আন্তর্জাতিক

কর্ণাট’কে হিজাবের রায়ের পর স্কুল-কলেজ বন্ধ, নিষেধাজ্ঞা

ভা’রতের কর্ণাট’কের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছা’ত্রীদের হিজাব পরা নিষিদ্ধের আবেদন করে যে পিটিশন দেওয়া হয়েছিল তা খারিজ করে দিয়েছেন দেশটির কর্ণাট’কের হা’ই’কো’র্ট। এই রায়ের ফলে স্কুল-কলেজ কর্তৃপক্ষ হিজাব পরা নিষিদ্ধ করা বা না করার ক্ষমতা রাখে।

এদিকে, এই রায় ঘোষণার পরপরাই বিশৃঙ্খলার আশ’ঙ্কায় কর্ণাট’ক সরকার এক সপ্তাহের জন্য বেঙ্গালুরু শহরে বড় জমায়েতের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। এই রায়কে কেন্দ্র করে আগেই মঙ্গলবার ব্যাঙ্গালুরুর সব স্কুল-কলেজ বন্ধ ঘোষণা করা হয়।এছাড়া আরব সাগর তীরবর্তী শহর ম্যাঙ্গালুরুতেও ১৫ থেকে ১৯ মা’র্চ পর্যন্ত সব ধরনের বড় জমায়েত নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এর আগে চলতি বছরের প্রথম দিনে কর্ণাট’কে একটি সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে হিজাব পরিহিত কয়েকজন শিক্ষার্থীকে ক্লাসে বসতে বাধা দেওয়া হয়। কলেজ উন্নয়ন সমিতির সভাপতি বিজেপি বিধায়ক রঘুপতি ভাট জানিয়ে দেন, হিজাব পরিহিতরা ক্লাসে ঢুকতে পারবেন না। সেই বিতর্ক দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে রাজ্যজুড়ে।

হিজাব পরে স্কুল-কলেজে ক্লাস করার অনুমতির দাবিতে আ’ন্দোলন শুরু করে মু’সলিম শিক্ষার্থীরা। এই আ’ন্দোলনের পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবে গেরুয়া উত্তরীয় পরে আ’ন্দোলন শুরু করে একাধিক হিন্দুত্ববাদী সংগঠন। এভাবে হিজাবের পক্ষে-বিপক্ষে আ’ন্দোলন শুরু হলে কয়েকটি এলাকায় পু’লিশের সঙ্গে আ’ন্দোলনকারীদের সং’ঘ’র্ষের ঘটনা ঘটে। জারি করা হয় ১৪৪ ধারা। এমন পরিস্থিতিতে রাজ্যের সব স্কুল কলেজ অনির্দিষ্ট’কালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

এর পরিপেক্ষিতে গত ২৬ জানুয়ারি কর্নাট’ক সরকার একটি বিষয়টি খতিয়ে দেখতে একটি কমিটি গঠন করে। পাশাপাশি এক আদেশে সরকার জানায়, ওই কমিটি সুপারিশ করার আগ পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা কেবল নির্দিষ্ট ইউনিফর্মের বাইরে হিজাব বা গেরুয়া উত্তরীয় আর কিছু পরেই ক্লাসে যোগ দিতে পারবে না। সরকারের এই আদেশের বি’রু’দ্ধে কর্নাট’ক হা’ই’কো’র্টে রিট মা’ম’লা দায়ের কয়েকজন ছা’ত্রী। তারা দাবি করেন, ধ’র্মীয় অনুশাসন হিসেবে হিজাব তাদের মৌলিক অধিকারের মধ্যে পড়ে।

তবে আ’দা’লতের মতে, হিজাব পরা অ’পরিহার্য ধ’র্মীয় অনুশীলন নয়। তাই এটি নিষিদ্ধ করার এখতিয়ার রাখে স্কুল বা কলেজ কর্তৃপক্ষ।যদিও ইতোমধ্যে এই রায়কে চ্যালেঞ্জ করার ঘোষণা দিয়েছেন আ’ন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

 

Back to top button