জাতীয়

‘দুষ্কৃতকারীদের’ পি’টি’য়ে মা’রার নির্দেশ দিলেন এমপি

দুষ্কৃতকারীদের গণপি’টুনি দিয়ে মে’রে ফেলার প্রকাশ্য নির্দেশ দিয়েছেন নোয়াখালী-১ (চাটখিল-সোনাইমুড়ী) আসনের সংসদ সদস্য এইচ এম ইব্রাহিম।

শুক্রবার (৬ মে) রাতে সোনাইমুড়ীর দেওটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মো. দেলোয়ার হোসেনের প্রথম মৃ’ত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত স্ম’রণ সভায় তিনি এ কথা বলেন।

এমপি ইব্রাহিম বলেন, ‘দুষ্কৃতকারীদের যেখানেই পাবেন গণপি’টুনি দিয়ে জায়গায় মে’রে ফেলবেন। কেউ মা’ম’লা করলে সেটা আমি বুঝবো। প্রয়োজনে আমি হুকুমের আ’সা’মি হবো। আপনাদের কিছুই হবে না।’

স্থানীয়দের দাবি, এলাকায় এমপির নিজ দলীয় শক্ত প্র’তি’প’ক্ষ থাকায় তিনি নিজের অনুসারীদের উৎসাহ দিয়ে চাঙ্গা রাখতে এমন অগ্রহণযোগ্য বক্তব্য দিয়ে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক জনপ্রতিনিধি জাগো নিউজকে বলেন, এমপি সাহেব প্র’তি’প’ক্ষকে ভ’য় দেখাতে গিয়ে এমন বক্তব্য দিয়েছেন। এতে আইনশৃঙ্খলার অবনতি হওয়ার আশ’ঙ্কা রয়েছে। ব্যক্তিগত রেষারেষি এখন হানাহানির পর্যায়ে চলে যেতে পারে।

ফেসবুকসহ নানান সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও সংসদ সদস্য এইচ এম ইব্রাহিমের এমন বক্তব্যের তীব্র সমালোচনা করছেন অনেকেই।মো. আবদুল কাইয়ুম নামে একজন ফেসবুকে লিখেছেন, ‘সোনাইমুড়ীর আইনশৃঙ্খলার পরিস্থিতি কি এতোই খা’রা’প যে পি’টি’য়ে মে’রে ফেলতে জনগণকে নির্দেশ দিতে হবে?’

অনুষ্ঠানে সোনাইমুড়ী থা’নার ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (ওসি) মো. হারুনুর রশিদসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগের কয়েকশ নেতাকর্মী ও এলাকার লোকজন উপস্থিত ছিলেন।ওসি মো. হারুনুর রশিদ বলেন, আমি সেখানে উপস্থিত থাকলেও এমপির দেওয়া এমন বক্তব্য খেয়াল করিনি।

পরে ভিডিও পাঠানোর পর তিনি এ বিষয়ে আর কোনো মন্তব্য করেননি।তবে এমপি এইচএম ইব্রাহিম জাগো নিউজকে বলেন, কোনো ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর বি’রু’দ্ধে নয়, মা’দ’ক ব্যবসায়ীদের বি’রু’দ্ধে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করতে গিয়ে কিছুটা বেশি বলা হয়ে গেছে। এমপি হিসেবে এটা আমা’র উচিত হয়নি। আইন হাতে তুলে নেওয়ার জন্য কাউকে নির্দেশ দিতে আমি পারি না। পরে মনে হয়েছে বক্তব্যটা অ’তিরঞ্জিত হয়ে গেছে।

Back to top button