রাজনীতি

বিএনপির আ’ন্দোলন কঠোরভাবে প্রতিহত করবে সরকার

বিএনপির আ’ন্দোলনের হু’মকিকে গুরুত্ব না দিয়ে হালকাভাবেই নিচ্ছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও সরকার। দীর্ঘদিন ধরে বিএনপির আ’ন্দোলনের হু’মকি দিয়ে আসায় এটা এখন হাস্যকর বিষয়ে পরিণত হয়েছে বলে মনে করছেন সরকার ও আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারকরা।

তবে আ’ন্দোলন দাঁড় করতে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি সন্ত্রাসের মাধ্যমে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করতে পারে বলেও তারা আশ’ঙ্কা করেছেন। আর সে ধরনের চেষ্টা হলে তা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী দিয়ে কঠোরভাবে প্রতিহত করতে সরকার প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন তারা।

গত কিছুদিন ধরেই বিএনপি এবং দলটির নেতৃত্বাধীন জোটের নেতারা সরকারের বি’রু’দ্ধে আ’ন্দোলনের ডাক দেবে বলে ঘোষণা দিয়ে আসছেন। বিএনপি নেতারা বলছেন নির্দলীয় সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তাস্তর এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন করতে আ’ন্দোলনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করা হবে। ঈদের পরেই তারা এই আ’ন্দোলনের কথা বলেছেন। যদিও তারা এখনও আ’ন্দোলনের দিনক্ষণ এবং কোনো কর্মসূচি ঘোষণা করেনি।

এদিকে বিএনপি ও তাদের জোট নেতাদের আ’ন্দোলনের হু’মকিকে গুরুত্ব দিচ্ছে না ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও সরকার। আওয়ামী লীগ ও সরকারের নীতিনির্ধারকরা মনে করছেন বিএনপি দীর্ঘদিন ধরেই আ’ন্দোলনের কথা বলছে কিন্তু এখন পর্যন্ত সরকারের বি’রু’দ্ধে কোনো ধরনের আ’ন্দোলন দাঁড় করাতে পারেনি। সরকার বিরোধী আ’ন্দোলনে জনগণের যে সম’র্থন প্রয়োজন বিএনপি সেটা পাবে না। আবার জনসম’র্থন না পেলেও বিএনপি-জামায়াত অ’তীতের মতো দেশে জ্ব’লাও-পোড়াওসহ অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি চেষ্টা করতে পারে এমন আশ’ঙ্কাও করছে সরকার ও আওযামী লীগ।

বিএনপির এই আ’ন্দোলনের হু’মকিকে হাস্যকর বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। গত ৫ মে নোয়াখালীতে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, বিএনপি গত ১৩ বছরে ২৬ বার আ’ন্দোলনের ডাক দিয়েছে। এখন বিএনপির আ’ন্দোলনের কথা শুনলে মানুষ হাসে। গত ১৩ বছরে বিএনপি ২৬ বার আ’ন্দোলনের ডাক দিয়ে পারলো না, পারবে কোন বছর? তাদের আ’ন্দোলনে প্রশ্ন সবার, এই বছর না ওই বছর, আ’ন্দোলন হবে কোন বছর?

আওয়ামী লীগ ও সরকারের নীতিনির্ধারকরা জানান, বিএনপি দীর্ঘদিন চেষ্টা করেও মাঠে আ’ন্দোলন দাঁড় করাতে পারেনি। তাদের প্রতি জনগণের কোনো সম’র্থন নেই। তবে এ অবস্থায় তারা এখন আ’ন্দোলনের নামে জ্বালাও, পোড়াও, সন্ত্রাসের মাধ্যমে দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরির চেষ্টা করতে পারে। অ’তীতেও ২০১৩, ২০১৪, ২০১৫ সালে তারা বো’মাবাজিসহ এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে এবং এতে অনেক মানুষের প্রা’ণ ঝরেছে। সরকার তাদের এ ধরনের যে কোনো ষড়যন্ত্রের বি’রু’দ্ধে সতর্ক রয়েছে বলে ওই নীতিনির্ধারকরা জানান।

