জেলার খবর

বিজিবি মোতায়েনের পরও শিমুলিয়ায় ঘরমুখো মানুষের ঢল

ক’রো’না সংক্রমণ রোধে সরকার ঘোষিত বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে ঈদে ঘরমুখো মানুষের চাপ সামাল দিতে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ফেরিঘাটে দুই প্লাটুন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) মোতায়েন করা হয়েছে।

তার পরও পবিত্র ঈদুল ফিরত কেন্দ্র করে নাড়ির টানে বিজিবির বাধা উপেক্ষা করে আজ সোমবারও বাড়ি ফেরা মানুষের উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে।

রোববার ভোর থেকে বেসাম’রিক প্রশাসনের সহায়তায় বিজিবি মোতায়েন করা হয় শিমুলিয়া ঘাট এলাকার বিভিন্ন পয়েন্টে। বিজিবি সদর দপ্তর পরিচালক (অ’পারেশন) লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফয়জুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এদিকে সকাল ৮টায় বিআইডব্লিউটিসি মানুষের চাপ সামাল দিতে পাঁচটি লা’শবাহী অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে একটি ফেরি ফরিদপুর শিমুলিয়া ঘাট থেকে ছাড়ে। এ সময় বিপুল পরিমাণ মানুষ গাদাগাদি করে ফেরিতে উঠে পড়ে।

এর আগে সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক ক’রো’নাভাই’রাস সংক্রমণ রোধে শনিবার মধ্যরাত থেকে শিমুলিয়া-বাংলাবাজারসহ সব ফেরিঘাটে দিনেরবেলায় ফেরি চলাচল বন্ধের ঘোষণা দেওয়া হয়। শুধু রাতে পণ্যবাহী পরিবহন পারাপারের জন্য ফেরি চলাচল করতে পারবে বলে জানায় ঘাট কর্তৃপক্ষ।

তবে ঈদ সামনে রেখে এই নৌরুট দিয়ে ঘরে ফিরছেন মানুষ। তাই শনিবার ভোর থেকে এই নৌরুটে মানুষ ও যানবাহনের ভিড় বাড়তে থাকে। সকাল সাড়ে ৮টার পর থেকে ফেরিঘাট এলাকায় যানবাহন ও যাত্রীর চাপ আরও বেড়ে যায়, যা সামাল দিতে রীতিমত হিমসিম খেতে হয় ঘাট কর্তৃপক্ষকে। তাই পরিস্থিতি সামাল দিতে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানায় বিজিবি।

বিআডব্লিউটিসির শিমুলিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক ফয়সাল জানান, বিজিবির বাধা উপেক্ষা করে ঘাট এলাকায় প্রচুর পরিমাণ লোক রয়েছে। সকাল ৮টায় ফরিদপুর নামে একটি ফেরি পাঁচটি লা’শবাহী অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে ছেড়ে যায়। এ সময় ফেরিতে অনেক লোক উঠে পড়ে।

 

Back to top button