জাতীয়

টিপুর স্ত্রী’কে রেব কার্যালয়ে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ

ঢাকার শাহ’জাহানপুরে আওয়ামী লীগ নেতা জাহিদুল ই’স’লা’ম টিপু হ’ত্যা মা’ম’লার বাদী এবং তার স্ত্রী’ ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের সংক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফারহানা ই’স’লা’ম ডলিকে রে’ব কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।সোমবার (২৮ মা’র্চ) রাত ১০টার দিকে তাকে টিকাটুলিতে রে’ব-৩ কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে জিজ্ঞাসাবাদ শেষ রাত ১২টার দিকে তাকে আবার বাসায় পৌঁছে দেওয়া হয়।

এ প্রসঙ্গে মঙ্গলবার (২৯ মা’র্চ) সকালে ডলি সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘আমি কোনো তথ্য জানি কি না…। এর আগে সাংবাদিক সম্মেলন করার আগে ডিবি ডেকে নিয়েছিল। যেহেতু আমি তার ওয়াইফ, আমা’র সঙ্গে কোনো কথা শেয়ার করেছিল কি না, কাউকে স’ন্দেহ হয় কি না- ইত্যাদি জানতে চায়। তারপরে রাজনৈতিক পরিস্থিতিটা জানতে চেয়েছে ১০ নম্বর ওয়ার্ডের। এসব নিয়ে কথা হয়েছে আরকি।’

তিনি বলেন, ‘আমা’র দাবি ছিল… কিলার ধরছে। কেউ তো তাকে টাকা দিয়ে ভাড়া করেছে। টিপুর সঙ্গে এ কিলারের তো সরাসরি কোনো বিরোধ নাই, দ্বন্দ্ব নাই। তাকে ধরছে, তাতে আমি খুশি না। আমা’র কথা হচ্ছে পরিকল্পনা করছে যারা, যারা এদেরকে ভাড়া করেছে, তাদের ধরতে হবে।’

টিপুর স্ত্রী’ বলেন, ‘আবার পরিকল্পনা যারা করছে, তাদেরও গডফাদার আছে, এরা কারা? এই দুইটা স্তর ধরে দিতে হবে। এদের বি’রু’দ্ধে শা’স্তিমূলক ব্যবস্থা না নিলে এ ধরনের জঘন্য খু’ন-খারাবি বন্ধ হবে না। একজন কিলার ধরলেন, তার শা’স্তি হলো, কিন্তু মাস্টারমাইন্ডরা ধ’রা পড়ল না। তাতে তো আমা’র আর আমা’র বাচ্চাদেরও জীবনের রিস্ক তৈরি হলো। আমি তখন তো নিরাপদে থাকব না। এই কথাগুলোই আমি রে’বকে বলেছি।’

ডলি আরও বলেন, ‘রে’ব আমাকে বলেছে, তারা আমাকে আরও আগেই ডাকত। কিন্তু আমা’র শা’রীরিক ও মানসিক পরিস্থিতি বিবেচনায় তারা এতদিন ডাকেনি। তারাও চায় টিপু হ’ত্যায় যু’ক্ত সব স্তরের সবাইকে ধরতে। তারা বলেছে, এই খু’নিচক্রের একদম শেকড় পর্যন্ত তারা ধ’রার চেষ্টা করছে। আর আমি আমা’র নিরাপত্তাহীনতার কথা বলেছি। তারাও কথা দিয়েছে।’

মাস্টারমাইন্ড বা গডফাদার হিসেবে রে’বের কাছে কারও নাম বলেছেন কি না- এই প্রশ্নের জবাবে টিপুর স্ত্রী’ বলেন, ‘আমা’র হাজব্যান্ড তো আমাকে এরকম কিছু বলেনি। আমি পলিটিক্যাল কর্নার থেকে যা যা জানছি সেটুকুই বলছি। আর গডফাদারের নাম তো শুনি। আমি তো তাদের চিনিও না।’
টিপুর স্ত্রী’কে কেন ডেকে নেওয়া হয়েছিল জানতে চাইলে রে’ব- ৩ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আরিফ মহিউদ্দীন সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘কিছু বিষয় জানার জন্য আম’রা তাকে ডেকেছিলাম।’

গত বৃহস্পতিবার (২৪ মা’র্চ) রাত সাড়ে ১০টার দিকে রাজধানীর শাহ’জাহানপুরে ই’স’লা’মিয়া হাসপাতা’লের সামনে দুর্বৃত্তের গু’লিতে নি’হ’ত হন মতিঝিল থা’না আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ই’স’লা’ম টিপু (৫৪) এবং প্রীতি (২৪) নামে রিকশা আরোহী এক কলেজছা’ত্রী। এ ঘটনায় টিপুর গাড়িচালক মুন্না (২৬) গু’লিবিদ্ধ হন।

