জাতীয়

নাসিক নির্বাচন: না.গঞ্জবাসীকে প্রধানমন্ত্রীর সালাম পৌঁছে দিলেন নানক

প্রচারণার শেষ দিন নগরীর প্রা’ণকেন্দ্র ২নম্বর রেলগেট এলাকায় সমাবেশ ও গণমিছিলের মাধ্যমে বিশাল শোডাউন করেছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী।শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) বিকেল ৩টায় শুরু হওয়া এই সমাবেশে প্রধান অ’তিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও কেন্দ্রীয় নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সমন্বয়ক জাহাঙ্গীর কবির নানক।

বিশেষ অ’তিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুর রহমান, যুগ্ম-সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাসিম, নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ই’স’লা’ম বাবু প্রমুখ।আচরণবিধি অনুযায়ী, কোনো সংসদ সদস্য নির্বাচনী প্রচারণায় সরাসরি অংশগ্রহণ করতে পারবেন না বলে নির্বাচন কমিশনের বিধিনিষেধ থাকলেও এই জনসভায় তা ভঙ্গ করা হয়েছে বলে অ’ভিযোগ উঠেছে।

নারায়ণগঞ্জ-২ (আড়াইহাজার) আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ই’স’লা’ম বাবু তার নেতা-কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে মিছিল করে জনসভায় যোগ দিয়েছেন। এতে এই সংসদ সদস্য নির্বাচনী বিধিনিষেধ অমান্য করেছেন বলে অন্যান্য প্রার্থীরা অ’ভিযোগ তুলেছেন।পথসভাকে কেন্দ্র করে দুপুর ১২টা থেকেই নগরীতে উৎসবমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়। বিভিন্ন এলাকা থেকে খণ্ড খণ্ড মিছিল বের হয়। মিছিলে মিছিলে সরগরম হয়ে উঠে নারায়ণগঞ্জ শহর। দুপুর ৩টায় সভা’র আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয়। একে একে কেন্দ্রীয় নেতারা মঞ্চে এসে উপস্থিত হন।

নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী ও সাবেক মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অ’তিথি জাহাঙ্গীর কবির নানক শ্লোগান দিয়ে বলেন, আগামী ১৬ তারিখ নির্বাচনে জিতবে কারা? নৌকা, নৌকা এবং নৌকা। ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীকে নেত্রী মনোনয়ন দিয়েছেন। আম’রা ওই বোর্ডে সদস্য ছিলাম। নেত্রী বলেছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচন নিয়ে কোনো আলোচনা হবে না। আমা’র প্রার্থী হলো আইভী এবং আইভী। সেই আইভীকে নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি। এই আইভী হঠাৎ করে আসা কোনো মানুষ নয়। অ’গ্নি পরীক্ষায় পরীক্ষিত সেলিনা হায়াৎ আইভী। এই নারায়ণগঞ্জে সন্ত্রাস অশান্তির বি’রু’দ্ধে নির্ভিকভাবে দাঁড়িয়েছে কে, ডা. সেলিনা হায়াত আইভী। এই নারায়ণগঞ্জের উন্নয়নের জন্য আইভীকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করুন।

শেখ হাসিনা আপনাদের কাছে সালাম পৌঁছে দিয়ে বলেছেন, যাও তোম’রা বলে আসো আমা’র পক্ষ থেকে আইভী যদি মেয়র নির্বাচিত হয় তাহলে মহানগরের সমস্ত উন্নয়নের দায়িত্ব আমি নিয়ে নিলাম।সকলের উদ্দেশে নানক বলেন, আপনারা ১৬ তারিখ ভোট দেবেন এবং ভোট দেওয়াবেন। কেউ কেউ অশান্তি সৃষ্টি করার চেষ্টা করবে। তবে আম’রা প্রশাসনকে গতকাল বলে এসেছি এই নারায়ণগঞ্জে কোনোপ্রকার বিশৃঙ্খলা হতে পারবে না। কোনো স’ন্ত্রা’সীদের উঁকিঝুঁ’কিও আম’রা মানবো না। আপনারা শান্তি চান। বক্তব্যের শেষে আবার নৌকার পক্ষে শ্লোগান দেন নানক।

তিনি বলেন, এবার লক্ষ ভোটে জিতবে নৌকা।বিশেষ অ’তিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রহমান বলেন, আইভী সাহসী না’রী হিসেবে ইতোমধ্যে এই নারায়ণগঞ্জে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন। যিনি আজ সন্ত্রাসবিরোধী সংগ্রামে নেমেছেন। তিনি নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনকে বৃহত্তর নগরী হিসেবে গড়তে চান। তৃতীয়বারের মতো তিনি আমাদের কাছে ভোটের জন্য এসেছেন। আমাদের নেত্রী বলেছেন তুমি নারায়ণগঞ্জবাসীকে বলে দাও আমি আমা’র আইভীকে নারায়ণগঞ্জে পাঠালাম। তোম’রা আইভীকে বিজয়ী করো। নারায়ণগঞ্জের সব উন্নয়নের দায়িত্ব আমি নিজে বহন করবো।

