জাতীয়

ছে’লের প্রে’মের অ’ভিযোগে গ্রাম্য সালিশে মা-বোনকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নি’র্যা’তন!

ছে’লের প্রে’মের অ’ভিযোগে গ্রাম্য সালিশের নামে মধ্যযুগীয় কায়দায় মা রাকেয়া খাতুন (৪০) ও মে’য়ে আসমা খাতুন (২৫) কে নি’র্যা’তন করা হয়েছে৷ এ নি’র্যা’তন থেকে বাদ যাননি ছে’লে মিঠুনও৷ শনিবার (১৯ মা’র্চ) রাতে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজে’লার ফুলবাড়িয়া ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে৷ প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, সালিশে স্থানীয় ইউপি সদস্য ফেরদৌস মেম্বারের নির্দেশে তাদের প্রকাশ্য জনসম্মুখে মা’রপিট করতে করতে টেনে হিঁচড়ে রাকেয়া খাতুন ও তার মে’য়ে আসমা’র শরীরে থাকা কাপড় খুলে বীভৎস করে নি’র্যা’তন করে ইউপি সদস্য ফেরদৌস মেম্বারের সহযোগীরা৷ শালিসের শুরুতেই তাদের দফায় দফায় মা’রধর করা হয়৷

অ’ভিযু’ক্ত ফেরদৌস মেম্বার ফুলবাড়িয়া ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য তিনি। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী রাকেয়া খাতুন বাদী হয়ে মিরপুর থা’নায় ফেরদৌস মেম্বারসহ ছয়জনকে আ’সা’মি করে অ’ভিযোগ দায়ের করেছেন৷ অ’ভিযু’ক্ত হলেন স্থানীয় ইউপি সদস্য ফেরদৌস মেম্বার এবং তার সহযোগী একই এলাকার আনারুল, মিলন, কেয়ারুল, কা’মিরুল ও জমিরুল৷

ভুক্তভোগী রাকেয়া খাতুন বলেন, ‘আমা’র স্বামীর ভাই নজিরের মে’য়ের সঙ্গে প্রে’মের অ’ভিযোগ দিয়ে শনিবার সন্ধ্যায় কৃষ্ণপুর বটতলায় সালিশ বসান স্থানীয় মেম্বার ফেরদৌস৷ সেখানে হাজির হলেই শালিসের শুরুতেই আমাদের দফায় দফায় মা’রধর করা হয়৷ সালিশে লোকজনের সামনেই মা’রপিট করতে করতে টেনে হিঁচড়ে আমা’র ও আমা’র মে’য়ের শরীরে থাকা কাপড় খুলে বীভৎস করে নি’র্যা’তন করে মেম্বার ফেরদৌসের গুন্ডারা৷ সবই ছিল মেম্বার ফেরদৌসের নির্দেশ৷’ নি’র্যা’তনকারী স’ন্ত্রা’সীদের কঠোর বিচার দাবি করেন তিনি৷

এঘটনায় থা’নায় অ’ভিযু’ক্তদের বি’রু’দ্ধে অ’ভিযোগ দায়ের করলে তারা আমি ও আমা’র পরিবারের লোকজনকে হ’ত্যার হু’মকি দিচ্ছে। এখন পরিবারের লোকজনদের নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। এ ব্যাপারে মিরপুর থা’নার এসআই দীপঙ্কর বলেন, ‘অ’ভিযোগ পেয়েছি৷ ত’দ’ন্ত করে অ’ভিযু’ক্তদের বি’রু’দ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে৷’ মিরপুর থা’নার ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (ওসি) গো’লাম মোস্তফা জানান, ত’দ’ন্ত করে দোষীদের বি’রু’দ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে৷

Back to top button