মাইক্রোবাসের ডানপাশে রিকশায় প্রীতি গু’লিবিদ্ধ হন। স্থানীয়রা আ’হত অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক টিপু ও ওই শিক্ষার্থীকে মৃ’ত ঘোষণা করেন।এ হ’ত্যাকা’ণ্ডের পর বৃহস্পতিবার রাতেই ডিএমপির শাহ’জাহানপুর থা’নায় নি’হ’ত টিপুর স্ত্রী’ ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) সংরক্ষিত কাউন্সিলর ফারহানা ই’স’লা’ম ডলি বাদী হয়ে একটি হ’ত্যা মা’ম’লা করেন।

এরপর বগুড়ায় অ’ভিযান চালিয়ে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পু’লিশের মতিঝিল বিভাগ শনিবার (২৬ মা’র্চ) গভীর রাতে এ হ’ত্যাকা’ণ্ডে জ’ড়ি’ত অ’স্ত্রধারী মাসুম ওরফে আকাশকে গ্রে’প্তা’র করে।পরদিন রোববার (২৭ মা’র্চ) দুপুরে ঢাকা মেট্রোপলিটন পু’লিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগের (ডিবির) অ’তিরিক্ত পু’লিশ কমিশনার হাফিজ আক্তার রাজধানীর মিন্টো রোডে সংবাদ সম্মেলনে জানান, টিপু ও কলেজছা’ত্রী প্রীতিকে গু’লি করে হ’ত্যা করে ভাড়াটে ব’ন্দু’কধারী মো. মাসুম ওরফে আকাশ। গ্রে’প্তা’রের পর আকাশ পু’লিশকে জানিয়েছে, কি’লিং মিশনের একদিন আগে তার কাছে অ’স্ত্র ও মোটরসাইকেল সরবরাহ করা হয়।

আ’সা’মির বরাত দিয়ে হাফিজ আক্তার জানান, বৃহস্পতিবার টিপু ও প্রীতিকে গু’লি করে হ’ত্যা করা হয়। তবে তার আগের দিন অর্থাৎ বুধবারই (২৩ মা’র্চ) টিপুকে হ’ত্যার পরিকল্পনা ছিল শুটার মাসুমের। এ কারণে টিপুকে রেস্টুরেন্ট থেকে তার বাসায় যাওয়ার রাস্তা অনুসরণ করে গু’লি করার প্রস্তুতি নেয় সে। কিন্তু বেশি লোকজন থাকায় ব্যর্থ হয় সে।

এরপর বৃহস্পতিবার (২৪ মা’র্চ) আবার সে টিপুকে অনুসরণ করে। রাত তখন ১০টা ২১ মিনিটে রাজধানীর ব্যস্ত সড়ক শাহ’জাহানপুরের আমতলা ম’স’জিদ এলাকায় যানজটে আ’ট’কে যায় জাহিদুল ই’স’লা’ম টিপুর মাইক্রোবাস। তিনি ওই সময় নিজ গাড়িতে খিলগাঁওয়ের বাগিচা এলাকার বাসায় যাচ্ছিলেন।

হঠাৎ মোটরসাইকেলে করে আসা হেলমেট পরা খু’নি টিপুকে লক্ষ্য করে গু’লি করতে থাকে। এলোপাতাড়ি গু’লিতে জাহিদুলের গাড়িচালক মনির হোসেন এবং রিকশা আরোহী কলেজছা’ত্রী সামিয়া আফরান প্রীতি গু’লিবিদ্ধ হন। পরে হাসপাতা’লে নেওয়া হলে জাহিদুল ও সামিয়াকে চিকিৎসকেরা মৃ’ত ঘোষণা করেন।হাফিজ আক্তার জানান, হ’ত্যার একদিন পরই আকাশ দেশ ছেড়ে পালানোর জন্য জয়পুরহাট সীমান্তে যান। পালাতে না পেরে বগুড়ায় ফিরে আসেন। হ’ত্যাকা’ণ্ডের পরিকল্পনায় জ’ড়ি’ত আরও কয়েকজন গোয়েন্দা নজরদারিতে রয়েছে।

এদিকে, টিপু ও কলেজছা’ত্রী প্রীতিকে গু’লি করে হ’ত্যার ঘটনায় দায়ের করা মা’ম’লায় গ্রে’প্তা’র শুটার মো. মাসুম ওরফে আকাশের ৭ দিনের রি’মা’ন্ড মঞ্জুর করেছেন আ’দা’লত।সোমবার (২৮ মা’র্চ) ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আ’দা’লতে মাসুমকে হাজির করে মা’ম’লার সুষ্ঠু ত’দ’ন্তের জন্য ১৫ দিনের রি’মা’ন্ডের আবেদন করে পু’লিশ।শুনানি শেষে ঢাকার অ’তিরিক্ত মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন তার ৭ দিনের রি’মা’ন্ড মঞ্জুর করেন।

Back to top button