জাতীয়

লিভা’র ক্যানসারে আ’ক্রা’ন্ত সাবেক অর্থমন্ত্রী মুহিত

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত লিভা’র ক্যানসারে আ’ক্রা’ন্ত।ক’রো’নার মধ্যে দেড় বছর আগে এই ম’রণব্যাধি স’ম্প’র্কে জানতে পারেন তিনি। বিষয়টি পারিবারিকভাবেই গো’প’ন রাখা হয়েছে।বর্তমানে ভাইবোনদের চেষ্টাতে চলছে মুহিতের চিকিৎসা। চিকিৎসকরা বলছেন, সাবেক এ অর্থমন্ত্রীর শা’রীরিক অবস্থা ভালো নয়।

তা সত্ত্বেও সোমবার জন্মভূমি সিলেট গেছেন আবুল মাল আবদুল মুহিত। ক্যানসার পুরো লিভা’রে ছড়িয়ে পড়ায় মৃ’ত্যুভ’য় তাকে আতঙ্কিত করে তুলেছে। শুক্রবার তার ঢাকা ফেরার কথা রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বজনরা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের লিভা’র বিভাগের চেয়ারম্যান ও দেশে লিভা’র ক্যানসারের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক অধ্যাপক মামুন আল মাহতাব বুধবার যুগান্তরকে বলেন, সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের লিভা’রের ক্যানসার বর্তমানে যে অবস্থায় আছে, সে অবস্থায় চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব। এক্ষেত্রে সবচেয়ে প্রয়োজন রোগীর প্রবল ইচ্ছে। মুহিত সাহেব সক্রিয় রয়েছেন।

সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের ছোট ভাই পল্লী শি’শু ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ ও ঢাকা ডেল্টা হসপিটাল লিমিটেডের চেয়ারম্যান এএসএ মুয়িয সুজন বুধবার যুগান্তরকে বলেন, দেড় বছর আগে লিভা’র ক্যানসারের কথা জানতে পারেন তারা। ইচ্ছে ছিল লন্ডনে গিয়ে চিকিৎসা করানোর। কিন্তু তা আর হয়ে উঠেনি।

গত বছর জুলাইয়ে ক’রো’নাভাই’রাসে আ’ক্রা’ন্ত হন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। সে সময় ঢাকার সম্মিলিত সাম’রিক হাসপাতা’লে চিকিৎসা নেন তিনি। সর্বশেষ গত সপ্তাহে ঢাকার গ্রীন লাইফ হাসপাতা’লে চিকিৎসাধীন ছিলেন সাবেক অর্থমন্ত্রী। শুক্রবার ছে’লে শাহেদ মুহিত এক প্রকার সবার ইচ্ছের বি’রু’দ্ধে তার পিতাকে বনানীর বাসায় নিয়ে যান।

আবুল মাল আবদুল মুহিতের চিকিৎসা করেছেন এমন একজন চিকিৎসক বুধবার যুগান্তরকে বলেন, হাসপাতা’লে রেখে তার (আবুল মাল আবদুল মুহিত) আরও চিকিৎসার প্রয়োজন ছিল।

ছোটভাই পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন হাসপাতা’লে অগ্রজকে দেখে এসে তার ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে সাবেক অর্থমন্ত্রীর একটি ছবি আপলোড করেন। সেখানে হাসপাতা’লের শয্যায় ক্ষীণকায় আবুল মাল আবদুল মুহিতকে শুয়ে থাকতে দেখা যায়।

ওই সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে আবদুল মোমেন বলেন, তিনি (সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত) খুব ভালো আছেন। তার মেজর কোনো অ’সুখ নেই। আগে যেসব অ’সুখগুলো ছিল সেগুলো কোনোটাই নেই। ডায়াবেটিস, প্রেসার কিছুই নেই। তবে তিনি অ’ত্যন্ত দুর্বল। কারণ তার খাওয়া-দাওয়ার ঠিক নেই। অনেক দিন ধরে খাওয়া-দাওয়া করেন না। ফলে তার ওজন খুবই কমে গেছে।

অর্থমন্ত্রী হিসাবে আবুল মাল আবদুল মুহিত ১২টি বাজেট উপস্থাপন করেন, যার ১০টি ছিল আওয়ামী লীগ সরকারের আমলের। তিনি আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা কমিটির সদস্য। তার ছেড়ে দেওয়া আসন থেকে গত নির্বাচনে জয়ী হন ছোট ভাই ড. একে আবদুল মোমেন। এরপর একে আবদুল মোমেন দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। আবুল মাল আবদুল মুহিতের জন্ম ১৯৩৪ সালের ২৫ জানুয়ারি সিলেটে।

 

Back to top button