জাতীয়

হেলিকপ্টারে স্ত্রী’কে ঘরে আনলেন ব্যাংকার

বগুড়ার দুপচাঁচিয়ায় শখের বসে হেলিকপ্টারে উড়িয়ে স্ত্রী’ রেজিয়া আকতার স্মৃ’তিকে ঘরে আনলেন রইসুল ই’স’লা’ম হিমু নামে এক ব্যাংকার। দুবছর আগে বিয়ে হলেও ক’রো’নাভাই’রাসের কারণে এতদিন তার শখ ও স্বপ্ন পূরণ করা সম্ভব হয়নি।

শুক্রবার সকালে পাশের কাহালু উপজে’লার বামুজা গ্রামে শ্বশুরবাড়ি থেকে স্ত্রী’কে ঘরে আনার পর শুধু ওই দম্পতি নয়, তাদের পরিবারের সদস্যরাও সন্তুষ্ট।

এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এক্সিম ব্যাংক নওগাঁ শাখার সিনিয়র অফিসার রইসুল ই’স’লা’ম হিমু বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজে’লার গোবিন্দপুর ইউনিয়নের চৌমুহনী বাজার এলাকার ড. আবদুল মান্নানের ছে’লে। ড. মান্নান কাহালুর বামুজা ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসার অধ্যক্ষ।

হিমু প্রায় দুবছর আগে পাশের কাহালু উপজে’লার দুর্গাপুর ইউনিয়নের বামুজা দক্ষিণপাড়া গ্রামের আবদুর রশিদ মাস্টারের (দুপচাঁচিয়ার দাইমপুর দাখিল মাদ্রাসার সহকারী প্রধান শিক্ষক) মে’য়ে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী রেজিয়া আকতার স্মৃ’তিকে বিয়ে করেন। ক’রো’নার কারণে এতদিন স্ত্রী’কে ঘরে তুলতে পারেননি।

এদিকে হিমুর খুব ইচ্ছা ছিল তার নবপরিণিতাকে হেলিকপ্টারে উড়িয়ে এনে ঘরে তুলবেন। শুক্রবার তিনি তার সেই শখ পূরণ করলেন। ঘটা করে স্ত্রী’ স্মৃ’তিকে হেলিকপ্টারে বাড়িতে নিয়ে আসেন।বগুড়ার টিএমএসএসের বিসিএল থেকে ভাড়া করা হেলিকপ্টার শুক্রবার সকাল ৯টা ৪০ মিনিটে বরের বাড়ি দুপচাঁচিয়ার চৌমুহনী বাজার এলাকায় প্রিন্সিপাল প্যালেসের সামনে খোলা মাঠে অবতরণ করে। বর হিমু তার স্বজনদের নিয়ে কনের বাড়ি কাহালুর বামুজা গ্রামে যান। আনুষ্ঠানিকতা শেষে কনেকে নিয়ে সাড়ে ১০টার দিকে বাড়িতে ফিরে আসেন হিমু।

প্রত্যন্ত গ্রামে হেলিকপ্টারে বিয়ের ঘটনা জানাজানি হলে বিপুলসংখ্যক উৎসুক না’রী, পুরুষ ও শি’শুরা দুটি বাড়িতে ভিড় করেন।বর ব্যাংকার রইসুল ই’স’লা’ম হিমু জানান, অনেক দিনের শখ ছিল স্ত্রী’কে হেলিকপ্টারে ঘরে আনবেন। কিন্তু ক’রো’নার কারণে এতদিন সম্ভব হয়নি। তাই দুবছর পর সেই সখ পূরণ করলাম।

বরের বাবা অধ্যক্ষ ড. আবদুল মান্নান জানান, হেলিকপ্টারে বউমাকে ঘরে এনে ছে’লের শখ পূরণ করেছেন মাত্র। নববধূ রেজিয়া আকতার স্মৃ’তি তার প্রতিক্রিয়ায় জানান, হেলিকপ্টারে শ্বশুরবাড়িতে আসতে পেরে তার অনেক ভালো লাগছে। পাশাপাশি গর্ববোধও হচ্ছে।

রেজিয়ার বড়ভাই রাজিব মিয়া জানান, গত ২০২০ সালে তার বোনের বিয়ে হয়েছে। ক’রো’নার কারণে এতদিন বিদায় দেওয়া হয়নি। বিয়েবার্ষিকী উপলক্ষে শুক্রবার আনুষ্ঠানিকভাবে বোনকে শ্বশুরবাড়ি পাঠিয়েছেন। দুই গ্রামের কয়েকজন বাসিন্দা জানান, কনেকে হেলিকপ্টারে উড়িয়ে বাড়িতে নিয়ে যাওয়ায় তাদের মাঝে অনেক কৌতুহলের সৃষ্টি হয়েছিল। তারা হিমু-স্মৃ’তি দম্পতির জন্য দোয়া করেছেন।

Back to top button