জাতীয়

মে’য়েকে ‘উ’ত্ত্য’ক্ত’, ১১ বছরের অনিককে গাছে বেঁধে পে’টালেন বাবা

ইভ টিজিংয়ের অ’ভিযোগ এনে পাবনার আটঘরিয়ায় অনিক হোসেন নামে ১১ বছরের এক শি’শুকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গাছের সঙ্গে বেঁধে শা’রীরিক নি’র্যা’তনের অ’ভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। এ অ’ভিযোগে কা’মাল হোসেন ভুঁইয়া নামের এক ব্যক্তিকে গ্রে’প্তা’র করেছে পু’লিশ।

পু’লিশ ও এলাকাবাসী জানায়, সোমবার দুপুরের দিকে আটঘরিয়া পৌরসভা’র উত্তরচক মহল্লার জাহানারা খাতুনের সপ্তম শ্রেণিতে পড়ুয়া শি’শু অনিক হোসেন পার্শ্ববর্তী গ্রামের কা’মাল হোসেন ভুঁইয়ার মে’য়েকে ইভ টিজিং করে এমন অ’ভিযোগ এনে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়।

এরপর তার বাড়ির উঠানে গাছের সঙ্গে রশি দিয়ে বেঁধে শা’রীরিকভাবে তিন-চারজন মিলে নি’র্যা’তন করে। পরে এলাকাবাসীর হস্তক্ষেপে অনিককে উ’দ্ধা’র করে আটঘরিয়া উপজে’লা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।
ঘটনাটি স্থানীয়রা ভিডিও ও ছবি তুলে ফেসবুকে ছড়িয়ে দিলে বিষয়টি পু’লিশের নজরে আসে। পু’লিশ রাতেই অ’ভিযান চালিয়ে কা’মালকে গ্রে’প্তা’র করে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার আটঘরিয়া থা’নায় শি’শু নি’র্যা’তন আইনে একটি মা’ম’লা হয়েছে।

অনিকের মা জাহানারা খাতুন তাঁর সন্তানকে নি’র্যা’তনকারীর শা’স্তি দাবি করেন।আটঘরিয়া থা’নার ওসি হাফিজুর রহমান জানান, এ ঘটনায় আজ নির্যাতিত শি’শুর মা বাদী হয়ে চারজনের নামে একটি মা’ম’লা করেন। পু’লিশ সকাল সাড়ে ১১টার দিকে মা’ম’লার প্রধান আ’সা’মিকে গ্রে’প্তা’র করে আ’দা’লতের মাধ্যমে জে’লহাজতে পাঠায়। ওসি আরো জানান, বাকি আ’সা’মিদের গ্রে’প্তা’রে অ’ভিযান চলছে এবং মূল ঘটনা উদঘাটনে ত’দ’ন্ত অব্যাহত রয়েছে।

আটঘরিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, শি’শুটি হাসপাতা’লে ভর্তি হয়েছে। তার চিকিৎসা চলছে। এখন সে ভালো আছে।

Back to top button