বিনোদন

দুই মাস বয়সী শি’শুকে সোনার নাকফুল উপহার দিলেন ‘মা’ পরীমনি

‘আমাদের নুরুল হুদা’র মতো জনপ্রিয় অনেক ধারাবাহিক ও একক নাট’ক নির্মাণ করেছেন অরণ্য আনোয়ার। টিভি নাট’ক নির্মাণে তাঁর তিন দশকের অ’ভিজ্ঞতা। সেই অরণ্য আনোয়ার প্রথমবার নির্মাণ করছেন পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘মা’। ছবিটির প্রধান চরিত্রে অ’ভিনয় করছেন পরীমনি।

এই ছবির শুটিংয়ে পরীমনি অনন্য এক দৃষ্টান্ত দেখালেন। ছবিতে তার সন্তানের চরিত্রে অ’ভিনয় করেছে একটি শি’শু। দুই মাস বয়সী শি’শুটির বাবা একজন অটো রিকশা চালক, মা গৃহিনী। সেই দুই মাসের শি’শুটিতে ‘মা’ পরীমনি উপহার দিলেন একটি সোনার নাকফুল।
গত বছর অ’ভিনেতা শরিফুল রাজকে বিয়ে করেছেন পরীমনি। বিয়ের সময় রাজ অন্য অনেক উপহারের পাশাপাশি পরীমনিকে দিয়েছিলেন দুটি নাকফুল, সেখান থেকে একটি পরী উপহার দিলেন শি’শুটিকে।
গতকাল রাতে পরীমনির মমতামাখা মনের খবর জানিয়ে ফেসবুকে একটি পোস্ট দিয়েছেন পরিচালক অরণ্য আনোয়ার। সেখানে এ বিষয়ে বিস্তারিত লিখেছেন তিনি।‘মা’ ছবিতে চুক্তিবদ্ধ করানোর পর পরীমনিকে মিষ্টিমুখ করাচ্ছেন অরণ্য আনোয়ার। ছবি : সংগৃহীত।

অরণ্য আনোয়ার লিখেন, ‌“দুপুর তিনটার দিকে পরীমনির শ্যুটিং প্যাকাপ করে আমি টিমের সঙ্গে খেতে বসলাম। এ সময় কে একজন এসে বলল, পরী আপু আপনাকে ডাকছেন। সেটের মধ্যে একটা রুমে পরী তখন রাজের সঙ্গে ঢাকায় ফিরে যাবার আয়োজনে ব্যস্ত। আমাকে দেখে বলল, ‘ভাইয়া, আমা’র সন্তানের চরিত্রে অ’ভিনয় করা শি’শুটাকে একটা কোন ভালো গিফট করা উচিত। ’ ওর কথা শেষ হবার আগেই আমি উত্তর দিলাম, ওটা নিয়ে তোমা’র চিন্তা করতে হবে না। আমি ব্যবস্থা করছি। বলেই চলে এলাম। আমা’র মা’থায় তখন ডে লাইটে একটা দৃশ্য শেষ করার চিন্তা। আর আমি পেশাদার মানুষ, আমা’র প্রোডাকশন আগেই শি’শুটির সম্মানি বাবদ একটা নির্দিষ্ট অঙ্কের খাম ওর মায়ের হাতে তুলে দিয়েছে। সেটাকেই আমি যথেষ্ট বলে মনে করি।

খাওয়া শেষে উঠোনে সেই দৃশ্যের শ্যুটিং আয়োজন করছি। এসময় আবার ঘরের ভেতর থেকে পরীর ডাক এলো। আমি ব্যস্ত। তবু ভাবলাম ওকে বিদায়টা দিয়ে আসি। ঘরে ঢুকতেই দেখলাম রাজ আর পরীর হাতে একটা সোনার রিং জাতীয় কোনো কিছুর একটা ছোট বক্স। পাশে বসা সেই শি’শুটির মা। পরী বললো, ‘ভাইয়া আমা’র বিয়ের সময় রাজের উপহার দেয়া দুটো নাকফুলের একটা হচ্ছে এটা। আমি বাবুটাকে আপনার হাত দিয়ে এই নাকফুল উপহার দিতে চাই। ’ আমি হতভম্ব। কী বলে এই মে’য়ে ?

পরী আবার বলল, ‘গত কটা দিন ওর সাথে মায়ের চরিত্রে অ’ভিনয় করে ওর প্রতি আমা’র মায়া জমে গেছে। ’
আমি আবেগে আপ্লুত হলাম। শ্রদ্ধায় নত হলাম পরীর কাছে। বললাম, তুমি সত্যিই একটা পাগল, ওকে! আসো তাহলে উপহার দেয়ার ছবিটা আম’রা তুলি একসাথে। রাজ বলল, ‘নিরব ভালোবাসাটা নিরবই থাকুক ভাই। ছবি তোলার দরকার নাই। ’
আম’রা ছবি তুললাম না। কিন্তু পরীর এ আবেগের কথা আমি লিখব না, মানুষকে জানাব না এতোটা চাপা স্বভাবের মানুষ যে আমি নই।দুই মাস বয়সী শি’শুটির বাবা একজন অটো রিকশা চালক। মা গৃহিনী। স্যালুট পরীমনি। তোমাকে স্যালুট। শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা। ”

সন্তানসম্ভবা হওয়ার ঘোষণা দেওয়ার পর নিজের ছবির নায়িকাকে শুভেচ্ছা জানাতে পরীমনির বাসায় ফুল হাতে গিয়েছিলেন পরিচালক অরণ্য আনোয়ার। ছবি : সংগৃহীত।

একটি ম’র্মা’ন্তি’ক সত্য ঘটনা থেকে অনুপ্রা’ণিত হয়ে ‘মা’ ছবির চিত্রনাট্য তৈরি করেছেন অরণ্য আনোয়ার নিজেই। ১৯৭১ সালে মৃ’ত ঘোষিত সাত মাস বয়সী এক সন্তানকে নিয়ে অসহায় মায়ের আবেগের গল্প নিয়ে এই ছবি। গত বছর ২৯ সেপ্টেম্বর ছবিটিতে চুক্তিবদ্ধ হন পরীমনি। এ বছরের শুরুতে ছবির শুটিং শুরু করেন অরণ্য আনোয়ার। এরমধ্যেই সন্তানসম্ভবা হয়ে অ’ভিনয় থেকে বিরতি নেওয়ার কথা বলেছিলেন পরী। তবে এই ছবিটির শুটিং করছেন অ’ভিনেত্রী।

 

 

Back to top button