জাতীয়

ছে’লের বাধায় বাবার দাফন বন্ধ, ম’রদেহ গেল ম’র্গে

খোঁড়া হয়েছে কবর। জানাজার জন্য জড়ো হয়েছেন শতাধিক মানুষ। কিন্তু গৃহ’ত্যাগী এক সন্তান হঠাৎ বাড়ি ফিরে বাবার ম’রদেহ দাফন বন্ধ করে দেন। পরে ৯৯৯ নম্বরে কল দিলে পু’লিশ ম’রদেহ উ’দ্ধা’র করে ম’র্গে পাঠায়। গতকাল বৃহস্পতিবার ১৭ মা’র্চ মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজে’লার বড়টিয়া ইউনিয়নের শ্রীবাড়ী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এর আগে সকালে অটোরিকশার ধাক্কায় মা’রা যান জালাল উদ্দিন (৭০)।

জানা যায়, জালাল উদ্দিনের চার ছে’লে ও দুই মে’য়ে। মেজো ছে’লে নুরুল ই’স’লা’মের সঙ্গে পারিবারিক স’ম্প’র্ক ভালো ছিল না। অনেক বছর আগে তিনি বাড়ি ছেড়েছেন। বাবা-মা’র খোঁজ-খবরও নেন না। মাঝে মধ্যে এলাকায় এসে বাবা ও ভাইদের হু’মকি-ধমকি দিতেন। বছর খানেক আগে এ বিষয়ে নুরুল ই’স’লা’মের নামে জালাল উদ্দিন থা’নায় সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) করেছেন। গ্রাম্য সালিশ হয়েছে বহুবার।

গতকাল বৃহস্পতিবার জালাল উদ্দিন নি’হ’ত হলে সন্তানরা তার জানাজাসহ দাফনের প্রস্তুতি গ্রহণ করেন। কিন্তু জানাজার ঠিক আগমুহূর্তে হাজির হন নুরুল ই’স’লা’ম। জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে তিনি অ’ভিযোগ করেন তার বাবাকে তিন ভাই মিলে হ’ত্যা করেছে। পু’লিশ ঘটনাস্থলে এসে দু’র্ঘ’ট’নায় মৃ’ত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত হন। স্থানীয় চেয়ারম্যান-মেম্বারসহ গ্রামবাসীও দু’র্ঘ’ট’নায় মৃ’ত্যু নিশ্চিত হয়ে ম’রদেহ দাফনে অনুমতি দেওয়ার জন্য নুরুল ই’স’লা’মকে অনুরোধ করেন। কিন্তু তাতেও সম্মতি দেননি তিনি।

এ ব্যাপারে জালাল উদ্দিনের বড় ছে’লে তারা মিয়া জানান, তার ভাই নে’শাগ্রস্ত। সন্তানসহ স্ত্রী’ও তাকে ছেড়ে বাবার বাড়ি চলে গেছেন। এখন নুরুল ই’স’লা’ম কোথায় থাকেন, কী করেন তা কেউ জানে না। দীর্ঘদিন ধরে বাবার সম্পত্তির ওয়ারিশ দাবি করে আসছিলেন তিনি। বাবা দিতে রাজি না হওয়ায় বাবা ও ভাইদের মা’রধর করতেন।

এ সময় স্থানীয় বাসিন্দা হোসেন মিয়া জানান, জালাল উদ্দিনের জানাজা পড়তে শ্রীবাড়ী চৌরাস্তা মোড়ে নির্ধারিত সময়ে উপস্থিত হয়েছিলেন। তার মতো অনেকেই এসেছিলেন। ছে’লে নুরুল ই’স’লা’ম জানাজা বন্ধ করে পু’লিশকে খবর দেন। তিনি ভাইদের হ’য়’রানি করার জন্য মিথ্যা তথ্য দিয়ে পু’লিশকে খবর দেন।

এ ব্যাপারে ঘিওর থা’নার ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (ওসি) রিয়াজুদ্দিন আহমেদ বিপ্লব জানান, ৯৯৯ নম্বরে ফোন পাওয়ার পর ঘটনাস্থলে পু’লিশ পাঠানো হয়। সুরতহাল রিপোর্ট ও স্থানীয়দের তথ্যমতে জালাল উদ্দিন অটোরিকশার ধাক্কায় নি’হ’ত হয়েছেন। কিন্তু তার মেজো ছে’লে নুরুল ই’স’লা’ম অ’ভিযোগ করছেন তার ভাইয়েরা বাবাকে হ’ত্যা করেছে। ময়নাত’দ’ন্তের জন্য ম’রদেহ হাসপাতাল ম’র্গে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতা’লের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আরশাদ উল্লাহ জানান, কফিনে মোড়ানো অবস্থায় জালাল উদ্দিনের ম’রদেহ রাতে হাসপাতাল ম’র্গে পৌঁছেছে। সকালে ময়নাত’দ’ন্ত সম্পন্ন হবে।

 

Back to top button