আন্তর্জাতিক

দীর্ঘ ১৫ বছর কারাব’ন্দি থাকার পর সৌদি আলেমের ই’ন্তেকাল

দীর্ঘ ১৫ বছর কারাগারে ব’ন্দিজীবন কাটিয়ে পরপারে পাড়ি জমিয়েছেন সৌদি আরবের একজন ই’স’লা’মী শিক্ষাবিদ ও দায়ি। গত মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) ই’স’লা’মী চিন্তাবিদ ড. মু’সা বিন মুহাম্ম’দ আল করনি দীর্ঘদিন অ’সুস্থতায় ভুগে মা’রা যান। মৃ’ত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৬ বছর।

মানবাধিকার সংগঠন সানাদের সূত্রে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাঁর মৃ’ত্যুর খবর জানা যায়। অবশ্য সৌদি সরকারের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে কোনো প্রতিক্রিয়া জানানো হয়নি।সৌদির রাজনৈতিক ও নাগরিক অধিকার নিয়ে সোচ্চার যু’ক্তরাজ্যভিত্তিক মানবাধিকার সংগঠন সানাদ এক টুইট বার্তায় জানায়, সৌদির কোনো কারাগারে ড. করনির মৃ’ত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

টুইট বার্তায় আরো বলা হয়, ‘ড. করনি দীর্ঘদিন ধরে অ’সুস্থতায় ভুগছিলেন। বেশ কয়েক বছর ধরে শা’রীরিকভাবে তিনি খুবই অ’সুস্থ থাকলেও কারাগারে তার চিকিৎসায় চরম অবহেলা করা হয়। তা ছাড়া আ’ট’কের পর থেকে নানা ধরনের হ’য়’রানি, নি’পীড়ন ও দীর্ঘ সময় একাকিত্ব যাপন তাকে আরো অ’সুস্থ করে তোলে। কিন্তু কারা কর্তৃপক্ষ তার সুচিকিৎসার ব্যাপারে একেবারে উদাসীন ছিল।’

২০০৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে সৌদিতে মানবাধিকার সংগঠন প্রতিষ্ঠার দাবি জানানোর পর অন্য মানবাধিকার কর্মীদের সঙ্গে ড. করনিকেও আ’ট’ক করা হয়। তাদের বি’রু’দ্ধে সন্ত্রাস ও রাষ্ট্রবিরোধী কাজে সম্পৃক্ততার অ’ভিযোগে ২০ বছর কারাদ’ণ্ড ও পরবর্তী ২০ বছর বিদেশভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়। ২০১৮ সালের মে মাসে ড. করনি স্ট্রোক করেন। এরপর তাঁকে জেদ্দার একটি মানসিক হাসপাতা’লে নেওয়া হয়।

ড. মু’সা বিন মুহাম্ম’দ আল করনি সৌদি ই’স’লা’মী শিক্ষাবিদ। ১৯৫৪ সালে জাজান নামক এলাকায় জন্মগ্রহণ করেন তিনি। রিয়াদের বিখ্যাত শরিয়া কলেজে ই’স’লা’মী শরিয়া নিয়ে পড়াশোনা করেন। ম’ক্কার উম্মুল কুরা বিশ্ববিদ্যালয়ে উসুলুল ফিকাহ বিষয়ে পিএইচডি ডিগ্রি সম্পন্ন করেন।

তিনি ই’স’লা’মী বিশ্ববিদ্যালয় ম’দি’নার শরিয়া ও হাদিস বিভাগের অধ্যাপক ছিলেন। এ ছাড়া মুহাম্ম’দ বিন সাউদ বিশ্ববিদ্যালয় ও উম্মুল কুরা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা করেন। পা’কিস্তানের পেশোয়ার ইউনিভা’র্সিটিতেও শিক্ষকতা করেন। সেই সময় মু’সলিম ওয়ার্ল্ড লিগ ও ই’স’লা’মিক রিলিফ অর্গানাইজেশনের ই’স’লা’মী একাডেমি অব সায়েন্সের পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

Back to top button