জাতীয়

বায়তুল মোকাররমে ঈদ জামাতে মু’সল্লিদের ঢল

কোভিড মহামা’রির কারণে গত দুই বছর কড়াকড়ি বিধিনিষেধের কারণে ঈদের বড় জামাত হয়নি দেশে। মানতে হয়েছে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব। তবে মহামা’রি পরিস্থিতি এখন অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে। এ কারণে এবার জাতীয় ম’স’জিদ বায়তুল মোকাররমে পবিত্র ঈদুল ফিতরের জামাতে মু’সল্লিদের ঢল নেমেছে।

মঙ্গলবার ফজরের নামাজের পর রাজধানীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মু’সল্লিরা ঈদুল ফিতরের দুই রাকাত ওয়াজিব নামাজ পড়তে জাতীয় ম’স’জিদে আসতে থাকেন। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বায়তুল মোকাররম ও এর আশপাশের এলাকা মু’সল্লিদের পদচারণায় মুখর হয়ে ওঠে।

বায়তুল মোকাররমে ঈদের প্রথম জামাত সকাল ৭টায় শুরু হওয়ার কথা থাকলেও ম’স’জিদে প্রবেশে সাড়ে ৬টার দিকেই মু’সল্লিদের দীর্ঘ সারি দেখা গেছে। দক্ষিণ গেইট দিয়ে লাইন ধরে আর্চওয়ের ভেতর দিয়ে মু’সল্লিরা ম’স’জিদে প্রবেশ করেন।দুই বছর পর বড় কোনো জামাতে অংশ নিয়ে নামাজ আদায়ের জন্য মু’সুল্লিদের ছিল বিশেষ প্রস্তুতি। সবাই কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে নামাজ আদায় করেছেন।

মু’সল্লিদের সারি মা’ওলানা ভাসানী হকি স্টেডিয়াম ছাড়িয়ে বঙ্গবন্ধু স্কয়ার পর্যন্ত চলে গেছে। প্রবেশ গেইটে বিপুল সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে তৎপর দেখা গেছে।বায়তুল মোকাররম ম’স’জিদে ঈদুল ফিতরের ৫টি জামাত হচ্ছে। প্রথম জামাত শুরু হয় সকাল ৭টায়। এতে ই’মাম ছিলেন বায়তুল মোকাররম জাতীয় ম’স’জিদের সিনিয়র পেশ ই’মাম হাফেজ মুফতি মা’ওলানা মিজানুর রহমান।

প্রথম জামাত সকাল ৭ টা ২৭ মিনিটে শেষ হয়। প্রথম জামাত চলাকালীন বিপুল সংখ্যক মু’সল্লি দক্ষিণ গেটের বাইরে রাস্তায় অ’পেক্ষা করতে থাকেন।প্রথম জামাত শেষ হলে মু’সল্লিরা দুটি আর্চওয়ে দিয়ে হুড়মুড় করে প্রবেশ করতে থাকেন। মু’সল্লিদের চাপে আর্চওয়ের কিছু অংশ ভে’ঙে পড়ে। একপর্যায়ে আর্চওয়ে দুটি সরিয়ে দেওয়া হয়।

দ্বিতীয় জামাত শুরু হয় সকাল ৮টায়। তৃতীয় জামাত সকাল ৯টায়, চতুর্থ জামাত সকাল ১০টায়। পঞ্চ’ম ও সর্বশেষ জামাত সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে অনুষ্ঠিত হবে।জামাতে নামাজ আদায়ের পর মু’সল্লিদের মোসাফাহা ও কোলাকুলির মাধ্যমে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করতে দেখা গেছে।

বহুদিন পর বড় জামাতে নামাজ পড়তে পারায় মু’সুল্লিদের মধ্যে বাড়তি উচ্ছ্বাস কাজ করেছে। আজ স্বাস্থ্যবিধি কিছুটা শিথিল ছিল। অনেকে মাস্ক ছাড়াই জামাতে অংশ নিয়েছেন।

Back to top button