জাতীয়

ট্রেনের ধাক্কায় মা’রা গেল কোরআনে হাফেজা মিম

যে জন্মেছে সে ম’রবেই। যার সূচনা হয়েছে তার সমাপ্তি ঘটবেই। এটা খোদা পাকের শাশ্বত চিরন্তন বিধান। কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজে’লার বিজয়পুর রেলক্রসিংয়ে ট্রেনের ধাক্কায় নি’হ’ত তিন শি’শুর মধ্যে একজন মিম (১২)। সে উপজে’লার দুর্গাপুর গ্রামের মাসুম মিয়ার বড় মে’য়ে রীপা সুলতানা মীম। তার বাবা মানসিক রোগী হওয়ায় ছে’লে মে’য়েদের মানুষ করতে মা রুপা বেগম কুমিল্লা ইপিজেডে চাকরি করেন।

মা রূপা বিলাপ করতে করতে বলেন, ‘আল্লাহগো কোরআনে হাফেজ আমা’র মিমকে কেন নিয়া গেলাগো।’ট্রেনের ধাক্কায় মিমের নি’হ’ত হওয়ার কথা শুনে পাগলের মত ছুটে ঘটনাস্থলে আসেন মিমের মা রুপা। মে’য়ের লা’শ সামনে রেখে তার গগণবিধারী চি’ৎ’কারে আকাশ বাতাস ভা’রী হয়ে উঠে।

তিনি বিলাপ করতে করতে বলেন, মিমের বাবা মানসিক রোগী হওয়ায় মিম ও তার ভাই ফরহাদের খাবার যোগাতে আমি ইপিজেডে কাজ করি। বুক চাপরিয়ে মিমের মা রুপা চি’ৎ’কার করে বলেন, ‘এই মে’য়ে কে আমি কত ক’ষ্ট করে বড় করেছি। আমা’র মে’য়ে কোরানে হাফেজা ছিল। আল্লাহ আমা’র বুকের ধন কাই’রা নিলো গো’।

 

Back to top button