জাতীয়

পু’লিশের ভ’য়ে ডোবায় ঝাঁপ দিয়ে মৃ’ত্যু, আ’সা’মি বিএনপির কাউন্সিলর!

নারায়ণগঞ্জের বন্দরের বাগবাড়ী এলাকায় পু’লিশের ধাওয়া খেয়ে ডোবায় পড়ে নিলয় আহমেদ বাবুর মৃ’ত্যুর ঘটনায় বিএনপির কাউন্সিলরকে হুকুমের আ’সা’মি করে মা’ম’লা হয়েছে। এতে সিটি করপোরেশনের ২৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবুল কাউসার আশাসহ ১০ জনকে আ’সা’মি করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৫ মে) নি’হ’ত নিলয়ের মা লিলি বেগম বাদী হয়ে এই মা’ম’লা করেন। বুধবার ম’রদেহ উ’দ্ধা’রের পর নি’হ’তের পরিবার ও স্বজনরা পু’লিশকে দোষারোপ করলেও মা’ম’লায় উল্লেখ নেই বিষয়টি। কাউন্সিলর আশা মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি।

এদিকে এ ঘটনায় এরই মধ্যে দু’জনকে গ্রে’প্তা’র করেছে পু’লিশ। দুজনেই মা’ম’লার এজাহারভুক্ত আ’সা’মি। তারা হলেন- হাসিনা বেগম ও সোবহান। গ্রে’প্তা’রকৃত এজাহারভুক্ত হাসিনা বেগমকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পু’লিশ।

লিলি বেগম মা’ম’লায় উল্লেখ করেন, নি’হ’ত নিলয়ের বি’রু’দ্ধে হাসিনা বেগম একটি অ’ভিযোগ দায়ের করেন। ওই অ’ভিযোগ ত’দ’ন্তের জন্য বন্দর পু’লিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) রওশন ফেরদৌস ঘটনাস্থলে যায়। ঘটনা ত’দ’ন্তের পর স্থানীয় কাউন্সিলর বিষয়টি মীমাংসা করে দেওয়ার জন্য দায়িত্ব নেন। তারপর স্থানীয় কাউন্সিলর নিলয়কে তার অফিসে আসার জন্য ডাকেন। কিন্তু নিলয় কাউন্সিলরের অফিসে না যাওয়ায় আমিনুল, হাসিনা বেগম ও শিপলুর মাধ্যমে নিলয়কে ধরে অফিসে আনার নির্দেশ দেন কাউন্সিলর।

মা’ম’লায় আরও উল্লেখ করা হয়, পরে কাউন্সিলরের নির্দেশে তারা ৩০ এপ্রিল রাত সাড়ে ১০টায় নিলয়ের বাড়িতে আসেন। নিলয় তাদের দেখে বাসা থেকে বের হয়ে পালানোর সময় পুকুরে পড়ে যান। তখন মা’ম’লায় উল্লেখিত আমিনুল, হাসিন বেগম, শিপলু, আফজাল, জিপু, শহিদুল ই’স’লা’ম শইক্কা, সিরাজুল ই’স’লা’ম, হাসান, সোবহান নিলয়কে ইট মা’রলে মা’থায় জ’খ’ম পেয়ে তিনি (নিলয়) পুকুরে পড়ে থাকেন। পরে তারা ম’রদেহ গো’প’ন করার জন্য প্রচার চালায় যে, নিলয় পুকুর থেকে ওঠে চলে গেছে। তারপর অনেক খোঁজ করেও নিলয়কে পাওয়া যায়নি। ৪ মে সকাল পুকুরে খুঁজতে গেলে কচু’রি পানার নিচ থেকে নিলয়ের ম’রদেহ উ’দ্ধা’র করা হয়।

এর আগে বুধবার (৪ মে) বিকেলে উপজে’লার বাগবাড়ি এলাকার ডোবা থেকে নিলয় আহমেদ বাবুর ম’রদেহ উ’দ্ধা’রের সময়ে স্বজনরা অ’ভিযোগ করেন, বন্দর পু’লিশ ফাঁড়ির এসআই রওশন ফেরদৌসসহ সাদা পোশাকে কয়েকজন ধাওয়া দিলে নিলয় ডোবায় লাফ দেয়। পরে তাকে লক্ষ্য করে ইট ছোঁড়া হয়। সেই ইটের আ’ঘাতে আ’হত হয়ে পানিতে ডুবে মা’রা যায় নিলয়।

এ অ’ভিযোগের প্রেক্ষিতে ওই রাতেই জে’লা পু’লিশ সুপারের (এসপি) নির্দেশে এসআই রওশন ফেরদৌসকে ক্লোজড করে পু’লিশ লাইন্সে পাঠানো হয়।

কাউন্সিলর আশা জানান, বাবু কে, কেমন ছে’লে- তা এলাকার সবাই জানে। এলাকার কেউ মা’রা গেলেই কাউন্সিলরের দোষ বা এটা নিয়ে রাজনীতি করা অ’তিরঞ্জিত। এটা কা’ম্য নয়।বন্দর থা’নার ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (ওসি) দিপক চন্দ্র সাহা জানান, এ ঘটনায় অ’ভিযু’ক্ত পু’লিশের উপ-পরিদর্শক রওশন ফেরদৌসকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। মা’ম’লা হয়েছে, সেখানে কাউন্সিলর কাউসারকে হুকুমের আ’সা’মি করা হয়েছে। দু’জনকে গ্রে’প্তা’র করা হয়েছে। বাকি আ’সা’মিদেরও গ্রে’প্তা’রের চেষ্টা চলছে।

Back to top button