আন্তর্জাতিক

ইম’রান খান সরকারের ৫০ মন্ত্রী নি’খোঁ’জ!

এবার জাতীয় সংসদে অনাস্থা প্রস্তাবের আগেই পা’কিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইম’রান খানের সরকারের ৫০ জনের বেশি মন্ত্রী নি’খোঁ’জ হয়েছেন বলে দাবি করেছে দেশটির ইংরেজি দৈনিক এক্সপ্রেস ট্রিবিউন ও বেশ কিছু ভা’রতীয় সংবাদমাধ্যম। ইম’রান খানের দলের ওই মন্ত্রীদের গত কয়েক দিন ধরে জনসম্মুখে দেখা যাচ্ছে না বলে গত শুক্রবার এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে তারা।

এ বিষয়ে একাধিক সূত্রের বরাত দিয়ে এক্সপ্রেস ট্রিবিউন বলছে, নি’খোঁ’জ মন্ত্রীদের মধ্যে ২৫ জন ফেডারেল মন্ত্রী, প্রাদেশিক উপদেষ্টা, বিশেষ সহকারী এবং চারজন প্রাদেশিক মন্ত্রী, চারজন উপদেষ্টা ও ১৯ জন বিশেষ সহকারী রয়েছেন। প্রাদেশিক মন্ত্রীরা আড়ালে গেলেও দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইম’রান খানের প্রতি এখনও দলীয় ফেডারেল মন্ত্রীদের সম’র্থন রয়েছে বলে জানিয়েছে এক্সপ্রেস ট্রিবিউন। ক্ষমতার ভিতে কম্পন ধ’রায় পা’কিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি, তথ্যমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরী, জ্বালানি মন্ত্রী হাম্মাদ আজহার, প্রতিরক্ষামন্ত্রী পারভেজ খাট্টাক এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ রাশিদ সেই মন্ত্রীদের মধ্যে রয়েছেন, যারা ইম’রান খানকে রক্ষায় চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

আইনি বাধ্যবাধকতার কারণে পা’কিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইম’রান খানের বি’রু’দ্ধে দেশটির বিরোধীদলীয় আইনপ্রণেতাদের অনাস্থা প্রস্তাব উত্থাপনের সময় পিছিয়ে গেছে। দেশটির সংসদের নিম্নকক্ষ জাতীয় পরিষদের স্পিকার আসাদ কায়সার আগামী ২৮ মা’র্চ বিকেল ৪টা পর্যন্ত অধিবেশন স্থগিত ঘোষণা করেছেন। সেই সুযোগে ইম’রান খান গদি বাঁ’চাতে দলীয় মিত্রদের সঙ্গে জো’র তৎপরতা শুরু করেছেন।

দেশটির রাজনৈতিক দল মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্ট-পা’কিস্তানের (এমকিউএম-পি) একটি প্রতিনিধিদলের সঙ্গে শনিবার পাক প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকের কথা রয়েছে। এর আগে, শুক্রবার দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্ট (এমকিউএম) এবং পা’কিস্তান মু’সলিম লীগ-কায়েদের (পিএমএল-কিউ) নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। তার ওই সাক্ষাতের পর প্রধানমন্ত্রীর সাথে বৈঠকে বসতে রাজি হয় উভ’য় দলের নেতারা।

এদিকে অর্থনৈতিক অব্যবস্থাপনা ও পররাষ্ট্রনীতিতে ব্যর্থতার অ’ভিযোগে ২০২০ সাল থেকেই ইম’রান খানের পদত্যাগ ও অন্তর্বর্তী নির্বাচনের দাবি জানিয়ে আসছে পা’কিস্তানের বিরোধী দলগুলো। পার্লামেন্টের প্রধান বিরোধীদল পা’কিস্তান পিপলস পার্টি ও মু’সলিম লীগ (নওয়াজ) এই আ’ন্দোলনে নেতৃত্ব দিচ্ছে। গত ৮ মা’র্চ রাজধানী ই’স’লা’মাবাদে এই দু’টি দলের নেতৃত্বে ইম’রান খানের বি’রু’দ্ধে বিশাল বি’ক্ষো’ভ সমাবেশ হয়েছে। সেখানে বিরোধীরা পা’কিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে দাবি তোলেন—‘হয় পদত্যাগ করুন, নয়তো অনাস্থা ভোটের মুখোমুখি হোন’।

এর আগে গত বছরের মা’র্চে বিরোধীদের দাবিতে প্রথমবারের মতো অনাস্থা ভোটের মুখোমুখি হয়েছিলেন ইম’রান খান। তবে সেই সময় অল্প ভোটের ব্যবধানে জয়ী হয়ে বিপদ উৎরে যান ক্রিকেট তারকা থেকে প্রধানমন্ত্রীর মসনদে আসীন ইম’রান। পা’কিস্তানের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ জাতীয় পরিষদে আয়োজিত সেই আস্থা ভোটে জয়ের জন্য ইম’রানের ১৭২টি ভোটের প্রয়োজন হলেও তিনি পেয়েছিলেন ১৭৬ ভোট। কিন্তু বিরোধী এমপিদের আবেদনের পর চলতি বছর ফের অনাস্থা ভোটের মুখে পড়তে হচ্ছে ইম’রান খানকে।

 

Back to top button