রাজনীতি

যে আ.লীগ নেতা স্যান্ডেল পরতে পারত না, তার এখন পাঁচটা বাড়ি

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রকেধ্বং,স করে ফেলেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ই’স’লা’ম আলমগীর। তিনি বলেছেন, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রকেধ্বং,স করে ফেলেছে আর সেজন্য তাদের রাষ্ট্রদ্রোহিতার অ’ভিযোগে বিচার হবে। এই দেশের মানুষের সঙ্গে তারা বিশ্বা’সঘা’ত’কতা করেছে। আজকে নয়, ১৯৭১ সালের পর থেকে বিশ্বা’সঘা’ত’কতা করে আসছে। সে কারণে আওয়ামী লীগের একদিন বিচার হবে।

শনিবার (১৯ মা’র্চ) রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে জাতীয়তাবাদী সম’র্থিত বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন-বিএফইউজের (একাংশ) বার্ষিক কাউন্সিলে বিএনপি মহাসচিব এসব কথা বলেন। এসময় তিনি বলেন, ‘যে আওয়ামী লীগ নেতা স্যান্ডেল পরতে পারত না, তার পাঁচটা বাড়ি, নতুন নতুন গাড়ি। আসলে আওয়ামী লীগ এই দেশে আর কোনো কিছু বাকি রাখেনি।’ এ সময় গণমাধ্যমকে নিয়ন্ত্রণ করতে সরকার একের পর এক আইন করছে বলেও অ’ভিযোগ করেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আজকে যেসব আইনগুলো করা হচ্ছে, প্রত্যেকটি আইন, নীতিমালা সংবাদ বা গণমাধ্যমকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য। সাংবাদিকরা যেন সত্য কথা বলতে না পারে, সেজন্যই সংবাদপত্র নিয়ন্ত্রণ আইন করা হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের সমাজে একটা স্থায়ী ক্ষত সৃষ্টি হয়েছে। সেই ক্ষতটা হচ্ছে বিভাজন। সাংবাদিক ইউনিয়ন দুই ভাগ, সংবাদকর্মীরা দুই ভাগ। অর্থাৎ একটা জায়গাও নেই যে ভাগ ছাড়া নাই। চিকিৎসকরা দুই ভাগ; সব আলাদা হয়ে গেছে।’

বিভাজন ও বিভক্তির জন্য আওয়ামী লীগ সরকারকে দায়ী করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘যারা ফ্যাসিবাদী ও কর্তৃত্ববাদী তারা সরকারকে টিকিয়ে রাখার জন্য, ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য সবসময় বিভাজন সৃষ্টি করেছে। আওয়ামী লীগ এক যুগে দেশের আত্মাকে ভাগ করে দিয়েছে। এখন চায়ের দোকানে দুটি বেঞ্চ আলাদা, একটা আওয়ামী লীগের, অন্যটা বিএনপির। এ বিভাজন তৈরি করেছে আওয়ামী লীগ।’

Back to top button