জাতীয়

পু’লিশ কর্মক’র্তার ছে’লের দোকানে মিললো ১ হাজার ১৫ লিটার তেল

এবার তেল বিক্রিতে অনিয়মের অ’ভিযোগে চট্টগ্রামের ছোটপোল এলাকার একটি দোকানকে দুই লাখ টাকা জ’রিমানা করেছে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। ওই দোকানটি এক পু’লিশ কর্মক’র্তার ছে’লের। জ’রিমানার পাশাপাশি দোকানের গোডাউনে থাকা ১ হাজার ১৫ লিটার ভোজ্যতেল ন্যায্যমূল্যে সাধারণ মানুষের কাছে বিক্রি করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার ১২ মে বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত অধিদপ্তর এ অ’ভিযান পরিচালনা করে। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোহাম্ম’দ ফয়েজ উল্যাহ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এ সময় তিনি বলেন, চট্টগ্রাম নগরীর ছোটপোল এলাকায় বিসমিল্লাহ স্টোরে অ’ভিযান পরিচালনা করেছি। দোকানটিতে আগে কিনে রাখা ১ হাজার ১৫ লিটার তেলের সন্ধান পেয়েছি। এ তেলগুলো ঈদের আগে কিনে বেশি দামে বিক্রি করার জন্য মজুত করে রেখেছিলেন দোকান মালিক। তেলের দাম বাড়ার পর বোতলজাত তেল থেকে খুলে বেশি দামে বিক্রি করছিলেন। আম’রা তাদের ২ লাখ টাকা জ’রিমানা করেছি। দোকান ও গোডাউনকে সিলগালা করে দিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, অ’ভিযানের সময় দেখেছি বোতলজাত পাঁচ লিটার তেলের গায়ে দাম লেখা আছে ৭৬০ টাকা। এসব বোতল খুলে খোলা সয়াবিন তেল হিসেবে প্রতি লিটার ১৮০ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছিল। এতে ৫ লিটার তেলের দাম হয় ৯০০ টাকা।

এদিকে দোকানের সাইনবোর্ডে দেওয়া নম্বরে ফোন দিলে নিজেকে ইয়াসিন আরাফাত নাইম পরিচয় দিয়ে বলেন, দোকানের মালিক তিনি। তিনি বলেন, আমা’র বাবা পু’লিশ কর্মক’র্তা। বাবা পু’লিশ কর্মক’র্তা হয়েছে বলে আমি কি দোকানের মালিক হতে পারব না? আমি মালিক, আমি মূল মালিক। আমা’র সঙ্গে কথা বলেন। আর আমা’র মায়ের নামে দোকানের কাগজপত্র। আম’রা দুই ভাই মিলে ব্যবসা করি। এর সঙ্গে পু’লিশ কর্মক’র্তা বাবার কোনো স’ম্প’র্ক নেই। বেশি দামে তেল বিক্রি করায় দোকান সিলগালা ও জ’রিমানা করার বিষয়টি তিনি স্বীকার করেন।

জানা গেছে, ইয়াসিন আরাফাতের বাবা চট্টগ্রাম জে’লা পু’লিশে উপ-পরিদর্শক (এসআই) পদে কর্ম’রত আছেন। এদিকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিকার অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোহাম্ম’দ ফয়েজ উল্যাহ বলেন, পরে চট্টগ্রাম নগরীর ঝাউতলা বাজারে অ’ভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। বাজারটিতে মহিষের মাংসকে গরুর মাংস বলে বিক্রি করায় এক ব্যবসায়ীকে তিন হাজার টাকা জ’রিমানা করা হয়েছে। এছাড়া মূল্য তালিকা না থাকায় তিনটি দোকানিকে ৬ হাজার টাকা জ’রিমানা করা হয়েছে।

Back to top button