জাতীয়

বঙ্গবন্ধুর জন্ম’দিনে জাতীয় পতাকার অবমাননা, প্রধান শিক্ষককে শোকজ

বরগুনা সদর উপজে’লার একটি বিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর জন্ম’দিনে জাতীয় পতাকার অবমাননা করায় প্রধান শিক্ষককে কারণ দর্শানোর (শোকজ) নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (২২ মা’র্চ) বিষয়টি নিশ্চিত করেন উপজে’লা সহকারী শিক্ষা কর্মক’র্তা আরিফুজ্জামান।তিনি বলেন, জাতীয় পতাকার অবমাননা করার সত্যতা পাওয়ায় প্রধান শিক্ষককে শোকজ করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার (১৭ মা’র্চ) জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০২তম জন্ম’দিন ও জাতীয় শি’শু দিবসে বরগুনা সদর উপজে’লার বুড়িরচর ইউনিয়নের ৫৬ নম্বর মানিকখালী ছোনবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাতেও জাতীয় পতাকা উড়তে দেখেন স্থানীয়রা। এ ঘটনায় স্থানীয়দের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। পরে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জামাল আহমেদেকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

স্থানীয়রা অ’ভিযোগ করেন, এ বিদ্যালয়ে প্রায় রাতেই জাতীয় পতাকা উড়তে দেখা যায়। কোনো কোনো সময় রাত ৮টার দিকেও পতাকা নামাতে দেখা যায়। আবার কখনও সাড়া রাতই উড়তে থাকে। পতাকা অবমাননা ছাড়াও এ বিদ্যালয়ে একুশে ফেব্রুয়ারিতে শহীদ মিনারে ফুল না দেওয়ারও অ’ভিযোগ করেন স্থানীয়রা।

বরগুনা জে’লা আইনজীবী সমিতির সদস্য অ্যাডভোকেট হাসিবুর রহমান হাসিব মুন্সি বলেন, আইন এবং সরকারি গেজেট অনুসারে বিদ্যালয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে সকালে উত্তোলনের পর সূর্যাস্তের সময় জাতীয় পতাকা নামানোর বিধান থাকলেও প্রধান শিক্ষকের অবহেলায় তা মধ্যরাত পর্যন্ত অবহেলিতভাবে উড়তে থাকে। যা অ’ত্যন্ত দুঃখজনক এবং আইন পরিপন্থী। যা জাতীয় পতাকা বিধিমালা ১৯৭২ এর বিধি ২৩/২৪ এর লঙ্ঘন।

এ বিষয়ে জানতে যোগাযোগ করা হলেও মানিকখালী ছোনবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জামাল আহমেদের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে বরগুনা সদর উপজে’লা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মক’র্তা (ইউএনও) মো. নাসির উদ্দিন বলেন, বিষয়টি শুনে ঘটনাস্থলে উপজে’লা সহকারী শিক্ষা কর্মক’র্তা পাঠিয়েছি এবং সত্যতা পাওয়ায় ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে শোকজ করা হয়েছে।

Back to top button