রাজনীতি

খালেদা জিয়ার বিদেশ যাবার আবেদন করে লাভ হবে না

আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিদেশে যাবার আবেদন করে কোনো লাভ হবে না। এ ক্ষেত্রে আইনে যা আছে, সেটিই হবে।শুক্রবার (১১ মা’র্চ) বিকেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজে’লার বায়েক ইউনিয়নের চারুয়া মাদ্রাসা মাঠে আয়োজিত এক জনসভায় প্রধান অ’তিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মহানুভবতা দেখিয়ে তার বিশেষ ক্ষমতাবলে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়েছিলেন। তাকে দুটি শর্ত দেওয়া হয়েছিল। এক হচ্ছে- তিনি বাসায় থেকেই চিকিৎসা নেবেন। আর দুই- তিনি বিদেশ যেতে পারবেন না। তিনি এই শর্তে মুক্ত হলেন। তিনি বাসায় আসলেন। বাসায় থাকলেন। কারো সাথে দেখা করলেন না। তারপর উনার ক’রো’না হলো। তিনবার তিনি হাসপাতা’লে গেলেন। তাকে হাসপাতা’লে যেতে সরকার বাধা দেয়নি।

মন্ত্রী বলেন, আম’রা বাংলাদেশের মানুষ আমাদের হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নিয়ে বেঁচে আছি। তিনিও বেঁচে আছেন। এখন বেগম খালেদা জিয়া বিদেশে যাওয়ার কি দরকার? তবে উনাকে যারা বিদেশে পাঠাতে চায়, তিনি বিদেশ গেলে তারা ষড়যন্ত্রে মাস্টার হবেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের মানুষকে অ’পমান করে বিদেশে দাসত্ব গ্রহণ করে তারা আওয়ামী লীগ সরকারকে, জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারকে হারাতে চায়। বাংলাদেশের জনগণ বেঁচে থাকতে সেটা কখন হতে দেবে না। আর আইনের বাইরে তার চিকিৎসা নিয়ে কিছু করা যাবে না। উনারা একবার নয়, একশ বার আবেদন করে কোন লাভ হবে না। আইনে যা আছে, তাই হবে। এর কোনো ব্যত্যয় হবে না।

মন্ত্রী বলেন, আমাদের উন্নয়নের একাত্তরের পরাজিত শক্তিরা মোটেও খুশি না। আম’রা প্রত্যেকেই যু’দ্ধ দেখেছি। আম’রা যু’দ্ধ করে র’ক্ত দিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে বাংলাদেশ স্বাধীন করেছি। আম’রা যোদ্ধা। আমাদের বি’রু’দ্ধে ষড়যন্ত্র করে বিদেশের মাটিতে কোনো লাভ হবে না।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল স’ম্প’র্কে মন্ত্রী বলেন, তিনি আ’মেরিকায় চিঠি লিখেছেন, বাংলাদেশের মানুষ যদি এত বড়লোক হয়ে যায় তোমাদের স্বার্থ রক্ষা হবে না। তিনি একবারও বলেন নাই যে, এই সরকার আমলে বাংলাদেশের মানুষের ক’ষ্ট আছে। তিনি বলেছেন আ’মেরিকা স্বার্থ রক্ষা হবে। মন্ত্রী মির্জা ফখরুলের কঠোর সমালোচনা করে বলেন, তিনি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের মহাসচিব হতে গেলেন কেন? তিনি আ’মেরিকা জাতীয়তাবাদী দলের মহাসচিব হলেই পারতেন।

এ সময় জনগণকে উদ্দেশ্য করে মন্ত্রী বলেন, এসব কথা, এসব ষড়যন্ত্র, এসব দাসত্ব বাংলাদেশের মানুষের গ্রহণ করবে না। আপনাদেরকে বলতে চাই ষড়যন্ত্র অব্যাহত আছে। আপনারা সজাগ থাকবেন। আপনারা এই ষড়যন্ত্রের জবাব দেবেন।সভায় অন্যানের মধ্যে কসবা উপজে’লা পরিষদের চেয়ারম্যান রাশেদুল কাউছার ভূইয়া জীবন, ভাইস চেয়ারম্যান মো. মনির হোসেন, কসবা পৌরসভা’র চেয়ারম্যান এমজি হাক্কানী,পৌর সভা’র সাবেক মেয়র এম’রান উদ্দিন জুয়েলসহ দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

Back to top button