জাতীয়

২৫ মা’র্চকে গণহ’ত্যা দিবস স্বীকৃতির দাবি উঠল কলকাতায়

১৯৭১ সালের ২৫ মা’র্চ রাতে নারকীয় হ’ত্যাকা’ণ্ডের সাক্ষী হয়েছিল গোটা বিশ্ব। সে সময় ঢাকার কয়েকটি এলাকায় চালানো হয় নি’র্ম’ম হ’ত্যাযজ্ঞ। সেই কালরাতে গণহ’ত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আদায়ের দাবিতে আলোচনাসভা করেছে কলকাতা বাংলাদেশ উপহাইকমিশন।

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর বিদেশের মাটিতে প্রথম বাংলাদেশের লাল-সবুজের পতাকা উড়েছিল কলকাতায়। সে সময় যে ভবনে পতাকাটি উড়েছিল সেটি পা’কিস্তানের দূতাবাস ছিল। ঐতিহাসিক এই ভবনেই এবার দাবি উঠল ২৫ মা’র্চে গণহ’ত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দেওয়ার।

ইতোমধ্যেই বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মা’র্চের ভাষণ এবং একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। এবার একই দাবিতে সরব উপদূতাবাসের কূটনীতিকরা।

কলকাতার বাংলাদেশ উপহাইকমিশন উপহাইকমিশনার তৌফিক হাসান বলেন, আম’রা ইতিহাসটিকে ধরে রাখার চেষ্টা করছি। যাতে নতুন প্রজন্ম সঠিক তথ্য জানতে পারে ১৯৭১ সালে আসলে কি ঘটেছিল। আম’রা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি জাতিসংঘের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে কথা বলে ২৫ মা’র্চকে আন্তর্জাতিক গণহ’ত্যা দিবস হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা যায়।

উপদূতাবাস ভবনের বাংলাদেশ গ্যালারিতে এক অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপহাইকমিশনার তৌফিক হাসান। অনুষ্ঠানের শুরুতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করে শোনানো হয়।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন কলকাতা দূরদর্শনের সাবেক পরিচালক অ’ভিজিত দাসগুপ্ত, কলকাতা প্রেসক্লাবের সভাপতি স্নেহাশীষ সুর। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন উপহাইকমিশনের প্রথম সচিব সানজিদা জেসমিন।

Back to top button