জাতীয়

ময়লাযু’ক্ত পানি মাড়িয়েই জুম্মা’র নামাজ আদায়, দূর্ভোগে কয়েক লাখ মানুষ

সাভা’রের আশুলিয়ার ইয়ারপুর ইউনিয়নের শুধু রাস্তাঘাটই নয়, পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থাও লাজুক।এমনই একটি রাস্তা জামগড়া সরকারি প্রাই’মা’রি স্কুল সংলগ্ন এই রাস্তাটি বারো মাসই স্যুয়ারেজ ও ড্রেনের ময়লা পানিতে তলিয়ে থাকে। সেই পানি মাড়িয়েই মু’সুল্লিদের নামাজ আদায় হয়েছে এবং এলাকাবাসীদের চলাচলই করতে হয় এই রাস্তাটি দিয়ে। তবে সরকারের বিভিন্ন দফতরে একাধিকবার অ’ভিযোগ করেও কোনও প্রতিকার পাচ্ছেন না এলাকাবাসী।

শুক্রবার (১২ মা’র্চ) দুপুরে সরেজমিনে স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, দীর্ঘ এয়েক বছর ধরেই রাস্তার এ অবস্থা। ইয়ারপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের জামগড়া সরকারি প্রাই’মা’রি স্কুল, কয়েকটি মাদ্রাসা, কেন্দ্রীয় ম’স’জিদসহ অসংখ্য কলকারখানার কয়েক লক্ষ মানুষের বসবাস। কয়েক বছর ধরেই স্যুয়ারেজ লাইন নষ্ট হয়ে ময়লা পানিতে তলিয়ে আছে রাস্তাটি। ময়লা ও দুর্গন্ধময় পানি পাড়িয়ে ম’স’জিদে গিয়ে নামাজ পড়তে মু’সল্লিদের অনেক অ’সুবিধা হচ্ছে।

তবে সবচেয়ে বেশি সমস্যা হচ্ছে শিক্ষার্থী ও চাকরিজীবীদের। এ ময়লা পানি মাড়িয়ে প্রতিনিয়ত মু’সুল্লিদের নামাজ আদায় করতে হচ্ছে। একই রাস্তাটি প্রায় ২ কিলোমিটার পর্যন্ত পানির নিচে তলিয়ে। এই রাস্তাটি দিয়েই বাইপাস হয়ে কাশিমপুর, গাজীপুরে অসংখ্য যানবাহনের চলাচল।

এই ময়লাযু’ক্ত পানি মাড়িয়ে নামাজ আদায়কারী মোঃ আবু হানিফ নামে এক মু’সুল্লি বলেন, ‘এই নোংরা পানি ছিট’কে আমা’র শরীরে লাগায় আমা’র দ্বিতীয়বার নামাজের অযু করে ফরজ নামাজ আদায় করতে অনেক দেরি হয়ে গেছে। এই ময়লা যু’ক্তপানির জন্য আজ অনেক মু’সুল্লি নামাজ আদায় করতে পারে নাই। এই ময়লা পানিতে দীর্ঘক্ষণ দাড়িয়ে থেকে লাইন ধরে ম’স’জিদের ভিতরে প্রবেশের সময় এই পানি ছিট’কে আমাদের শরীরে লাগায় আবার তাদের অযু করতে হয়েছে। এই অযু করতে গিয়ে নামাজ শেষ হয়ে গেছে। তাই এই এলাকার চেয়ারম্যান – মেম্বারদের কাছে অনুরোধ রইলো দ্রুত সময়ের মধ্যে ড্রেনেজ ব্যবস্থা ও পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা করে সাধারণ মানুষ যেনো এই দূর্ভোগ থেকে মুক্তি পায়।

ইয়ারপুর ১নং ওয়ার্ডের বর্তমান মেম্বার হালিম মৃধা বিডি২৪লাইভ ডট’কম কে বলেন, বেশ কয়েক বছর আগে এই রাস্তাটির নিচ দিয়ে একটি স্যুয়ারেজ লাইন নির্মাণ করা হয়েছিলো। নয়নজুলি খালটি দখলটি দীর্ঘদিন ধরে ভূমিদস্যুরা দখল করে অ’বৈ’ধ স্থাপনা তৈরি করার ফলে স্যুয়ারেজের পানি ও ময়লা নিষ্কাশনের পথ বন্ধ হয়ে গেছে। তাই আমি উপজে’লা চেয়ারম্যান ও উপজে’লা নির্বাহী কর্মক’র্তাসহ ইয়ারপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের দৃষ্টি আকর্ষণ দৃষ্টি আকর্ষণ করছি যেনো দ্রুত সময়ের মধ্যে এ সমস্যা সমাধান করা হয়।

এব্যাপারে সাভা’র উপজে’লার প্রকৌশলী সালেহ হাসান প্রামানিক বিডি২৪ লাইভ ডট’কম কে জানান, যে রাস্তাগুলো আমাদের এলজিআরডির গেজেট ভুক্ত আম’রা সেই রাস্তাগুলোই কিন্তু আম’রা পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে উন্নয়ন করতেছি।আর যে রাস্তাগুলো আমাদের এলজিআরডির গেজেট ভুক্ত না সেখানকার যারা জনপ্রতিনিধি আছে তারা আমাদের ট্রেয়ার আকারে দেই তখন আম’রা লোকাল ফান্ড,ইউনিয়নের যে ফান্ড থাকে সেগুলোর মাধ্যমে উন্নয়ন করি। উপজে’লা পরিষদের চেয়ারম্যান ও স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে এই সমস্যার সমাধান করা হবে।

Back to top button