জাতীয়

নিষিদ্ধ ‘জামআতুল মু’সলেমিন’ আমিরসহ গ্রে’প্তা’র ১০

খুলনায় নিষিদ্ধ ঘোষিত জ’ঙ্গি সংগঠন ‘জেএমবি’ মতাদর্শীর নতুন সংগঠন ‘জামআতুল মু’সলেমিন’ এর আমীরসহ ১০ সদস্যকে গ্রে’প্তা’র করেছে রে’ব-৬ এর সদস্যরা। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে বিপুল পরিমান উগ্রবাদী বই ও নথিপত্র উ’দ্ধা’র করা হয়।

শুক্রবার দিবাগত রাতে খালিশপুর থা’নার মাদানী নিসাব খালিশপুর বয়স্ক মাদরাসা ও ম’স’জিদ থেকে তাদের গ্রে’প্তা’র করা হয়। আজ শনিবার দুপুরে রে’ব-৬ এর খুলনা সদর দপ্তরে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়।

রে’ব-৬ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. মোস্তাক আহমেদ বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন।
গ্রে’প্তা’রকৃতরা হলেন- সংগঠনের স্বঘোষিত আমীর আনোয়ার কবির মিলন ওরফে মিদ্দাত হোসেন, সদস্য সোহেল রানা, আমিনুল, কা’ম’রুল ই’স’লা’ম, রিফাত রহমান, আব্দুর রউফ, মো. শেখ ফরিদ, আব্দুল আলীম, মো. রফিকুল ই’স’লা’ম ও তালহা ই’স’লা’ম।

রে’ব অধিনায়ক বলেন, সংগঠনটির স্বঘোষিত আমির আনোয়ার কবির মিলন ওরফে মিদ্দাত হোসেন ২০০২-০৬ সাল পর্যন্ত সৌদি আরবে লেখাপড়া করেন। লেখাপড়া শেষ করে বাংলাদেশে ফিরে আসলে তাঁর সঙ্গে ভোলা-চরফ্যাশন এলাকার প্রফেসর মজিদের সঙ্গে পরিচয় হয়। মজিদ তৎকালীন জেএমবির আমির শায়খ আব্দুর রহমান ও শায়খ সাইদুর রহমানের অনুসারী ছিলেন। জেএমবির প্রফেসর মজিদ ৬৩ জে’লায় বো’মা হা’ম’লার ঘটনায় জ’ড়ি’ত ছিলেন। পরে তিনি জে’ল হাজতে ছিলেন। জে’লে থাকাকালীন সময়ে প্রফেসর মজিদ জেএমবির নেতৃত্ব স্থানীয় নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতেন।

স’ন্দেহভাজন জ’ঙ্গী কার্যক্রমের জন্য ২০১২ সালে ডিবি পু’লিশ তাকে গ্রে’প্তা’র করে। এরপর থেকে মিদ্দাত হোসেন একটি নিজস্ব সংগঠন তৈরি করার ব্যাপারে পরিকল্পনা গ্রহণ করে। ২০১৮ সাল হতে প্রফেসর মজিদের সঙ্গে সম্পৃক্ত বেশ কিছু ব্যক্তি মিদ্দাত হোসেনকে সঙ্গে নিয়ে নতুন সংগঠন গঠন করে।

এই রে’ব কর্মক’র্তা আরো জানান, মিদ্দাত হোসেন ও তাঁর সহযোগীরা দেশের বিভিন্ন জায়গায় সূরা সদস্য নিয়োগ করে তাঁদের মাধ্যমে সাথী সদস্য গ্রহণের কাজ করছে। বর্তমানে তারা টাঙ্গাইল, গাজীপুর, যশোর, খুলনা, ময়মনসিংহ এবং ঢাকা এলাকাতে রিক্রুটমেন্ট কার্যক্রম ব্যাপক আকারে চলছে। পরবর্তীতে নিকট ভবিষ্যতে কুষ্টিয়া, রাজশাহী, জামালপুর, কি’শোরগঞ্জ এলাকাতে রিক্রুটমেন্টের পরিকল্পনা করেছিল। এ অবস্থায় তাদের গ্রে’প্তা’র করা হয়েছে। এ ঘটনায় মা’ম’লা দায়ের করে খালিশপুর থা’নায় হস্তান্তর করা হবে।

Back to top button