আন্তর্জাতিক

না’রীদের ড্রাইভিং লাইসেন্স দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে তা’লেবান

নতুন করে না’রীদের ড্রাইভিং লাইসেন্স না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আ’ফ’গা’নিস্তানের তা’লেবান কর্তৃপক্ষ। রাজধানী কাবুলসহ আ’ফ’গা’নিস্তানের অন্যান্য প্রাদেশিক শহরে ইতোমধ্যে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হয়েছে।এই নিষেধাজ্ঞা এমন সময়ে আসল যখন দেশটি খাদ্য এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্যের সরবরাহের তীব্র ঘাটতিসহ একটি বিধ্বংসী মানবিক সংকটে ভুগছে।

এ ব্যাপারে কোনো লিখিত নির্দেশ জারি করেনি তা’লেবান সরকার। তবে দেশটির একাধিক স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে ভা’রতের সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, নতুন করে যেসব না’রী গাড়ি চালানোর লাইসেন্সের জন্য আবেদন করেছিলেন, তাদেরকে লাইসেন্স না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তা’লেবান।

অবশ্য তা’লেবানগোষ্ঠী আ’ফ’গা’নিস্তানের ক্ষমতা দখলের আগ পর্যন্ত যে দেশটিতে না’রীদের গাড়ি চালানোর ব্যাপারটি খুব সাধারণ ছিল- এমন নয়। তবে, রাজধানীসহ বিভিন্ন প্রাদেশিক শহরে সে সময় না’রীদের গাড়ি চালাতে দেখা যেত।

গত বছর আগস্টে কট্টরপন্থী তা’লেবান বাহিনী জাতীয় ক্ষমতায় আসীন হওয়ার পর থেকে আ’ফ’গা’নিস্তানের সড়কগুলোতে না’রী গাড়িচালক তেমন দেখা যায়নি। আর এখন নতুন করে আর কোনো না’রীকে লাইসেন্স না দেওয়ার সিদ্ধান্তের মাধ্যমে না’রীদের গাড়ি চালনা একরকম নিষিদ্ধই করল তা’লেবান।

না’রী অধিকারের বি’রু’দ্ধে কট্টর অবস্থান নেওয়ার জন্য বরাবরই কুখ্যাত তা’লেবান বাহিনী। ২০২১ সালে জাতীয় ক্ষমতা দখলের পরই আ’ফ’গা’নিস্তানে মে’য়েদের মাধ্যমিক ও উচ্চ’মাধ্যমিক স্কুলগুলো বন্ধ রয়েছে।অবশ্য তা’লেবান নেতারা জানিয়েছেন, ‘শিক্ষক স্বল্পতার’ কারণে মে’য়েদের স্কুলগুলো খোলা সম্ভব হচ্ছে না। ‘খুব শিগগিরই’ এ সমস্যার সমাধান করা হবে বলে আশ্বা’সও দিয়েছেন তারা।

উল্লেখ্য, গত বছরের আগস্টে আ’ফ’গা’ন সরকারের পতন এবং তা’লেবানের ক্ষমতায় ফিরে আসার পর থেকেই আ’ফ’গা’নিস্তানে মানবাধিকার পরিস্থিতি আরও খা’রা’প হয়েছে। যদিও দেশে যু’দ্ধ শেষ হয়েছে, কিন্তু গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘন অব্যাহত রয়েছে। বিশেষ করে না’রীদের বি’রু’দ্ধে।

আ’ফ’গা’নিস্তান গুরুতর মানবিক সংকটের মধ্যে রয়েছে। আন্তর্জাতিক মূল্যায়ন অনুসারে, আ’ফ’গা’নিস্তানে এখন বিশ্বের সবচেয়ে বেশি সংখ্যক মানুষ জরুরী খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছে। দেশটির ২ কোটি ৩০ লাখ মানুষের জরুরি খাদ্য সহায়তা প্রয়োজন। এ ছাড়া দেশটির প্রায় সাড়ে ৪ কোটি জনসংখ্যার প্রায় ৯৫% শতাংশ মানুষ পর্যাপ্ত খাবার পাচ্ছে না।

Back to top button