জাতীয়

অসদাচরণে কবে কোন সরকারি কর্মচারীর বি’রু’দ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে, প্রশ্ন রাব্বানীর

সম্প্রতি ট্রেনে রেলমন্ত্রীর আত্মীয় পরিচয়ে বিনা টিকে’টে ভ্রমণের একটি ঘটনা দেশজুড়ে বেশ আ’লো’চি’ত হয়েছে। সেই ঘটনায় রেলের ভ্রাম্যমাণ টিকিট পরিদর্শক (টিটিই) শফিকুল ই’স’লা’মকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। পরে অবশ্য সেই বহিস্কারাদেশ প্রত্যাহার করে নেন রেলমন্ত্রী। তবুও বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আলোচনা চলছেই। তারই রেশ ধরে নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেইজে এক স্ট্যাটাসে দেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ডাকসুর জিএস গো’লাম রাব্বানী। পাঠকদের জন্য স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধ’রা হলো-

টিকিট ছাড়া রেলের এসি কেবিনে ভ্রমণ করা যাত্রীদের সাথে টিটিই অসদাচরণ করেছেন, এমন অ’ভিযোগে রাতে দরখাস্ত দাখিল আর সকালেই কঠিন একশন! সরাসরি বরখাস্ত, সেটাও আবার সরকারি ছুটি চলাকালীন সময়ে! এমন নজিরবিহীন জনদরদী, জনবান্ধব রেল কর্তৃপক্ষ পেয়ে আম’রা সত্যিই ধন্য, পরম সৌভাগ্যবান! আচ্ছা, সেবা নিতে আসা জনসাধারণের সাথে ‘অসদাচরণ’ এর দায়ে সর্বশেষ কবে কোথায় কোন সরকারী কর্মক’র্তা-কর্মচারীর বি’রু’দ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে, কারো জানা থাকলে জানাবেন।

অধ:স্তন দ্বারা ‘অসদাচরণ’ এর শিকার হয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত অ’ভিযোগ করেও কোন প্রতিকার পাননি, এমন অ’ভিজ্ঞতা থাকলেও জানতে চাই। আর সত্যিকার অর্থেই যদি জনসাধারণের সাথে ‘অসদাচরণ’ এর দায়ে বরখাস্ত সহ দৃষ্টান্তমূলক শা’স্তির ব্যবস্থা নেয়ার প্রাকটিস থাকতো, তাহলে কোন ডিপার্টমেন্টের কত ভাগ জনবল শা’স্তির আওতায় পড়বে বলে মনে করেন?

Back to top button