জাতীয়

মন্ত্রীর কাছে অ’ভিযোগ, ৭ দিনের মা’থায় খাদ্য কর্মক’র্তা বদলি

কুষ্টিয়ার জে’লা খাদ্য কর্মক’র্তা এস এম তাহসিনুল হকের দু’র্নী’তির কারণে জে’লা খাদ্য অফিসের সুনাম একেবারে তলানিতে এসে ঠেকেছে। গত ২০ মা’র্চ কুষ্টিয়া জে’লা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে অ’বৈ’ধ্য মজুদদারিরোধে করণীয় ও বাজার তদারকি সংক্রান্ত এক মতবিনিময়সভায় উপস্থিত খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুম’দারের কাছে ওই কর্মক’র্তার দু’র্নী’তির ফিরিস্তি তুলে ধরেন এক কর্মক’র্তাসহ বিভিন্ন জন। এ ঘটনার ৭ দিনের মা’থায় গতকাল সোমবার জে’লা খাদ্য কর্মক’র্তা এস এম তাহসিনুল হককে কুষ্টিয়া থেকে বাগেরহাটে বদলি করা হয়। একই সাথে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জে’লা খাদ্য কর্মকতা সুবির নাথ চৌধুরীকে কুষ্টিয়ার নতুন জে’লা খাদ্য কর্মক’র্তা হিসেবে পদায়ন করা হয়েছে।

অবিলম্বে এই আদেশ কার্যকর হবে বলে মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব মো. মশিউর রহমান খান স্বাক্ষরিত চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে। দু’র্নী’তিবাজ এই কর্মক’র্তার বি’রু’দ্ধে শা’স্তিমূলক বদলি করায় জে’লার অধিকাংশ চালকল মালিকরা স্বস্তি প্রকাশ করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তাহসিনুল হক ২০২০ সালের ৫ জুলাই জে’লা খাদ্য কর্মক’র্তা হিসেবে কুষ্টিয়ায় দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে নিয়ম নীতির তোয়াত্তা না করে একের পর এক নতুন মিলের লাইসেন্স প্রদান, ছাঁটাই ক্ষমতা বৃদ্ধি, অস্তিত্বহীন ভু’য়া মিলে বরাদ্দ, ওএমএস ডিলারদের কাছ থেকে কমিশন আদায় এবং ধান চাল সংগ্রহের সময় আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রকের সাথে আঁতাত করে কুষ্টিয়ার কতিপয় চালকল মালিক এবং নানান ধরনের দু’র্নী’তি করেন। তিনি সদ্য শেষ হওয়া আমন মৌসুমে ২৮ হাজার টন চাল সংগ্রহ করে মিল মালিকদের কাছ থেকে প্রায় কোটি টাকা কমিশন আদায় করেন বলে অ’ভিযোগ রয়েছে।

জে’লার চালকল মালিক ও খাদ্য অফিসের একাধিক সুত্র নিশ্চিত করে বলেছে, এ ছাড়াও তাহসিনুল হক তাঁর সময়ে দুটি সংগ্রহ থেকে ৬৯ হাজার টন চাল সংগ্রহকালে ডিসি ফুড হিসেবে প্রতিটনে ১০০ টাকা করে ৬৯ লাখ টাকা কমিশন আদায় করেছেন। এর বাইরেও তিনি এবং তার অধীনস্ত কয়েকজন ধান ক্রয় এবং ক্যারিং হ্যান্ডেলিং খাতে দু’র্নী’তি করে লাখ লাখ টাকা আয় করেছেন বলেও অ’ভিযোগ আছে। ২০ মা’র্চের ওই মতবিনিময়সভা ছাড়াও তাহসিনুল হক চালকল এবং খাদ্য গুদাম পরিদর্শনের সময় মন্ত্রী, সচিব এবং অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে টপকে বারবার ক্যামেরার সামনে আসার চেষ্টা করছিলেন যা কর্মক’র্তারা ভালো’ভাবে নেননি।

এসব ব্যাপারে জে’লা খাদ্য কর্মক’র্তা তাহসিনুল হক কালের কণ্ঠকে জানান, এসবই আমা’র বি’রু’দ্ধে অ’পপ্রচার বা ষড়যন্ত্র। বদলিটাও নিয়মিত বদলি বলে তিনি দাবি করেন।

Back to top button