জাতীয়

ফরিদপুরে জোড়া খু’ন, ৩০ ঘণ্টা পর লা’শ দাফন, হয়নি কোনো মা’ম’লা

ফরিদপুরের বোয়ালমা’রী উপজে’লায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ঈদের দিনে প্র’তি’প’ক্ষের হা’ম’লায় দুইজন নি’হ’তদের ঘটনার প্রায় ৩০ ঘণ্টা পার হলেও বুধবার রাত ৯টা পর্যস্ত এ ঘটনায় থা’নায় কোনো মা’ম’লা হয়নি। পু’লিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচজনকে আ’ট’ক করেছে। বুধবার সকালে নি’হ’তদের লা’শ ময়নাত’দ’ন্তের জন্য ফরিদপুরের বিএসএমএমসি হাসপাতা’লে পাঠানোর পর ময়নাত’দ’ন্ত শেষে সন্ধ্যায় তাদের লা’শ বোয়ালমা’রীর নিজ গ্রামে
দাফন করা হয়েছে।

এদিকে প্র’তি’প’ক্ষের হা’ম’লায় দুজন নি’হ’ত হওয়ার জের ধরে বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাট চালানো হয়েছে। বর্তমানে এলাকায় পরিস্থিতি শান্ত রাখতে সেখানে অ’তিরিক্ত পু’লিশ মোতায়েন করা হয়েছে।বুধবার সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, বোয়ালমা’রী উপজে’লার উপজে’লার ঘোষপুর ইউনিয়নের গোয়ালবাড়ী ও চরদৈতরকাঠি পাশাপাশি দুটি গ্রাম। যুগের পর যুগ সেখানে চলছে গ্রাম্য দলাদলি। এক পক্ষের সাথে বনিবনা নেই অ’পর পক্ষের। সব বিষয় নিয়েই তাদের
মতবিরোধ। মাঝেমধ্যে এ বিরোধ র’ক্তক্ষয়ী সং’ঘ’র্ষে রূপ নেয়।

জানা গেছে, গত ১৬ এপ্রিল স্থানীয় গোয়ালবাড়ি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের নির্বাচনে অংশ নেয় উপজে’লা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক মোস্তাফা জামান সিদ্দিকী ও গোয়ালবাড়ি গ্রামের আওয়ামী লীগের সম’র্থক আরিফুর রহমানের নেতৃত্বাধীন দুটি প্যানেল। এতে মোস্তাফা জামানের প্যানেল বিজয়ী হয়। এরপর থেকে তাদের মধ্যে নতুন করে উ’ত্তে’জ’না তীব্র আকার ধারণ করে।

১৮ এপ্রিল রোববার তাদের মধ্যে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান নিশ্চিত করতে জে’লা পু’লিশের পক্ষ থেকে শান্তি সমাবেশ করা হয়। ওইদিন গোয়ালবাড়ি স্কুল মাঠে আনুষ্ঠানিকভাবে বোয়ালমা’রী থা’নার ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (ওসি, ত’দ’ন্ত) মো: সালাউদ্দিনের কাছে ঢাল-সড়কি জমা দেন মোস্তফা জামান সিদ্দিকী এবং আরিফুর রহমানের সম’র্থকেরা। ওই সমাবেশে তারা উভ’য়েই আর র’ক্তক্ষয়ী সং’ঘ’র্ষে লিপ্ত হবে না বলেও অঙ্গীকার করেন। একমাস না যেতেই সে অঙ্গীকার ভেঙ্গে যায়।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, ঈদের দিন গত মঙ্গলবার সকাল থেকে বৃষ্টি হওয়ায় ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছিল ম’স’জিদে। দুই পক্ষ বরাবরের মতোই পৃথক দুটি ম’স’জিদে ঈদের জামাতে অংশ নেন। এদিন এক পক্ষ অ’পর পক্ষের জামাতকে রাজাকারের ঈদের জামাত বললে আবার উ’ত্তে’জ’নার সৃষ্টি হয়।

জানা গেছে, মোস্তফা জামানের বাবা সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন আহমেদ ছিলেন মুক্তিযু’দ্ধের যু’দ্ধকালীন কমান্ডার। তার অ’ভিযোগ, আরিফের বাবা বজলুর রহমান ছিলেন স্বাধীনতাবিরোধী। ২০১৭ সালে নতুন করে মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই শুরু হলে বজলু খালাসি তালিকাভুক্ত হতে আবেদন করেন। কিন্তু যাচাই-বাছাই কমিটির সদস্য হিসেবে তিনি তাতে আ’প’ত্তি জানান। এতে দুই পক্ষের বিবাদ আরো শক্তিশালী হয়ে উঠে।

