জাতীয়

শ্রেণিকক্ষে পুরোদমে পাঠদান শুরু

ক’রো’না ভাই’রাসের সংক্রমণ কমে যাওয়ায় আজ মঙ্গলবার (১৫ মা’র্চ) থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শ্রেণিকক্ষে পুরোদমে পাঠদান শুরু হয়েছে। দুই বছর পর এদিন থেকে প্রাক-প্রাথমিকেও শ্রেণিকক্ষে ক্লাস শুরু। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার প্রথম দিন সকাল থেকে ক্যাম্পাসে আসতে শুরু করেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। দীর্ঘদিন পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলায় উচ্ছ্বসিত শিক্ষার্থীরা। একই সঙ্গে খুশি অ’ভিভাবকরা। কারণ দীর্ঘদিন স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকায় হাঁপিয়ে ওঠেন শিক্ষার্থী ও অ’ভিভাবকরা।

গতকাল সোমবার (১৪ মা’র্চ) রাতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ক’রো’নার বিস্তার কমে যাওয়ায় পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে শ্রেণিকক্ষে নিয়মিত পাঠদান ১৫ মা’র্চ থেকে অব্যাহত থাকবে।

যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদনক্রমে এ আদেশ জারি করা হয়েছে। এটি সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে বাস্তবায়ন করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনার প্রেক্ষিতে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সেটি বাস্তবায়নে নির্দেশক্রমে অনুরোধ জানিয়ে আলাদা একটি বি’জ্ঞ’প্তি জারি করা হয়েছে। দীর্ঘ দুই বছর পর ফের স্বাভাবিক হচ্ছে স্কুল-কলেজের পাঠদান কার্যক্রম। এজন্য রাজধানীর শীর্ষ পর্যায়ের প্রতিষ্ঠানগুলোতে নানা ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। কোথাও কোথাও নতুন করে ক্লাসরুমসহ ক্যাম্পাসের ভেতরে পরিচ্ছন্ন কাজ কাজও করেছে। ধাপে ধাপে শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে প্রবেশ ও বের করার প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

ক’রো’নাভাই’রাসের সংক্রমণের পর ২০২০ সালের ১৭ মা’র্চ থেকে দেশের সব স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এরপর অনলাইনে চলতে থাকে সব শিক্ষাকার্যক্রম। কিন্তু দীর্ঘদিন স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকায় হাঁপিয়ে ওঠেন শিক্ষার্থী ও অ’ভিভাবকরা। এরপর বিভিন্ন সময় স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়ার দাবি ওঠে। পরিস্থিতি বিবেচনায় গত বছরের ১২ সেপ্টেম্বর সীমিত পরিসরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হয়। কিন্তু ক’রো’না সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় দ্বিতীয় দফায় ২১ জানুয়ারি ফের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় এক মাস পর ২২ ফেব্রুয়ারি শুধু মাধ্যমিক পর্যায়ের স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও বিশ্ববিদ্যালয়ে সরাসরি ক্লাস চালু করা হয়। এরপর ২ মা’র্চ সীমিত আকারে প্রাথমিক স্তরে পাঠদান শুরু হয়।

Back to top button