তিনি বলেন, নারায়ণগঞ্জ জনতার স্রোতে ভেসে গেছে। এ সমাবেশ দেখে মনে হয় আগামী ১৬ জানুয়ারির নির্বাচনে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত হয়েছে। আম’রা ১৬ তারিখ ফলাফল নিয়ে গণভবনে যাবো। সেদিন আমা’র নেত্রী এ শহরের মানুষকে অ’ভিনন্দন জানাবে। আর কোনো কি’শোর যেন হ’ত্যার শিকার না হয়। আর যেন নারায়ণগঞ্জে সন্ত্রাসের বাঁশি বেজে না ওঠে। আর যেন গডফাদারদের জন্ম না হয় সেজন্য আইভী জীবন দিতে প্রস্তুত আছেন। তিনি অ’পশক্তিদের নারায়ণগঞ্জে প্রতিষ্ঠিত হতে দেবেন না। নারায়ণগঞ্জের জনতা আজকে জেগে উঠেছে। শহরে উত্তাল ঢেউ উঠেছে। আইভীকে ঠেকানোর মতো কোনো শক্তি নারায়ণগঞ্জে নেই বলেও তিনি ঘোষণা দেন।

আইভীর প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী তৈমূর আলমকে ইঙ্গিত করে আওয়ামী লীগ নেতা আবদুর রহমান বলেন, আমাদের একজন প্রার্থী আছেন, তার মা’র্কা হাতি। প্রথমে বললেন আমি বিএনপির প্রার্থী। পরে বললেন তিনি জনতার প্রার্থী। আগামী ১৬ জানুয়ারি হাতি বনে ফিরে যাবে এবং জনতার বিজয় হবে।সমাবেশের সভাপতি নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, নারায়ণগঞ্জের মানুষকে ভালোবেসে আস্থা রেখে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমা’র হাতে নৌকা তুলে দিয়েছেন। সেজন্য কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। কেন্দ্রীয় নেতাদের প্রতি কৃতজ্ঞ তারা মানুষের ঘরে ঘরে গিয়ে দেখেছেন, এই নারায়ণগঞ্জের মানুষের মনের অবস্থান বুঝতে পেরেছেন। আপনারা এসেছেন জেনে গেলেন দেখে গেলেন, এই নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের ঘাঁটি, নৌকার ঘাটি। আওয়ামী লীগের জন্ম হয়েছিল পাইকপাড়ার মিউচুয়াল ক্লাবে। এই নারায়ণগঞ্জ ঐতিহ্য ইতিহাসে সমৃদ্ধ শহর। এই শহরকে কালে ভদ্রে দূষিত করা হয়েছে। বিষাক্ত করা হয়েছে। নৌকা মানেই উন্নয়ন। নৌকা মানেই সন্ত্রাসের বি’রু’দ্ধে, চাঁদাবাজের বি’রু’দ্ধে। আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট্ট একটা কর্মী। আমা’র বাবা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের কর্মী ছিলেন, মাটি ও মানুষের সেবা করেছেন। আবার বাবা আমাকে শিক্ষা দিয়েছেন, কিভাবে মানুষের কাছে যেতে হয়। তিনি আমাকে বলেছিলেন, তুমি মানুষের কাছে যাও তোমা’র কাঙ্ক্ষিত জিনিস পেয়ে যাবা। মানুষের মাঝে আল্লাহ বিরাজমান। আমি আমা’র বাবার ডাকে সাড়া দিয়ে আপনাদের কাছে এসেছি। দীর্ঘ ১৮টি বছর আপনাদের কল্যাণে কাজ করেছি।

তিনি বলেন, ‘২০০৩ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যখন বিরোধী দলীয় নেত্রী ছিলেন আমাকে সম’র্থন দিয়েছিলেন। এই দুঃসময়ে নারায়ণগঞ্জে কেউ ছিল না, পালিয়ে ছিল অনেকে। আমি নির্বাচিত হয়েছি। মানুষের জন্য কাজ করেছি, জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্য কাজ করেছি। ২০১১ সালে নির্বাচন করেছি, লক্ষাধিক ভোটে পরাজিত করেছেন আপনারা নারায়ণগঞ্জবাসী। ২০১৬ সালে নেত্রী আমাকে নৌকা দিয়েছিলেন আপনারা ৮৪ হাজার ভোটে পরাজিত করেছিলেন ধানের শীষকে। আবারও আপনাদের দরবারে এসেছি শান্তির বার্তা নিয়ে। অন্যায়ের বি’রু’দ্ধে অ’ত্যাচার অবিচার সন্ত্রাস খু’নের বি’রু’দ্ধে।’

বিজয়ের আত্মবিশ্বা’স নিয়ে আইভী বলেন, ‘নিশ্চয়ই এই নৌকা আইভীর নৌকা, বিজয়ের নৌকা, ৭১ এর নৌকা, বঙ্গবন্ধুর নৌকা, শেখ হাসিনার নৌকা, মা’ওলা আলীর নৌকা। এই নৌকাকে রোধ করার ক্ষমতা কারো নাই, কারো নাই, কারো নাই। জননেত্রী শেখ হাসিনা যে টাকা আমাকে দিয়েছেন বিগত ৫ বছরে নারায়ণগঞ্জের আনাচে কানাচে উন্নয়ন হয়েছে। নিশ্চয়ই এই ধারাবাহিকতা আপনারা বজায় রাখবেন। শহরকে সুন্দর নগরী করার জন্য, শীতলক্ষ্যা ব্রিজ করার জন্য, শি’শুবান্ধব নগরী করার জন্য নিশ্চয়ই আপনারা আমাকে ভোট দেবেন। প্রতিটি ওয়ার্ডে ঘুরে ঘুরে দেখেছি মাটি ও মানুষ বলছে সর্বত্রই নৌকার জোয়ার। এই নৌকা যাবেই যাবে ইনশাআল্লাহ। ১৬ তারিখ আবারো যাবে নৌকা।’

সমাবেশ শেষে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর নেতৃত্বে একটি বিশাল গণমিছিল শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

Back to top button