রাজনীতি

আইজিপি ও পু’লিশ কমিশনারের প্রত্যাহার চান রিজভী

দলীয় প্রধান বেগম খালেদা জিয়াকে নিয়ে পু’লিশের আইজিপি বেনজীর আহমেদ এবং ঢাকা মহানগর পু’লিশ কমিশনার মোঃ শফিকুল ই’স’লা’ম যে মন্তব্য করেছেন এর জন্য তাদের প্রত্যাহার দাবি করেছেন বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

রিজভী বলেন, জনগণের করের টাকায় প্রজাতন্ত্রের কর্মক’র্তারা এভাবে দলীয় ক্যাডারদের মত সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে বক্তব্য দিতে পারেন না। অবশ্যই তাদের প্রত্যাহার করতে হবে।সোমবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন।

রিজভী বলেন, রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বাধীনতার ইতিহাস বি’কৃ’তির বহু’মাত্রিক কুৎসিত চক্রান্তের মধ্য দিয়ে বিদায় নিয়েছে বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস। রাষ্ট্রীয় অর্থ খরচ করে সারা বছর জুড়ে স্বাধীনতার নামে এক ব্যক্তিকে মহিমান্বিত করার যেসব অনুষ্ঠান হয়েছে, সেই সকল অনুষ্ঠানে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধারা ছিলেন অ’পাংক্তেয় ও উপেক্ষিত। আ’দা’লতের রায় আর রে’ব-পু’লিশের ভ’য়ে সন্ত্রস্ত মুক্তিযোদ্ধারা নীরবেই পার করে দিয়েছেন তাদের জীবনবাজি রেখে অর্জিত স্বাধীন বাংলাদেশের সুবর্ণ জয়ন্তী। জাতির জীবনে নি’র্ম’ম পরিহাস, মুক্তিযোদ্ধাদের উপেক্ষা করে আইন প্রয়োগকারী বাহিনী এখন জাতিকে স্বাধীনতা এবং মুক্তিযু’দ্ধের ইতিহাস শোনাচ্ছে।

তিনি বলেন, গত ২৬ মা’র্চ রাজারবাগ পু’লিশ অডিটোরিয়ামে পু’লিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত অনুষ্ঠানে পু’লিশ প্রধান বেনজির আহম’দ এবং তারই অধনস্ত ঢাকা মহানগর পু’লিশ প্রধান শফিকুল ই’স’লা’ম ভব্যতা-সভ্যতার সকল সীমা ছাড়িয়ে যে ঔদ্ধত্যপূর্ণ শিষ্টাচার বর্জিত অশালীন এবং রাজনৈতিক প্রতিহিং’সামূলক বক্তব্য দিয়েছেন তাতে গোটা দেশবাসী হতবাক। আম’রা আশা করি, পু’লিশের অ’তিদলবাজ এই দুই কর্মক’র্তা তাদের গর্হিত অ’প’রা’ধের জন্য জাতি কোনোদিন ক্ষমা করবে না।

তিনি বলেন, পু’লিশ আয়োজিত অনুষ্ঠানে, বিশেষ করে এক্সটেনশন সার্ভিসে থাকা ঢাকা মহানগর পু’লিশ কমিশনার শফিকুল ই’স’লা’ম চারবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী এবং দেশের সব চাইতে জনপ্রিয় সবচাইতে শ্রদ্ধাভাজন নেত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে নিয়ে যে মন্তব্য করেছেন, তা চরম মাত্রাজ্ঞানহীন আচরণ ছাড়া আর কিছুই নয়। যে নোংরা ভাষায় পু’লিশ কমিশনার কথা বলেছেন তা প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী তো দুরের কথা কোনো ভদ্র পরিবারের সন্তানের পক্ষে উচ্চারণ করা সম্ভব নয়। স্বাধীনতার ঘোষক ও বরেণ্য মুক্তিযোদ্ধা এবং সেক্টর কমান্ডারের সহধ’র্মিণী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া স’ম্প’র্কে পু’লিশ কমিশনার যে অশিষ্ট মন্তব্য করেছেন তাতে তার পিতামাতা যদি বেঁচে থাকেন তাহলে তারাও লজ্জিত ও বিব্রত হবেন। আমাদের বক্তব্য স্পষ্ট, বেগম খালেদা জিয়ার মতো মহিয়সী না’রীকে নিয়ে যারা অসম্মানসূচক বক্তব্য রাখেন তারা আত্মা বিক্রি করা মানুষ।

