অপরাধ

নিষিদ্ধ জ’ঙ্গি সংগঠন জেএমবির ভা’রপ্রাপ্ত আমির গ্রে’প্তা’র

নিষিদ্ধ জ’ঙ্গি সংগঠন জামায়াতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশের (জেএমবি) ভা’রপ্রাপ্ত আমির রেজাউল হক রেজা ওরফে তানভীর মাহমুদ শিহাবকে গ্রে’প্তা’র করা হয়েছে। শনিবার (১০ এপ্রিল) রাজধানীর বাড্ডা এলাকায় অ’ভিযান চালিয়ে পু’লিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রা’ই’ম ইউনিটের (সিটিটিসি) বো’মা নিষ্ক্রিয়করণ দলের সদস্যরা তাকে গ্রে’প্তা’র করে।

পু’লিশ বলছে, রেজাউল বর্তমানে জেএমবির ভা’রপ্রাপ্ত আমির হিসেবে নিযু’ক্ত রয়েছেন। সংগঠনটির একমাত্র সূরা সদস্যও তিনি। অনেক দিন পর জেএমবির শীর্ষ কোনো নেতা ধ’রা পড়লো। সর্বশেষ জেএমবির ভা’রপ্রাপ্ত আমির ছিলেন ইঞ্জিনিয়ার খুরশিদ আলম। ২০১৮ সালের দিকে ‘ব’ন্দু’কযু’দ্ধে’ মা’রা যান তিনি।

সিটিটিসির অ’তিরিক্ত পু’লিশ সুপার রহমত উল্লাহ চৌধুরী বলেন, জেএমবির ভা’রপ্রাপ্ত আমিরের পদ ছাড়াও রেজাউল সংগঠনটির দাওয়া এবং বাইতুলমাল বিভাগের প্রধান। তিনি মূলত জেএমবির শীর্ষ নেতা সালাউদ্দিন সালেহীনের নির্দেশনায় বর্তমানে সংগঠনকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। সালেহীন অনেক দিন ধরে দেশের বাইরে পলাতক। ২০০৫ সালে দেশজুড়ে সিরিজ বো’মা হা’ম’লায়ও রেজাউল জ’ড়ি’ত ছিলেন। সিরিজ বো’মা হা’ম’লার ঘটনায় ওই বছরই গ্রে’প্তা’র হয়েছিলেন তিনি।

পু’লিশের একাধিক দায়িত্বশীল কর্মক’র্তা জানান, দীর্ঘ দিন কারাগারে থাকার পর ২০১৭ সালে জামিনে মুক্তি পেয়ে আবার সাংগঠনিক কাজে সম্পৃক্ত হন জেএমবির ভা’রপ্রাপ্ত আমির। তার বি’রু’দ্ধে ভাটারা থা’নায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে একটি মা’ম’লা ত’দ’ন্তাধীন রয়েছে। বিমানবন্দর ও জিআরপি থা’নার দু’টি মা’ম’লার আ’সা’মিও তিনি। ওই দুই মা’ম’লা আ’দা’লতে বিচারাধীন।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে রেজাউল পু’লিশকে জানান, দেশব্যাপী সাংগঠনিক সফরের মাধ্যমে নতুন সদস্য সংগ্রহে দাওয়াতি কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিলেন তিনি। সারা দেশে জেএমবির সদস্যদের কাছ থেকে চাঁদার টাকায় পরিচালিত কথিত বাইতুলমাল তত্ত্বাবধান করেন রেজাউল। এরই মধ্যে জেএমবির সদস্য কারাব’ন্দি তাদের পরিবারকে প্রায় নিয়মিত অর্থ সহায়তা করে আসছেন তিনি। বিভিন্ন সময় অনলাইনের মাধ্যমে সারা দেশের জেএমবি সদস্যদের মাঝে উগ্র মৌলবাদী বিষয় নিয়ে বক্তৃতা দিতেন রেজাউল।

Back to top button