জাতীয়

বরের বয়স ১৮ কনের ২৫, জ’রিমানা করল প্রশাসন

নাটোরের বড়াইগ্রামের মানিকপুর মুন্সীপাড়ায় উপজে’লা প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেল চাঁদনী খাতুন (১৬) নামে এক কি’শোরী। অ’পরদিকে সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বাল্যবিয়ের অ’ভিযোগে উপজে’লার বাহিমালি গ্রামে অ’প্রাপ্ত বয়স্ক বরের চাচাকে ৩০ হাজার টাকা জ’রিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আ’দা’লত।

শুক্রবার বিকালে উপজে’লা নির্বাহী কর্মক’র্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মা’রিয়াম খাতুন এ ভ্রাম্যমাণ আ’দা’লত পরিচালনা করেন। এ সময় উপজে’লা মহিলা বিষয়ক কর্মক’র্তা হাবিবা খাতুন উপস্থিত ছিলেন।

স্থানীয়রা জানান, শুক্রবার উপজে’লার মাঝগাঁও ইউনিয়নের মানিকপুর গ্রামের শামসুল হকের অ’প্রাপ্ত বয়স্ক ছে’লে শাকিল আহমেদের (১৮) সঙ্গে একই এলাকার বাহিমালি গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের মে’য়ে সুমী খাতুনের (২৫) বিয়ের দিন ধার্য ছিল। খবর পেয়ে ইউএনও বাহিমালি গ্রামে কনের বাড়িতে যান। কিন্তু তিনি পৌঁছার আগেই তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়ে যায়। পরে বাল্যবিয়ের অ’ভিযোগে বরের চাচা মজিবর রহমানকে তাৎক্ষণিক ৩০ হাজার টাকা নগদ জ’রিমানা করা হয়েছে।

অ’পরদিকে একই সময়ে উপজে’লার মানিকপুর গ্রামের আব্দুল কাদেরের মে’য়ে চাঁদনী খাতুনের (১৬) বাল্যবিয়ের প্রস্তুতি চলছিল। খবর পেয়ে ইউএনও মা’রিয়াম খাতুন সেখানে অ’ভিযান চালিয়ে বাল্যবিয়ে বন্ধ করেন। এ সময় কনের বাবা প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত মে’য়েকে বিয়ে দিবেন না ম’র্মে লিখিত মুচলেকা দেন।

উপজে’লা মহিলা বিষয়ক কর্মক’র্তা হাবিবা খাতুন বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, একটি বাল্যবিয়ে বন্ধ করা হয়েছে। অ’পর ঘটনায় মে’য়ে প্রাপ্তবয়স্ক হলেও বরের সরকার নির্ধারিত বিয়ের বয়স হয়নি। এ কারণে বরের সঙ্গে থাকা অ’ভিভাবক হিসেবে তার চাচার জ’রিমানা করা হয়েছে।

Back to top button