আন্তর্জাতিক

পা’কিস্তানকে ম’দি’না সনদের ভিত্তিতে গড়ে তোলা দরকার ছিল

এবার পা’কিস্তানের জাতীয় সংসদে অনাস্থা প্রস্তাব তোলার এক দিন আগে রাজধানী ই’স’লা’মাবাদে এক ‘ঐতিহাসিক’ সমাবেশের মধ্য দিয়ে নিজের শক্তি প্রদর্শন করেছেন প্রধানমন্ত্রী ইম’রান খান। গতকাল রবিবার ইম’রানের দল পা’কিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) ‘কল্যাণের সঙ্গে থাকুন’ শিরোনামে ই’স’লা’মাবাদের প্যারেড গ্রাউন্ডে ওই সমাবেশ করেছে।

গতকাল দুপুর ৩টা থেকে সমাবেশ শুরুর কথা থাকলেও দলীয় প্রধানের ডাকে সাড়া দিয়ে সকাল থেকেই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে দলীয় কর্মীরা রাজধানীতে জড়ো হন। পিটিআই দাবি করেছে- সমাবেশে দশ লাখ মানুষ হয়েছিল। বিরোধী দলগুলোর আনা অনাস্থা প্রস্তাব জাতীয় সংসদে উত্থাপনের এক দিন আগে এমন সমাবেশকে ইম’রানের দলের শক্তি প্রদর্শনের মহড়া হিসেবে দেখছেন দেশটির রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা। খবর – জিও নিউজ, ডন ও এপপ্রেস ট্রিবিউনের।

প্রধানমন্ত্রী ইম’রান খান বলেন, ‘বিদেশি অর্থ ব্যবহার করে পা’কিস্তানে সরকার পরিবর্তনের চেষ্টা করা হচ্ছে। দু’র্নী’তির মা’ম’লা বন্ধে সরকারকে ‘ব্ল্যাকমেইল’ করার লক্ষ্যে তার বি’রু’দ্ধে বিরোধীরা অনাস্থার মতো পদক্ষেপ নিতে উঠেপড়ে লেগেছে। এই অ’প’রা’ধীদের লুটপাট ও লুণ্ঠনের দিন শেষ হয়েছে।’ বিরোধীদের দিকে ইঙ্গিত করে ইম’রান বলেন, তারা প্রকাশ্যে আইনপ্রণেতাদের কিনছে। এ সময় পা’কিস্তানকে ম’দি’না সনদের ওপর ভিত্তি করে গড়ে তোলা দরকার ছিল বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এর আগে পরিকল্পনামন্ত্রী আসাদ উম’র তার বক্তব্যে বলেন, ‘যে অ’প’রা’ধীরা দেশের অর্থ আত্মসাৎ করেছিল, প্রধানমন্ত্রী তাদের বি’রু’দ্ধে যু’দ্ধ করছেন।’ প্রতিরক্ষামন্ত্রী পারভেজ খাত্তাক সমাবেশে উপস্থিত কর্মীদের ইম’রান খানের পাশে থাকার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, ‘আমাদের সাহসী নেতা আপনাদের ছেড়ে কোথাও যাবেন না। যারা দল ছেড়ে গেছে, আর চার দিন পরই তারা কা’ন্না করবে।’

এদিকে বিরোধী দলগুলোর আনা অনাস্থা প্রস্তাব আজ সোমবার জাতীয় সংসদে তোলার কথা রয়েছে। প্রস্তাবটি গত শুক্রবার পার্লামেন্টে ওঠার কথা থাকলেও স্পিকার অধিবেশন মুলতবি করায় তা পিছিয়ে যায়। সেটি আজ অধিবেশনে উপস্থাপন করা হবে এবং এর ওপর সাত দিন বিতর্কের পর চূড়ান্ত ভোটাভুটি হবে।

তবে ভোটাভুটির আগে পিটিআইর অন্তত ৫০ জন মন্ত্রীকে রাজনৈতিক দৃশ্যপটে দেখা না যাওয়ায় এ নিয়ে গুঞ্জন চলছে। বিরোধী দলগুলো ইম’রান খানকে ক্ষমতা থেকে সরাতে তৎপর হওয়ার পর থেকে কেন্দ্রীয় ও প্রাদেশিক সরকারের এই মন্ত্রীদের প্রকাশ্যে কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচিতে দেখা যাচ্ছে না। তবে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় এখনও ভালো সম’র্থন পাচ্ছেন ইম’রান খান।

 

Back to top button