জাতীয়

লাইটার চাওয়াকে কেন্দ্র করে ২ গ্রামবাসীর সং’ঘ’র্ষ, আ’হত ১৫

তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে দুই গ্রামের মধ্যে উ’ত্তে’জ’না বিরাজ করছিল শেষে সং’ঘ’র্ষ আ’হত হয়েছে ১৫ জন। ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজে’লায় মাইকে ঘোষণা দিয়ে দুইদল গ্রামবাসীর সং’ঘ’র্ষে লিপ্ত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। সিগারেট জ্বালানোর জন্য লাইটার চাওয়াকে কেন্দ্র করে দুই তরুণের হাতাহাতির জেরে এ ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে।

বুধবার (২৩ মা’র্চ) সকালে উপজে’লার ঘারুয়া ইউনিয়নের ঘারুয়া গ্রামে শুরু হওয়া সং’ঘ’র্ষ প্রথমে গ্রামবাসীর মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলেও পরবর্তীতে তাদের একাংশের সঙ্গে যু’ক্ত হয় পাশের গ্রাম চৌকিঘাটার লোকজন। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বাজারের বেশকিছু দোকান ও বসতবাড়ি।

স্থানীয় ব্যক্তিরা জানান, মঙ্গলবার (২২ মা’র্চ) ঘারুয়া গ্রামের চুন্নু ফকিরের ছে’লে ইমন ফকির (১৮) সিগারেট ধ’রাতে দোকানদার রমজান মাতুব্বরের কাছে গ্যাসলাইটার চান। দোকানদার লাইটার না দেয়ায় বাগবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে হাতাহাতি হলে স্থানীয়রা দুই জনকে শান্ত করে মীমাংসা করে দেন।

বিকালে রমজান মাতুব্বর বাজারে গেলে ইমন ফকির হকিস্টিক দিয়ে এলোপাথাড়ি মা’রধর করে। বিষয়টি নিয়ে বুধবার (২৩ মা’র্চ) সকালে স্থানীয় মুরুব্বিরা দুই পক্ষকে ডেকে সালিশ বৈঠকে বসেন। সালিশ চলাকালীন কয়েকজন ছাইদুল মোল্লার দোকানসহ বেশ কয়েকটি ঘর ভাঙচুর করে। এরই ধারাবাহিকতায় ঘারুয়া গ্রামের দুই পক্ষ মাইকিং করে দেশি অ’স্ত্র নিয়ে একে-অ’পরের ওপর হা’ম’লা চালায়। কয়েক ঘণ্টা চলা সং’ঘ’র্ষে অন্তত ১৫ জন আ’হত হয়েছেন।

ভাঙ্গা মহিলা ডিগ্রি কলেজের সহকারী অধ্যাপক এবং ঘারুয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সফি উদ্দিন মোল্লা বলেন, তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে দুই গ্রামের মধ্যে উ’ত্তে’জ’না বিরাজ করছিল। বিষয়টি মীমাংসার চেষ্টা করা হলেও সবাই না মানার কারণে ঘটনাটি সং’ঘ’র্ষে রূপ নেয়।

 

Back to top button