জাতীয়

ভুল-ত্রুটি জন্য ক্ষমা চাইলেন সাবেক অর্থমন্ত্রী

সিলেট সিটি করপোরেশনের গুণীশ্রেষ্ঠ সম্মাননা পেয়ে নিজেকে গর্বিত মনে করেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।তিনি বলেছেন, নিজের জন্মস্থানে এমন একটি সম্মাননা গৌরবের। আমি একান্তভাবে সিলেটের মানুষ। প্রাপ্তির একটি নিয়ম আছে। সেটা মনের প্রয়োজন, মাহাত্ম্যের। এই যে আমাকে সম্মান জানাচ্ছেন, আমি সেই মাহাত্ম্যের কাছে মা’থা নত করি। আমা’র ভুল ত্রুটি সব ক্ষমা করে দেবেন।

বুধবার সন্ধ্যায় সিলেটের ঐতিহ্যবাহি আলী আমজাদের ঘড়ি ঘরের সামনে সিলেট সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে তাকে আজীবন সুকীর্তির স্বীকৃতিস্বরূপ দেওয়া সম্মাননায় পেয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

রাত ৮টায় আবদুল মুহিত অনুষ্ঠানস্থলে হাজির হলে সিলেট মহানগর পু’লিশের বাদক দল তাকে অর্ভ্যথনা জানায়। এরপর মঞ্চে মেয়র, কাউন্সিলরসহ সিসিকের কর্মক’র্তারা তাকে ফুল দিয়ে বরণ করেন। মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী গুণীশ্রেষ্ঠ সম্মাননা স্মা’রক হিসেবে শতবর্ষী আলী আমজদের ঘড়ির স্বর্ণখচিত র‌্যাপলিকা আনুষ্ঠানিকভাবে হস্থান্তর করেন।

অনুষ্ঠানে নাগরিক সমাজের পক্ষ থেকে স্বাগত বক্তব্য দেন নর্থইস্ট ইউনিভা’র্সিটির উপাচার্য ড. ইলিয়াস উদ্দিন বিশ্বা’স। অনুষ্ঠানে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সিসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মক’র্তা বিধায়ক রায় চৌধুরী।সংক্ষিপ্ত আনুষ্ঠানিকতার মধ্যে আবুল মাল আবদুল মহিত দীর্ঘ বক্তৃতা দেন। তার বক্তৃতায় নানা স্মৃ’তিচারণ মন্ত্রমুগ্ধের মতো শুনেন উপস্থিত সবাই।

ছোটবেলার স্মৃ’তিচারণায় গ্রামীণ জীবন থেকে শহর জীবনের নানা দিক তিনি তুলে ধরেন তিনি। আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ছোটবেলার আনন্দময়, স্বাধীনতার দিনগুলো খুবই উপভোগ্য ছিল। সেইসব দিনের সুখকর স্মৃ’তির স্ম’রণে আজকে সবাইকে ধন্যবাদ জানাই। সিলেটের পরিবেশেই আমা’র জন্ম। আমা’র বেড়ে ওঠা। আমি গর্ববোধ করি এখানে জন্মে। এখান থেকে অনেক জ্ঞানীগুণীর জন্ম হবে। আজকে সিলেট নগরে আমি একজন অ’তিথি। এটা একটা গর্বের বিষয়। নিজের জন্মস্থানে নিজে এমন একটি সম্মান পাওয়া গর্বের।

 

Back to top button