জাতীয়

বিশ্বজয়ী হাফেজকে নিয়ে গর্বিত ও উচ্ছ্বসিত হয়ে গায়ক আসিফের স্ট্যাটাস

১৯০ জন প্রতিযোগীকে পেছনে ফেলে আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতার সারা’বি’শ্বে প্রথম হয়েছে বাংলাদেশের হাফেজ সালেহ আহমাদ তাকরীম।মাত্র ১৩ বছরের শি’শুর বিশ্বজয়ে গর্বিত ও উচ্ছ্বসিত বাংলা গানের যুবরাজ আসিফ আকবর।

তাকরীম এই সাফল্যে নিজের ভালো লাগা এবং ভালোবাসার কথা আসিফ শেয়ার করেছেন নিজের ফেসবুক পেজে। পোস্ট করেছেন হাফেজ সালেহ আহমাদ তাকরীমের একটি ছবি।পোস্টটি ফেভা’রিটের তালিকায় জমা রেখেছেন এ গায়ক।

আসিফ লিখেছেন, ‘বিশ্বমঞ্চে এই বাংলাদেশি কি’শোর হাফেজের অভাবনীয় সফলতায় আমাদের গর্ব করা উচিত। আমি খবরটা শুনে অনেক আনন্দিত হয়েছি। সব সেক্টরে বিশ্ববিজেতা হয়ে উঠুক আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্ম। অনেক শুভকা’মনা রইল। হাফেজ তাকরীমের উত্তরোত্তর সফলতা কা’মনা করি। ভালবাসা অবিরাম…’।

তাকরীমের প্রথম স্থান অর্জন নিয়ে ভক্ত-অনুরাগীদে তথ্যও দিয়েছেন আসিফ আকবর।তিনি লিখেছেন, ই’রানের তেহরানে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতার ৩৮তম আসরে সারা’বি’শ্বে প্রথম স্থান অর্জন করেছেন বাংলাদেশের প্রতিযোগী হাফেজ সালেহ আহমাদ তাকরীম। হাফেজ তাকরীম রাজধানীর মিরপুরের মা’রকাযু ফয়জিল কুরআন আল ই’স’লা’মী ঢাকার শিক্ষার্থী। হাফেজ তাকরীমের পিতা হাফেজ আব্দুর রহমান একজন মাদরাসা শিক্ষক ও মা গৃহিণী। তার গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইল জে’লার নাগরপুর উপজে’লার ভাদরায়।

ছে’লের এই বিশ্বজয়ের কৃতিত্বে হাফেজ আব্দুর রহমান শনিবার যুগান্তরকে বলেন, ‘আমাদের বাড়ি সিরাজগঞ্জে ছিল। নদীতে বাড়ি-জমি ভে’ঙে গেলে টাঙ্গাইলের বাড়ি করি। তবে তাকরীম আমা’র সঙ্গে সাভা’রে থাকত। সেখানে আমা’র তত্ত্বাবধানেই সে হাফেজ হয়। কুরআনের আয়াত অন্তরে গেঁথে নেয় খুব সহ’জেই। মাত্র সাড়ে ৯ বছর বয়সে সে সম্পূর্ণ কুরআন মুখস্ত করে ফেলে। পরে তাকে মিরপুরের মা’রকাযু ফয়জিল কুরআন আল ই’স’লা’মী মাদ্রাসায় ভর্তি করি। সেখানেও সে সাফল্যের সঙ্গে সব পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হচ্ছে। ভবিষ্যতে আমি তাকে একজন দীনদার আলেম হিসেবে তৈরি করতে চাই, যাতে ই’স’লা’মের খেদমত করতে পারে সঠিকভাবে। এখন সে কিতাব বিভাগে পড়াশোনা করছে।’

Back to top button