জাতীয়

২ ব্যবসায়ীর গুদামে শত শত ব্যারেল সয়াবিন তেল

ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজে’লায় পৃথক দুটি গুদামে অ’ভিযান চালিয়ে শত শত ব্যারেল সয়াবিন তেল পাওয়া গেছে। এ সময় দুই ব্যবসায়ীর ৩৫ হাজার টাকা জ’রিমানা করা হয়েছে।মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে শৈলকুপা শহরের কবিরপুরে এ অ’ভিযান চালায় ভ্রাম্যমাণ আ’দা’লত। তবে কয়েকশ ব্যারেলে ৬৪ হাজার লিটার সয়াবিন তেল ছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ভ্রাম্যমাণ আ’দা’লতের বিচারক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও শৈলকুপা উপজে’লা সহকারী কমিশনার (ভূমি) পার্থ প্রতীম শীল এ অ’ভিযান পরিচালনা করেন।

তিনি জানান, উপজে’লা শহরের কবিরপুরের শংকর কুমা’র কুণ্ডুর গুদামে প্রথমে অ’ভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় ওই গুদামে কয়েক শত ব্যারেল সয়াবিন তেল মজুত পাওয়া যায়। নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে প্রতি ব্যারেল ১২০০ টাকা অ’তিরিক্ত বিক্রি করার অ’ভিযোগে ২০ হাজার টাকা জ’রিমানা করা হয়।

অ’পর ব্যবসায়ী রাজ কুণ্ডুর গুদামে ২০ ব্যারেল তেল পাওয়া যায়। তাকে ১৫ হাজার টাকা জ’রিমানা করা হয়। এসব তেল মজুত করে চড়া দামে বিক্রি করছিল বলে জানান ভ্রাম্যমাণ আ’দা’লত পরিচালনাকারী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

রাত ১০টার দিকে তিনি যুগান্তরকে জানান, তেল জ’ব্দ করা হয়নি। অ’তিরিক্ত দামের বিক্রির অ’ভিযোগে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের ৪০ ধারায় ওই দুই ব্যবসায়ীকে অর্থদ’ণ্ড করা হয়েছে।

শৈলকুপা উপজে’লা নির্বাহী অফিসার কানিজ ফাতেমা লিজা জানান, তেলের সঠিক হিসাব জানা নেই। অ’ভিযান পরিচালনাকারী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বলতে পারবেন। শত শত মানুষের উপস্থিতিতে পরিচালিত অ’ভিযান নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে বি’ভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে। তারা জানিয়েছেন, উপজে’লা শহরের আরও অনেক ব্যবসায়ী রয়েছেন, যারা সয়াবিন তেল মজুদ করে ভোজ্যতেলের বাজার অস্থিতিশীল করে তুলেছেন। আরও জো’র অ’ভিযানের দাবি জানিয়েছেন ভোক্তারা।

Back to top button