জাতীয়

রোজার শুরুতে অ’তিরিক্ত পণ্য না কেনার আহ্বান

দেশে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের যথেষ্ট মজুত আছে জানিয়ে রোজার শুরুতে প্রয়োজনের অ’তিরিক্ত পণ্য কেনা থেকে বিরত থাকতে সবাইকে আহ্বান জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

শুক্রবার (১৮ মা’র্চ) বিকেলে রাজধানীর টিসিবি ভবনে রমজান উপলক্ষে নিম্ন আয়ের এক কোটি পরিবারের জন্য টিসিবির পণ্য সরবরাহ কার্যক্রম উপলক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এ আহ্বান জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে দেশের বাজারে জিনিসপত্রের দাম বাড়ার জন্য আন্তর্জাতিক বাজারে দরবৃদ্ধির প্রভাব ছাড়াও ‘অসাধু ব্যবসায়ীদের’ সংশ্লিষ্টতা রয়েছে বলে মনে করেন তিনি।

রমজান আসলে দ্রব্যমূল্যের দাম বেড়ে যাওয়া ঠেকাতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পদক্ষেপের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের মনটা কখন ভালো হবে? কবে আম’রা মানুষকে সুযোগ দেব? রজমান মাস তো সারা পৃথিবীর জন্য, যারা ধ’র্মে বিশ্বা’স করি, রমজান হলো সংযমের মাস।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, রমজান মাস শুরু হওয়ার আগেই আমাদের মানসিকতা থাকে যে একবারে বেশি করে কিনব। যার দিনে দরকার এক কেজি, সে হঠাৎ করে ১০ কেজি কিনে নিয়ে যাবে, হঠাৎ করে। যার কারণে হঠাৎ করে সা’প্লাই চেইনে প্রভাব পড়ে যায়।এটি মানুষকে জানানো দরকার জানিয়ে তিনি বলেন, জিনিসপত্র যথেষ্ট পরিমাণে আছে, আপনারা হুড়োহুড়ি করে কিনবেন না। এটা সবার সম্মিলিত কাজ।

আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বাড়া ও অসাধু ব্যবসায়ীদের সংশ্লিষ্টতা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তেলের দাম কেন বাড়ল, এটা আপনাকে দেখতে হবে। কেউ যদি বেশি নেয় তাহলে আম’রা দেখব। তবে গ্লোবাল মা’র্কে’টে যদি বেড়ে যায় তাহলে তেলের দাম কমাতে পারব না। তারপর যু’দ্ধ শুরু হয়েছে। ফুয়েলের দাম বেড়েছে, টান্সপোর্ট ব্যয় বেড়েছে। সব কিছুর ওপরেই প্রভাব পড়েছে। তার সাথে যু’ক্ত হয়েছে অসাধু ব্যবসায়ীরা। এজন্য সার্বিকভাবে আম’রা চেষ্টা করব।

পেঁয়াজ, তেল, চিনি, মশুর ডাল, কিছু মসলাসহ ১৭ ধরনের পণ্যের দেখভালের দায়িত্ব বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের জানিয়ে টিপু মুনশি বলেন, গতবার আলুর দাম বেড়েছিল, আলুর দাম আম’রা নিয়ন্ত্রণ করি না; এটা কৃষি মন্ত্রণালয়ের। তারপরও চেষ্টা করেছি এনিয়ে কাজ করতে। জিনিসের দামের ওপর এই যে প্রভাব পড়ছে- আমাদেরকে সা’প্লাই ও ডিমান্ড দেখতে হবে। সব দাম আম’রা ঠিক করি না, বিভিন্ন বিভাগ যে দাম ঠিক করে দেয়, এটাকে দেখে আম’রা চেষ্টা করি নিয়ন্ত্রণের।

তিনি আরও জানান, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী রমজানের আগে ও রমজানের মধ্যে দুই দফা এক কোটি নিম্ন আয়ের পরিবারের মধ্যে কার্ডের ভিত্তিতে টিসিবির পণ্য বিক্রি করা হবে।

টিসিবির চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আরিফুল হাসান জানান, আগামী রোববার থেকে ৩১ মা’র্চ পর্যন্ত রোজার আগে প্রথম পর্বে সয়াবিন তেল, চিনি, মশুর ডাল বিক্রি করা হবে। এরপর রোজা শুরু হলে ৩ এপ্রিল থেকে ২০ এপ্রিল পর্যন্ত দ্বিতীয় পর্বে ওই তিন পণ্যের পাশাপাশি ছোলাও বিক্রি করা হবে।

এছাড়া ঢাকায় এসব পণ্যের সাথে খেজুরও বিক্রি করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্য সচিব তপন কান্তি ঘোষ, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের মহাপরিচালক এ এইচ এম সফিকুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

Back to top button