আন্তর্জাতিক

খাবারের জন্য সন্তানের কাছে ভিক্ষা বাবার!

খাবারের জন্য সন্তানদের কাছে ভিক্ষা করতে হবে বাবাকে! সমাজের এ কী হাল হল? বিচারপতির আসনে বসে কোনও দিন এটাও শুনতে হবে ভাবেননি! বাবা-মে’য়ে সংক্রান্ত এক মা’ম’লার শুনানিতে বিস্ময়ের সুরে এমনটাই বললেন কলকাতা হাই কোর্টের বিচারপতি রাজাশেখর মান্থা। অ’ভিযু’ক্ত মে’য়ের আইনজীবীর উদ্দেশে তাঁর মন্তব্য, যে বাবা সন্তানদের বড় করে তুলল, দেখভাল করল, এখন তাঁর মুখেই অন্ন তুলে দিতে অস্বীকার করছেন সন্তানরা। এই আসনে বসে সমাজের কাছ থেকে এমনও আশা করতে হবে ভাবিনি।

পূর্ব মেদিনীপুরের তমলুকের বাসিন্দা ৮৫ বছরের বৃদ্ধ তিনকড়ি মিত্র। স্ত্রী’ ও পুত্রকে হারিয়ে এখন তাঁর ভরসা দুই মে’য়ে। তিনকড়ির বাড়িতেই থাকতেন বিবাহিত দুই কন্যা শিপ্রা সাউ এবং শম্পা দত্ত। বাবাও উপহার হিসাবে নিজের বসত ভিটা মে’য়েদের দিয়ে দেন। কিন্তু সেই মে’য়েরাই এখন বাড়ি ছাড়া করলেন বাবাকে। অসহায় অবস্থায় তিনকড়ির ঠাঁই মেলে বন্ধুর বাড়িতে। ফের কবে ফিরে পাবেন নিজের বাসস্থান? নিজের ভিটাতেই কি কা’টাতে পারবেন জীবনের শেষ দিন গুলো? এমনই সব প্রশ্নের উত্তর পেতে উচ্চ আ’দা’লতের দ্বারস্থ হন তিনি। আ’দা’লতে তাঁর আবেদন, বাড়ি মে’য়েদের নামে লিখে দেয়ার পর থেকেই অ’ত্যাচার শুরু করেছেন তাঁরা। বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছেন বাবাকে। ফের নিজের বাড়িতে ফেরার ব্যবস্থা করবে হাই কোর্ট এই আশায় হা’ই’কো’র্টের দ্বারস্ত হয়ছেন তিনকড়ি মিত্র।

এই মা’ম’লায় রাজ্যের আইনজীবী জানান, সমস্যা সমাধানে পু’লিশ বার বার চেষ্টা করলেও কাজ হয়নি। কোনও কাজ হয়নি! এই যু’ক্তি শুনে বিচারপতি মান্থা বলেন, এক জন প্রবীণ নাগরিককে তাঁর বাসস্থানে ফিরিয়ে দেওয়া আ’দা’লতের কর্তব্য। তা না হলে চুপ করে থাকা সম্ভব নয়। বিচারপতির মুখে এমন মন্তব্য শুনে মে’য়েদের আইনজীবী জানান, বাড়িতে তাঁরা বাবাকে থাকতে দিলেও, খাবার দিতে পারবেন না। নিজের অন্নসংস্থান নিজেকেই করতে হবে। আরও বলা হয়, বাইরের কাউকে বাবার সঙ্গে দেখা করতে দেওয়া হবে না। এমনকি তাঁর ঘনিষ্ঠ বন্ধুকেও নন।

বাবাকে ফেরানো নিয়ে মে’য়েদের এই সব শর্ত শুনে চ’মকে ওঠেন এজলাসের অনেকেই। তাদের এমন শর্তে বিচারপতি বলেন, কেন এ সব অ’প্রয়োজনীয় কথা বলছেন। যে বাবা সন্তানকে বড় করে তুলেছেন। সেই বাবাই এখন আ’দা’লতে দাঁড়িয়ে বলতে হচ্ছে সন্তানরা অ’ত্যাচার করছে! এটা উচিত নয়। এমনটা করবেন না। বাবার দেখভাল করুন। দেখবেন আপনাদের ভাল হবে। এর পরেই কড়া অবস্থান নেয় হাই কোর্ট। আ’দা’লতের নির্দেশ, তিনকড়িকে বাড়ি ফেরাতে অবিলম্বে ব্যবস্থা করতে হবে তমলুক থা’নার পু’লিশকে। এবং তিনি যে সেখানে শান্তিতে রয়েছেন, তা-ও নিশ্চিত করতে হবে। আ’দা’লত আরও জানায়, ‘অ’ত্যাচারিত’ ওই বাবার উপর লক্ষ্য রাখবে পু’লিশ।

Back to top button