জাতীয়

গণহ’ত্যা দিবসে জে’লায় জে’লায় মোমবাতি প্রজ্বালন

একাত্তরের ২৫ মা’র্চের ভ’য়াল কালরাত্রিতে দেশের মানুষের ওপর পা’কিস্তানি হানাদার বাহিনীর বর্বরোচিত হা’ম’লায় নি’হ’তদের স্ম’রণে ও শহীদদের আত্মা’র শান্তি কা’মনায় দেশে বিভিন্ন জে’লায় মোমবাতি প্রজ্বালন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

মোমবাতি প্রজ্বালনের মধ্যদিয়ে গণহ’ত্যা দিবসে শহীদদের স্ম’রণ করেছে সিলেটবাসী। শুক্রবার (২৫ মা’র্চ) সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদমিনার প্রাঙ্গণের পাশে বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে শহীদদের স্ম’রণে মোমবাতি প্রজ্বালন করা হয়। মোমবাতি প্রজ্বালন শেষে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদমিনার মঞ্চে হয় সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা। এ সময় বক্তারা ২৫ মা’র্চের জাতীয় গণহ’ত্যা দিবসকে আন্তর্জাতিক গণহ’ত্যা দিবসের স্বীকৃতি দাবি করেন।

গণহ’ত্যা দিবসে শহীদ স্মৃ’তিস্তম্ভে মোববাতি প্রজ্বালন করে নেত্রকোনায় দিবসটি পালন করা হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যায় পৌর শহরের সাতপাই কালিবাড়ি মোড়স্থ মগড়া পাড়ের বধ্যভূমি শহীদ স্মৃ’তিসৌধে আলোক প্রজ্বালন করে সাহিত্য সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের নেতারা। এছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের নেতাকর্মীরা প্রদীপ প্রজ্বালনে অংশগ্রহণ করেন। মোমবাতি প্রজ্বালনকালে শহীদদের স্ম’রণে ১০ মিনিট দাঁড়িয়ে গণজাগরণী সংগীত পরিবেশিত হয়।

ঝিনাইদহে ২৫ মা’র্চ ভয়াল কাল রাত স্ম’রণে মোমবাতি প্রজ্বালন করা হয়েছে। সন্ধ্যায় শহরের মুজিব চত্বরের মুক্তিযু’দ্ধ স্মৃ’তিসৌধে এ কর্মসূচির আয়োজন করে কথন সাংস্কৃতিক সংসদ (কসা’স)। শুরুতে দাঁড়িয়ে নীরবতা পালন করা হয়। এ সময় সরকারি কেসি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. বিএম রেজাউল করিম, ভা’রপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ অশোক কুমা’র মৌলিক,কসা’সের সভাপতি অন্তর মাহমুদসহ নানা শ্রেণিপেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

জাতীর ইতিহাসে বর্বরতম গণহ’ত্যা দিবস উপলক্ষে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জে’লা প্রশাসনের আয়োজনে হাজারো মোমবাতি প্রজ্বালন করে গণহ’ত্যার শিকার হওয়া শহীদদের স্ম’রণ করা হয়। সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধু স্কয়ারে হাজারো মোমবাতি প্রজ্বালন কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জে’লা প্রশাসক শাহগীর আলম, পু’লিশ সুপার মোহাম্ম’দ আনিসুর রহমান, জে’লা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার, সহ আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মী সহসহ প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মক’র্তা সহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার সাধারণ মানুষ উপস্থিত ছিলেন। এসময় অনুষ্ঠানের প্রধান অ’তিথি সহ শ্রেণিপেশার সাধারণ মানুষর কণ্ঠে একটি দাবি ছিল ১৯৭১ সালের ২৫ মা’র্চ গণহ’ত্যাটি যেন আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়। এছাড়া শহীদ ধীরেন্দ্র নাথ দত্ত ভাষা চত্বরে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের পক্ষ থেকে ২৫ মা’র্চ কালরাত্রিতে নি’হ’ত শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে মোমবাতি প্রজ্বালন করা হয়।

Back to top button