জাতীয়

ই’স’লা’ম ধ’র্ম ও মহানবীকে অবমাননার অ’ভিযোগ, শিক্ষক আ’ট’ক

বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম মু’সলিম দেশ বাংলাদেশ। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রেখে মু’সলমানরা শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করে আসছে এ ভূখণ্ডে। মুন্সিগঞ্জ সদরের বিনোদপুর রামকুমা’র উচ্চ বিদ্যালয়ে ক্লাস চলাকালে ধ’র্ম অবমাননার অ’ভিযোগ উঠেছে এক গণিত শিক্ষকের বি’রু’দ্ধে। এ ঘটনায় বিচারের দাবিতে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে বি’ক্ষো’ভ করেছে শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার দুপুর উপজে’লার বিনোদপুর রাম কুমা’র উচ্চ বিদ্যালয়ে বি’ক্ষো’ভের এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় শিক্ষক হৃদয় মন্ডলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আ’ট’ক করেছে পু’লিশ। আ’ট’ককৃত শিক্ষক হৃদয় মন্ডল বিদ্যালয়ের গণিত ও বিজ্ঞানের শিক্ষক। তার বাড়ি সিরাজদিখানের চিত্রকোট এলাকায়।

বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থী ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার (২১ মা’র্চ) বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির বিজ্ঞান বিষয়ে ক্লাস নিচ্ছিলেন হৃদয় মন্ডল। এ সময় তিনি ই’স’লা’ম ধ’র্ম ও ধ’র্মীয় বিভিন্ন বিষয়ে আ’প’ত্তিকর কথা বলেন। যা শিক্ষার্থীরা মোবাইলে রেকর্ড করে। এ বিষয়ে ক্লাস শেষে শিক্ষকের বিচারের দাবিতে শিক্ষার্থীরা প্রধান শিক্ষক বরাবর লিখিত আবেদন করেন। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে আজ মঙ্গলবার বিদ্যালয় চলাকালীন সময় শিক্ষার্থীরা বি’ক্ষো’ভ শুরু করে। পরে পু’লিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করে।

এ বিষয়ে বিনোদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলাউদ্দিন আহমেদ জানান, দশম শ্রেণির কিছু ছাত্র-ছা’ত্রী এসে আমাকে বললো তাদের ধ’র্ম ও মহানবীকে (স.) কটূক্তি করেছে শিক্ষক হৃদয় মন্ডল। তার বিচার চাই। আমি তাদের বললাম ঘটনার সত্যতা পেলে বিচার হবে। পরে আমি অন্যান্য শিক্ষক ও অ’ভিভাবক সদস্যদের সাথে আলোচনা করে হৃদয় মন্ডলকে ৩ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেই। দুপুর ১২টার দিকে ছাত্র ও কিছু এলাকার মানুষ এসে বি’ক্ষো’ভ করে। তখন তাদের বুঝানোর চেষ্টা করি ৩ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশের জবাব না দিতে পারলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। কিন্তু তারা তা না মানায় আম’রা থা’না ও উপজে’লা নির্বাহী কর্মক’র্তাকে ফোন দেই।

Back to top button