জাতীয়

আইজিপি ও ডিএমপি কমিশনারকে আওয়ামী লীগে নেওয়ার অনুরোধ হারুনের

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি অনুরোধ জানিয়ে বিএনপির সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ বলেছেন, পু’লিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ ও ঢাকা মহানগর পু’লিশ কমিশনার শফিকুল ই’স’লা’মকে আওয়ামী লীগে নিয়ে নেন। সোমবার (২৮ মা’র্চ) জাতীয় সংসদে পয়েন্ট অব অর্ডারে এ অনুরোধ জানান হারুন।

সংসদে উদ্বেগ প্রকাশ করে হারুন বলেন, এখানে প্রধানমন্ত্রী রয়েছেন। পু’লিশের আইজিপি ও কমিশনার যে ভাষায় কথা বলেন সেগুলো মেনে নেয়া যায় না। তাদের পোশাক খুলে দিয়ে রাজনীতিতে দেন না কেন? তাদেরকে আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়াইয়া দেন। তারপর যা ইচ্ছে, তাই বলুক। পু’লিশের আইজিপি ও কমিশনার ওই পোশাক পরে যে ভাষায় কথা বলেছেন, এটা তারা বলতে পারে না।

হারুনুর রশীদ বলেন, আইজিপি বলেছেন অ’প’রা’ধীদের স্থান পু’লিশে হবে না। পু’লিশে অ’প’রা’ধের সংজ্ঞা কী? উনি নিজে যে অ’প’রা’ধ করছেন। বোট ক্লাবের সভাপতি এখনো রয়েছেন। এটি কোন সংবিধান বলে আছে, (তা) এখন পর্যন্ত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জাতিকে জানান নাই। অ’প’রা’ধ যদি শীর্ষ জায়গা থেকে হয়ে থাকে, তার বি’রু’দ্ধে ব্যবস্থা না নেন, তাহলে আপনি পু’লিশ সদস্যদের অ’প’রা’ধে কী ব্যবস্থা নেবেন? শীর্ষ পর্যায়ে যারা রয়েছেন, তাঁরাই সবচেয়ে বেশি অ’প’রা’ধ করছেন।

স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে পু’লিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের আলোচনা সভায় আইজিপি বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘দেশের অর্থনীতির ওপর অবরোধ আরোপ করতে একটি রাজনৈতিক দলের নেতারা লবিস্ট নিয়োগ করছেন, জিএসপি বন্ধ করতে চিঠি লিখছেন। আপনারা রাজনীতি করেন জনগণের জন্য, আবার জনগণের বি’রু’দ্ধে যু’দ্ধ ঘোষণা করেন। জনগণকে নিশ্চিহ্ন করার উদ্যোগ গ্রহণ করেন। আপনারা কারা, হু আর ইউ? কী চান আপনারা?’

একই সভায় ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ই’স’লা’ম বলেন, একটি পার্টির খুব সিনিয়র এক নেতা বলা শুরু করেছেন, তাদের নেত্রী নাকি এক নম্বর মুক্তিযোদ্ধা। এর চেয়ে হাস্যকর…। বাম জোটের হরতা’লে পু’লিশের লা’ঠি চার্জের বিষয়ে ইঙ্গিত করে হারুন বলেন, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ে যারা কথা বলতে চেষ্টা করছে, তাদের পু’লিশ দিয়ে দমন করেছেন। এভাবে তো চলতে পারে না। মানুষকে অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে।

Back to top button