জাতীয়

না’রী সেজে নির্জন স্থানে ডেকে নিয়ে ছিনতাই করতেন মামুন

এবার বোরকা পরে না’রী সেজে অ’ভিনব কায়দায় ছিনতাই চক্রের এক সদস্যকে গ্রে’প্তা’র করেছে পু’লিশ। ছিনতাইয়ে সাহায্যকারী রনি হোসেন (৩৮) নামের এক যুবক পু’লিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যান। গতকাল বুধবার (১১ মে) দিনগত রাত ২টার দিকে নাটোরের বনবেলঘড়িয়া পশ্চিম বাইপাস এলাকা থেকে মামুন নামের ওই ছিনতাইকারীকে গ্রে’প্তা’র করা হয়।

এদিকে গ্রে’প্তা’র মামুন আলী (৪২) বনবেলঘরিয়া বাইপাস এলাকার মৃ’ত বাহার আলীর ছে’লে। পু’লিশ জানায়, বোরকা পরে না’রী সেজে কাউকে নির্জন স্থানে ডেকে নিয়ে ধারালো অ’স্ত্রের ভ’য় দেখিয়ে ছিনতাই করা তাদের পেশা। মামুনের বি’রু’দ্ধে নাটোর সদর থা’নায় ছিনতাই ও চু’রির চারটি মা’ম’লা রয়েছে।

এ বিষয়ে নাটোর সদর থা’নার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) সাখাওয়াত হোসেন জানান, বুধবার রাত ২টার দিকে সময় তার নেতৃত্বে পু’লিশের একটি টহল টিম নাটোর-রাজশাহী মহাসড়কের মহিলা কলেজ গেট এলাকায় দায়িত্ব পালন করছিল। এ সময় কলেজের সামনে নির্জন রাস্তায় বোরকা পরিহিত এক না’রীকে একজন মোটরসাইকেল আরোহীর সঙ্গে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে কাছে যান।

তারা কোথায় যাবেন জানতে চাইলে পু’লিশ দেখে মোটরসাইকেল চালক দৌড়ে পালিয়ে যায়। তখন বোরকায় মুখ ঢাকা ওই না’রীকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তার কণ্ঠস্বর শুনে পু’লিশের স’ন্দেহ হয়। বোরকার মুখ খুলতে বললে তিনি তর্ক শুরু করেন। হঠাৎ পায়ের জুতা দেখে পু’লিশ বুঝতে পারে তিনি না’রী নন পুরুষ। এ সময় তার শরীর তল্লা’শি করে একটি ধারালো চাকু ও রডের পাইপ উ’দ্ধা’র করা হয়।

এ বিষয়ে নাটোর সদর থা’নার ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (ওসি) নাছিম আহম্মেদ বলেন, না’রীরূপী মামুনের ডাকে যারাই সাড়া দিতেন তারাই বিপদে পড়েছেন। অ’ভিনব এ ছিনতাইকাজে জ’ড়ি’ত পুরো চক্রকে ধরতে অ’ভিযান শুরু করেছে পু’লিশ।

Back to top button