জাতীয়

মজুদ করা বিপুল পরিমাণ সয়াবিন তেল জ’ব্দ

ঝালকাঠিতে সয়াবিন তেলের কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে মজুদ করার অ’ভিযোগ উঠেছে ব্যবসায়ীদের বি’রু’দ্ধে। কেউ কেউ তেল মজুত করে বাড়তি দামে বিক্রি করছেন।

এমন সংবাদের ভিত্তিতে গত বুধ ও বৃহস্পতিবার ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কর্মক’র্তারা ঝালকাঠি শহরের আড়তদারপট্টি ও নলছিটি পৌর এলাকায় অ’ভিযান চালায়। এ সময় তিন ব্যবসায়ীকে ৮০ হাজার টাকা জ’রিমানা করা হয়।

গৌতম চন্দ্র হালদার নামে এক ব্যবসায়ীর গোডাউন থেকে মজুত করা বিপুল পরিমাণ লিটার সয়াবিন তেল উ’দ্ধা’র করা হয়। অ’বৈ’ধভাবে তেল মজুত রাখার দায়ে ৩০ হাজার টাকা জ’রিমানা করা হয় ওই ব্যবসায়ীকে। গৌতম সরকারের গোডাউন থেকে ১৬ কেজির ৮০০ টিন, পাঁচ লিটারের ৩৪ কার্টুন, ১৬ লিটারের ৪৮টি কন্টেইনার এবং ৫০০ গ্রামের ১৬টি বোতল উ’দ্ধা’র করা হয়। তেলগুলো ক্রেতাদের কাছে ন্যায্যমূল্যে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে। পরে তেল নিতে আসা সাধারণ মানুষের মাঝে সরকার নির্ধারিত মূল্যে উ’দ্ধা’র করা তেল বিক্রি করা হয়।

নলছিটি শহরের বসুন্ধ’রা ফুডের ডিলার রিয়াজ হোসেন পুরাতন দাম টেম্পারিং করে নতুন দামে বিক্রি করায় তাকে ৪০ হাজার টাকা এবং শাওন এগ্রো ফুডকে তৈল ক্রয় বিক্রয়ে রশিদ সরবারহ না করায় ১০ হাজার টাকা জ’রিমানা করা হয়।

অ’ভিযান পরিচালনা করেন ঝালকাঠি জে’লা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক ইন্দ্রানি দাস। তিনি জানান, বাজারে সয়াবিন তেল সংকট দেখিয়ে তেলের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করার জন্য অ’বৈ’ধভাবে ব্যবসায়ীরা মজুত করেছেন। এ অ’প’রা’ধে দুইজনকে এবং পুরাতন মূল্য টেম্পারিং করে বৃদ্ধি করার কারণে জ’রিমানা করা হয়েছে।

Back to top button