জাতীয়

ডাস্টার দিয়ে পি’টি’য়ে ছা’ত্রীর মা’থা ফাটালেন শিক্ষিকা!

ডাস্টার দিয়ে আ’ঘাত করে শি’শু শিক্ষার্থীর মা’থা ফাটিয়েছেন রাজবাড়ী জে’লা সদরের ৫৭ নম্বর মূলঘর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা চৌধুরী ফরিদা আক্তার।

উর্মি (৯) নামে ওই শি’শু শিক্ষার্থীর মা’থা ফাটানোর দায় স্বীকার করেছেন ফরিদা আক্তার।তবে অ’ভিযোগ উঠেছে, বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা চলছে।গত রোববার (২৭ মা’র্চ) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বিদ্যালয়ের শ্রেণীকক্ষে এ ঘটনা ঘটে। উর্মি ওই বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী।

আ’হত উর্মি রাজবাড়ী সদর উপজে’লার মূলঘর ইউনিয়নের পারসাদীপুর গ্রামের ভ্যানচালক আয়নাল শেখের মে’য়ে। উর্মিকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতা’লের জরুরি বিভাগে নিয়ে মা’থায় ২টি সেলাই দেওয়া হয়েছে।

শিক্ষার্থী উর্মির মা মোছা. শিল্পী খাতুন জানান, আমা’র মে’য়েকে ডাস্টার দিয়ে শিক্ষিকা ফরিদা আক্তার মা’থায় আ’ঘাত করেছেন। এতে তার মা’থা ফেটে গেছে।উর্মির বাবা আয়নাল শেখ জানান, মে’য়ের মা’থা ফাটিয়ে দেওয়ার খবর পেয়ে তাকে উ’দ্ধা’র করে সদর হাসপাতা’লে নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসক তার মা’থায় ২টা সেলাই দিয়েছেন। সোমবার (২৮ মা’র্চ) স্কুলের স্যাররা আমাদের বিষয়টা নিয়ে আলোচনার জন্য ডেকেছেন।

অ’ভিযু’ক্ত সহকারী শিক্ষিকা চৌধুরী ফরিদা আক্তার জানান, রোববার (২৭ মা’র্চ) ২য় শ্রেণির গণিত ক্লাস চলছিল তখন ৩য় শ্রেণির কয়েকজন শিক্ষার্থী ক্লাসের বাইরে থেকে পরবর্তী ক্লাসের জন্য রুমে প্রবেশ করতে চাচ্ছিল। তাদের একাধিকবার নিষেধ করা হলেও শোনেনি। একপর্যায়ে হাতের ডাস্টারটি অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে উর্মির মা’থায় লাগে। এ ঘটনায় আমি অনুতপ্ত। আমা’র অনেক খা’রা’প লেগেছে।

বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ইলিয়াস মিয়া জানান, ঘটনাটি অনাকাঙ্ক্ষিত। এমন ঘটনায় আম’রা অনুতপ্ত। তবে আম’রা শিক্ষার্থীর লেখাপড়ার ব্যাপারে সতর্ক।সহকারী শিক্ষিকা জেসমিন আক্তার জানান, আম’রা সব সময় শি’শুদের মাতৃস্নেহে পড়ালেখা করাই। শি’শুদের আম’রা নিজের সন্তানের মতো ভালোবাসি।

৫৭ নম্বর মূলঘর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মফিজুল ই’স’লা’ম জানান, ঘটনাটি অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে ঘটেছে। শি’শুটির সব ধরনের চিকিৎসা’সেবা বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে দেওয়া হবে। পাশাপাশি শি’শুটি লেখাপড়ার সব ধরনের সুযোগ সুবিধা পাবে। আম’রা এমন ঘটনায় অনুতপ্ত।

বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সাহিদা খাতুনের কাছে ঘটনার ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের ওপরে রাগান্বিত হয়ে বলেন, আম’রা বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করছি। আপনারা এখন যান।

রাজবাড়ী সহকারী উপজে’লা শিক্ষা অফিসার মো. আব্দুস সালাম মণ্ডল বলেন, ঘটনাটি জানতে পেরেছি। শিক্ষার্থীকে সব ধরনের চিকিৎসা করাতে বলা হয়েছে। ঘটনা ত’দ’ন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Back to top button