ঈদের দিনে আরিফ সম’র্থকদের ঈদের জামাতকে রাজাকারের জামাত বলে অ’ভিহিত করে মোস্তফার সম’র্থকেরা। এতে দুই দলের মাঝে ছাইচাপা আ’গু’ন যেনো উস্কে যায়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এরপর আরিফ সম’র্থকেরা ৮-১০টি মোটরসাইকেল নিয়ে গোয়ালবাড়ি বাজারে মহড়া দেয়। ৩০-৩৫ জনের আরেকটিদল পুকুর পাড়ের মাটির রাস্তা ধরে রাম’দা, ছ্যান, চাইনিজ কুড়াল সহকারে এসে অ’তর্কিতভাবে হা’ম’লায় চালায় প্র’তি’প’ক্ষের ওপর।

নি’হ’ত খায়রুল মোল্যার মে’য়ে রাবেয়া বেগম বলেন, ‘ঈদের দিন স্বামীর বাড়ি মধুখালি থেকে বাবার বাড়ি আসছিলাম। রওনা দিয়ে বাবাকে বলেছিলাম আমি আসছি। আমাকে নেয়ার জন্যই বাবা অ’পেক্ষা করছিলেন। এর সাত মিনিটের মধ্যেই ফোনে খবর পাই বাবাকে কু’পিয়েছে। তিনি বলেন, আমা’র বাবার হ’ত্যাকারীদের ফাঁ’সি চাই। আমি মৃ’ত্যুর বদলে মৃ’ত্যু চাই।

নি’হ’ত খায়রুলের স্ত্রী’ নাসিমা বেগম বলেন, ঢাল, সড়কি, রাম’দা, চাইনিজ কুড়াল দিয়ে আরিফের লোকেরা আমা’র স্বামীকে হ’ত্যা করেছে।খায়রুল মোল্যার বাড়ির নিকটেই আকিদুল শেখের (৪৬) বাড়ি। প্রতিবেশীরা জানান, বাড়ি থেকে ভ্যান চালিয়ে বাজারের দিকে আসছিলেন আকিদুল। ধারালো অ’স্ত্র দিয়ে কু’পিয়ে গভীর জ’খ’ম করা হয়। এরা দুইজনই মোস্তফা গ্রুপের সম’র্থক। একজন বোয়ালমা’রী হাসপাতা’লে এবং অ’পরজন ফরিদপুর নেয়ার পথে মা’রা যান।

আকিদুল শেখের বাড়ি গিয়ে জানা যায়, চার ছে’লের পর একমাত্র মে’য়েকে প্রসবের সময় তার স্ত্রী’ মা’রা যান। তার বড় ছে’লে আজিজের বয়স ১৫ বছর, মেজ ছে’লে রিয়াজুলের বয়স ১৪ বছর, সেজ ছে’লে মমিনের বয়স ১০ বছর এবং ছোট ছে’লে মোস্তাকিনের বয়স সাত বছর।

ক্ষেতেখামা’রে কাজ করা আকিদুলের এতিম পাঁচ শি’শুর ভবিষ্যতের ভা’র কে নেবে তা কেউ জানে না। আকিদুলের বৃদ্ধা মায়ের বয়স প্রায় ৭০ বছর। বুধবার সকালে চরদৈতরকাঠি ও গোয়ালবাড়ি গ্রামে যেতে পথে মিলে কিছু নির্বাক গ্রামবাসীর মুখ। ঈদের দিনে গ্রামে জোড়া খু’নের ঘটনায় তারা হতভম্ব। পাশাপাশি শঙ্কিত আগামী দিনের অশান্তির কথা ভেবেও।ঘটনার পরপরই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে সেখানে অ’তিরিক্ত পু’লিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পু’লিশ বিষয়টি ত’দ’ন্ত করছে। তবে সেখানে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান নিশ্চিত না হওয়ায় সাধারণ মানুষ উদ্বেগের মধ্যে রয়েছেন। ঘটনাস্থলে বুধবার সিআইডির ক্রা’ই’ম সিন আলামত সংগ্রহ করতে কাজ করছে।

বোয়ালমা’রী থা’নার এসআই মো: মামুন হোসেন বলেন, মঙ্গলবার দুপুরে খবর পেয়ে তারা এলাকায় অবস্থান নিয়েছেন। পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।বোয়ালমা’রী থা’নার ওসি নূরুল বলেন, ওই এলাকায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি শান্ত রাখতে পু’লিশ মোতায়ন করা হয়েছে। হ’ত্যার প্রকৃত তথ্য উ’দ্ধা’রে পু’লিশ কাজ করছে। এজাহার পেলেই আইনগত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। বাড়িঘরে হা’ম’লার বিষয়ে তিনি বলেন, এ বিষয়েও আম’রা খোঁজখবর নিচ্ছি।স্থানীয়রা জানান, বিবদমান দুই গ্রুপের মধ্যে আরিফ হোসেন ঘোষপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজে’লা আওয়ামী লীগের অর্থ সম্পাদক এস.এম ফারুক হোসেনের সম’র্থক এবং মোস্তফা জামান ওই ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ইম’রান হোসেন নবাবের সম’র্থক।

Back to top button