজরুল, ও বেলা‘র নির্বাহী পরিচালক সৈয়দা অ্যাডভোকেট রিজওনা হাসান।

Back to top button