জাতীয়

মানুষ দরজা খুলে ঘুমাতে চায়, শান্তিতে থাকতে চায়

ফতুল্লার কাশিপুর ইউনিয়নে সার্বজনীন মিলন উৎসবে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য এ কে এম শামীম ওসমান বলেছেন, রাস্তা-ঘাট, কালভা’র্ট, স্কুল-কলেজ হচ্ছে। এগুলো চাহিদা হতে পারে। তারচেয়েও বেশি প্রয়োজনীয় জিনিস আমি মনে করি, মানুষ দরজা খুলে ঘুমাতে চায়। মানুষ শান্তিতে থাকতে চায়। ছে’লে ঘর থেকে বের হলে টেনশন ফ্রি থাকতে চায়। এগুলো পু’লিশের পক্ষে একা সম্ভব না, আমাদের পক্ষেও একা সম্ভব না। সকলে মিলে করলে অসম্ভবও না।

বৃহস্পতিবার (২৪ মা’র্চ) শামীম ওসমান বলেন, আমাকে কাজে লাগান, হুকুম দেন, নির্দেশ দেন। কোথায় কি করতে হবে বলেন। আমি সব কাজ করতে পারবো কি না জানি না। তবে আপনারা সবাই পাশে থাকলে অনেক কিছুই করা সম্ভব।

তোলারাম কলেজের সাবেক ভিপি ম’রহু’ম আলমগীরের কথা স্ম’রণ করে শামীম ওসমান বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জ কলেজের ভিপি ছিল। সেদিনের ছে’লে, আমা’র চোখের সামনে বড় হয়েছে। খুব ভালো বক্তব্য দিতেন। ফতুল্লায় আমাদের একটি দলীয় সভায় অংশ নিয়ে ৪০ মিনিট বক্তব্য রেখেছেন। যখন কেউ ৩০-৪০ মিনিট বক্তব্য রাখে, তার হার্ড খা’রা’প হওয়ার কথা না। অথচ ফতুল্লার একটি সভা শেষে রাইফেল ক্লাবে আরো একটি সভায় অংশ গ্রহণের পর শুনেছি আলমগীর আর নাই। নিঃশ্বা’স নিতে ক’ষ্ট পাচ্ছি। সেই অনুষ্ঠান দ্রুত শেষ করেছি, কেন যেন মনে হচ্ছিল, আমা’র ডাক্তার দেখানো দরকার। যাই হোক তারপরেও আবার আপনাদের কাছে এসেছি।’

শামীম ওসমান বলেন, ‘আজকের এই অনুষ্ঠানটি আনন্দের, তারপরেও এখানে ক’ষ্টে’র কথা বললাম। এই কারণে, আম’রা কেউ চিরস্থায়ী না। আমাদের সকলেই মা’রা যেতে হবে। আজকের এই অনুষ্ঠান তখনই সফল হবে, যখন সকলের সাথে সকলের একটি বন্ধন তৈরি হবে। মুরুব্বীরা নাই আজকে, কালকে আম’রাও চলে যাবো। তবে, আমা’র যেটা মনে হয়, আজকে যারা এই অনুষ্ঠানের উদ্যোক্তা। তারা উদ্যোগ নিয়েছেন? আপনাদের ব্যাকাপ কল দিচ্ছেন, জাগো, ঘুম থেকে উঠো।’

 

Back to top button