বিএনপি নেতা বলেন, শফিকুল ই’স’লা’মের চাকুরী শেষ হয়ে গিয়েছিলো গত বছর। ২০২১ সালের ২১ অক্টোবর নিয়ম অনুযায়ী তার মেয়াদ শেষে অবসরোত্তর ছুটি প্রদানের প্রজ্ঞাপন জারি করেছিল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তবে গত প্রায় এক দশকে হয়তো গু’ম, খু’ন অ’প’হ’রণে পারদর্শী হয়ে ওঠায় সরকার তার সার্ভিস আরো প্রয়োজন মনে করে তাকে এক বছরের জন্য চাকুরীতে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দিয়েছে। সেই অ’তিরিক্ত মেয়াদের একবছর মেয়াদকালও শেষ হয়ে আসছে। ফলে আবারো চুক্তি ভিত্তিক পুনঃনিয়োগ লাভের আশায় সুরুচি ও ভদ্রতার সকল সীমানা অ’তিক্রম করে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে নিয়ে বিবেকবর্জিত বক্তব্য দিয়েছেন।

রিজভী বলেন, রাজারবাগের একই অনুষ্ঠানে পু’লিশের আইজি বেনজির আহমেদও বাংলা-ইংরেজি মিলিয়ে তীব্র রোষ নিয়ে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য ভাষায় দেশের আপাম’র গণতন্ত্রকা’মী মানুষকে ধমক দিয়েছেন। তাচ্ছিল্যভরে নানা কটু মন্তব্য করেছেন। পা’কিস্তান আমলে পা’কিস্তানি উর্দী পরা কর্মক’র্তারাও এভাবে গণতন্ত্রকা’মী মানুষকে বাংলা-উর্দু মিলিয়ে ধমক দিতেন। তার উপর আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিষেধাজ্ঞা জারি হওয়ার পর জনগণ ভেবেছিলো কিছুটা হলেও দেশে গু’ম-খু’নের ভ’য়ের পরিবেশ কে’টে যাবে। কিন্তু গত পরশু তার বক্তব্যে বোঝা গেলো, তিনি বাংলাদেশে বিদ্যমান কর্তৃত্ববাদী শাসনকে দীর্ঘস্থায়ী করতে র’ক্তগঙ্গা বইয়ে দিতেও দ্বিধা করবেন না।

তিনি আরো বলেন, এক্সটেনশন সার্ভিসে থাকা ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ই’স’লা’ম সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া স’ম্প’র্কে অশ্রাব্য ভাষায় মন্তব্য করতে গিয়ে বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগের দোষ হলো সত্য কথাটাও ঠিকমত বলতে পারে না’। এর অর্থ হচ্ছে, প্রতিদিন ওবায়দুল কাদের-হাছান মাহমুদ সাহেবরা বিএনপি স’ম্প’র্কে মিথ্যাচার-অ’পপ্রচার চালানোর পরও হয়তো পু’লিশ কর্মক’র্তা শফিকুল সাহেবের মনে হয়েছে, আওয়ামী লীগ পারছে না। তাই আওয়ামী লীগকে টিকিয়ে রাখতে হলে পি’স্ত’ল-ব’ন্দু’ক সার্ভিসের পাশাপাশি আওয়ামী লীগকে পু’লিশের ‘লিপ সার্ভিস’ও দেয়া উচিত।

দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে নিয়ে ডিএমপি কমিশনারের বক্তব্য এবং দেশবাসীর প্রতি পু’লিশ প্রধানের বক্তব্যে আমি তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আহমেদ আজম খান, যুগ্ম মহাসচিব খাইরুল কাবির খোকন, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপু, সহ দফতর সম্পাদক তাইফুল ই’স’লা’ম টিপু, নির্বাহী কমিটির সদস্য আব্দুস সাত্তার পাটোয়ারী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Back to top button