ইসলাম ও জীবন

মা’রা গেলেন ইতালিতে ই’স’লা’ম প্রচারের অগ্রনায়ক

মা’রা গেছেন ইউরোপ ও ইতালির বরেণ্য ই’স’লা’মী ব্যক্তিত্ব শায়খ আবদুর রহমান রসারিও পাসকুইনি। গত বৃহস্পতিবার ২৪ মা’র্চ তিনি মা’রা যান। মৃ’ত্যুর সময় তাঁর বয়স ছিল ৮৬ বছর। ৩৯ বছর বয়সে ই’স’লা’ম গ্রহণ করে শায়খ আবদুর রহমান আইনজীবীর পেশা ছেড়ে ই’স’লা’ম প্রচার ও মু’সলিম’দের সেবায় আত্মনিয়োগ করেন।

এদিকে গত শতাব্দীতে ইতালির মিলান শহরে অবস্থিত ম’স’জিদে আবদুর রহমান নির্মাণে বড় ভূমিকা ছিল তাঁর। মিলানের এই ম’স’জিদ ও ই’স’লা’মিক সেন্টারই ছিল ইতালির প্রথম ম’স’জিদ। শুধু তা-ই নয়, মিলান শহরের সেই শি’শু পরবর্তী সময়ে নতুন প্রজন্মের আধ্যাত্মিক গুরুতে পরিণত হন। ই’স’লা’মের মূলকথা সবার মধ্যে ছড়িয়ে দিতে ইতালীয় ভাষায় পবিত্র কোরআন অনুবাদসহ অসংখ্য গ্রন্থ রচনা করেন তিনি।

জীবদ্দশায় এক বিবৃতিতে শায়খ আবদুর রহমান জানিয়েছিলেন, ‘তিনি স্থানীয় চার শর বেশি ব্যক্তিকে ই’স’লা’ম বিষয়ে আশ্বস্ত করেন। পরবর্তী সময়ে তারা সবাই ই’স’লা’ম গ্রহণ করেছে। আমি যথাসাধ্য ই’স’লা’মের দাওয়াত অব্যাহত রাখার চেষ্টা করি। ইতালিয়ান সবাইকে আমি ই’স’লা’মিক সেন্টারে আসার আমন্ত্রণ জানাই। প্রতি রবিবার উপস্থিত লোকদের প্রশ্নোত্তরের ভিত্তিতে আলোচনা করি। তা সবার জন্য খুবই ফলদায়ক ছিল।’

শায়খ আবদুর রহমান রসারিও পাসকুইনি ১৯৩৪ সালের ১৩ জুন ক্রোয়েশিয়ার ফিউম শহরে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৫৭ সালে মিলান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন বিষয়ে স্নাতক সম্পন্ন করেন। এরপর বার পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে মিলান শহরে আইনজীবী হিসেবে এক যুগ দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭০ সালে তূলনামূলক ধ’র্মতত্ত্ব নিয়ে গভীর অধ্যয়ন শুরু করেন।

১৯৭৩ সালে এক মিসরীয় মু’সলিমের সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা করেন। এর পরই তিনি ই’স’লা’ম গ্রহণের কথা ঘোষণা দেন। ১৯৭৭ সালে ই’স’লা’মের বার্তা ছড়িয়ে দিতে ইতালীয় ভাষায় (Il Messaggero dell’Islam) ‘দ্য ম্যাসেজ অব ই’স’লা’ম’ নামে একটি পত্রিকা প্রকাশ করেন। পরবর্তী সময়ে মিলান ও লোম্বারডি শহরে ই’স’লা’মিক সেন্টার প্রতিষ্ঠায় বিশেষ ভূমিকা পালন করেন।

এদিকে আইনের শিক্ষার্থী ও আইনজীবী হওয়ায় শায়খ আবদুর রহমান ই’স’লা’ম প্রচার, গ্রন্থ রচনা, ম’স’জিদ ও ই’স’লা’মিক সেন্টার প্রতিষ্ঠাসহ সব কর্মকা’ণ্ড দেশীয় আইন অনুসরণ করেই পালন করতেন। ফলে তিনি নিজ কাজে কোনো ধরনের বাধা-বিপত্তির সম্মুখীন হতেন না; বরং তাঁর এ দক্ষতা মু’সলিম জনগোষ্ঠীর সুরক্ষায় বেশি কাজ দেয়। ই’স’লা’মের সামাজিক দিকগুলো দেশের সরকার, বিচার বিভাগ ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর কাছে স্পষ্ট করে তুলে ধরতেন। সূত্র: আলজাজিরা।

 

Back to top button