জাতীয়

টুপি, আতর ও তজবির দোকানে ভিড়

পবিত্র শবেবরাত ও আসন্ন মাহে রমজান উপলক্ষে রাজধানীর বায়তুল মোকাররমের সামনে আতর, টুপি ও দর্জির দোকানে ধ’র্মপ্রা’ণ মু’সলমানদের ভিড়।শুক্রবার (১৯ শে মা’র্চ) রাজধানীর বায়তুল মোকাররম ম’স’জিদের সামনে অস্থায়ী দোকানগুলোতে বিক্রি হচ্ছে আতর, টুপি ও তজবি।

বিভিন্ন দামে বিক্রি করা হচ্ছে টুপি।চট্টগ্রাম থেকে আসা জলিল মিয়া বাংলানিউজকে জানান, আমি ঢাকায় বেড়াতে এসেছি। বায়তুল মোকাররম ম’স’জিদে নামাজ পড়ে এখানে টুপি কিনতে এসেছি।

গাজীপুরের বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরিরত জনি হাসান ও জিয়াউল হক জানান, আম’রা গাজীপুর থেকে বায়তুল মোকাররম জাতীয় ম’স’জিদে জুম্মা’র নামাজ আদায় করতে এসেছি সেই সঙ্গে এখানে ভালো আতর পাওয়া যায় তাই আতর কিনছি।

আতর দোকানদার সাইফুল ই’স’লা’ম বাংলানিউজকে বলেন, আমা’র দোকানে দেশি ছাড়াও ইউরোপ ও মধ্যপ্রাচ্যের আতর পাওয়া যায়। রয়েছে বিশ্বখ্যাত শামাতুল আম্বার ও আল গজল কস্তুরী, আল-ফারেজ, রোজ, ওয়াল স্টোন, সিলভা’র, সুলতানসহ বিভিন্ন ধরনের আতর। ৫০ টাকা থেকে শুরু করে দুই তিন হাজার টাকা দামের আতর রয়েছে।

সাধারণত দুবাই, সৌদি, ফ্রান্স, ভা’রত ও পা’কিস্তানের আতর বেশি বিক্রি হয়। সুরমা ও তাসবীহ বিক্রি করি। দেশি-বিদেশি আতরের মধ্যে রয়েছে ব্লু লেডি, ব্লু ওয়েব, ব্রাউন মিরেজ, ম্যাগনেট, ডানা, সুইস ম্যাগনেট, সুলতান, বিস্কুট, লর্ড, বাকর ব্লুসম, ব্লু ওয়েব, ব্ল্যাক কোড, দুবাই গোল্ড, আলিফ, নেভি ও চকোলেট মাস্ক ইত্যাদি।

বাংলানিউজের সঙ্গে আলাপকালে টুপি বিক্রেতা মোহাম্ম’দ উল্লাহ বলেন, ভালোই বিক্রি হচ্ছে। তবে সেটা মোটামুটি ভালো। দেশি টুপির পাশাপাশি বিদেশি টুপি বিক্রি করি। ইন্ডিয়ান ও পা’কিস্তানি।

তিনি জানান, আমা’র দোকানে ২০ থেকে ২৫ রকমের টুপি আছে এগুলো বিভিন্ন দামে বিক্রি করা হয়। ৫০থেকে শুরু করে ৩৫০ ও ৪০০টাকা মূল্যের টুপি রয়েছে। যার যার সাম’র্থ্য অনুযায়ী টুপি কিনছেন সবাই। নামাজের আগে পরে ব্যবসা একটু ভালো হয়। জোহর, আসর ও মাগরিবের নামাজের আগে পরে।

Back to top button