আবারও রাজনৈতিক অঙ্গন উত্তপ্ত হতে পারে জানিয়ে সরকারের কৃষিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মো. আব্দুর রাজ্জাক গত বৃহস্পতিবার (৫ মে) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে বলেন, আবার রাজনৈতিক অঙ্গন উত্তপ্ত হবে বলে মনে হচ্ছে। রাজনৈতিক ক্ষেত্রে উ’ত্তা’প্তের কথা যেটা বলেছি, তারা (বিএনপি) আ’ন্দোলনের হু’মকি দিচ্ছে। তারা ধ’র্মঘট করবে, বাংলাদেশকে অচল করে দেবে। আম’রা মনে করি, যাই হোক দেশের উন্নয়ন কর্মকা’ণ্ড থেমে থাকবে না।

তবে যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় সরকার প্রস্তুত বলে আওযামী লীগ ও সরকারের নীতিনির্ধারকরা জানান। তারা বলেন, সরকার অনেক শক্তিশালী অবস্থানে আছে। অ’তীতের মতো ওই ধরনের কোনো ঘটনা ঘটানোর চেষ্টা করলে সরকারের আইন-শৃঙ্খলণা রক্ষাবাহিনী কঠোর অবস্থান নেবে। যে কোনো স’ন্ত্রা’সী তৎপরতা ও অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরির চেষ্টা দমনে আগে থেকেই কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সরকারের পাশাপাশি আওয়ামী লীগও রাজপথে থাকবে। রাজনৈতিকভাবে যে কোনো অস্থিতিশীল পরিস্থিতি প্রতিহত করতে স্বয়ংক্রীয় থাকবে দলের নেতাকর্মীরা।

এ বিষয়ে নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বাংলানিউজকে বলেন, বিএনপির দু’র্নী’তিবাজ নেতৃত্ব দলটির নেতাকর্মীদের কাছেই গ্রহণযোগ্যতা হারিয়েছে। জনগণ তাদের কথা শুনবে কেন? জনগণের কাছে বিএনপির কোনো গ্রহণযোগ্যতা নেই, তাই তাদের আ’ন্দোলনের হু’মকি নিয়েও জনগণের কোনো ভাবনা নেই। আম’রা ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত, সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্য নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি। অ’তীতে খালেদা জিয়া আ’ন্দোলনের নামে ৯৩ দিন দলীয় কার্যালয়ে অবস্থান করে পরে নাকে খত দিয়ে বাসায় গেছেন। অ’তীতের মতো জ্বালাও-পোড়াও, মানুষ হ’ত্যার কোনো সুযোগ নেই। সরকার অ’ত্যন্ত শক্তিশালী, দেশবিরোধী কোনো তৎপরতা চালাতে দেওয়া হবে না। এই ধরনের চিন্তা-ভাবনা করলেই তাদের বিপদ আছে।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বাংলানিউজকে বলেন, আম’রা আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে দল গোছানোর কাজ করছি। বিএনপি-জামায়াতের অ’পরাজনীতি, ভ’য়, ভীতি, হু’মকিতে আম’রা ভীত নই। আ’ন্দোলনের নামে অ’তীতে তারা বো’মাবাজি করেছে, মানুষ পুড়িয়ে মে’রেছে। তাদের এ কাজগুলো মানুষ ঘৃ’ণা করে। যতই তারা আ’ন্দোলনের হু’মকি দেবে, ততই তারা জনগণ থেকে আরও বিচ্ছিন্ন হবে। জনগণ তাদের সঙ্গে নেই। তারা যদি আবারও ষড়যন্ত্র করে জ্বালাও, পোড়াও, মানুষ হ’ত্যা, দেশকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করে সরকার, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী ভালো’ভাবেই বোঝে কী করতে হবে। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাও মানুষের পাশে থাকবে। অ’তীতেও ছিল, আগামীতেও থাকবে, এটা আওয়ামী লীগের অঙ্গীকার।

Back to top button